previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  লাখাই  >  বর্তমান নিবন্ধ

লাখাইয়ে বামৈ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ভুয়া শিক্ষক নিবন্ধন সনদে নিয়োগের অভিযোগ

 জুলাই ১, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

লাখাই প্রতিনিধি : বামৈ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে একের পর এক বেরিয়ে আসছে নানা ধরনের অনিয়ম এবং দুর্নীতির ঘটনা। এবারে অভিযোগ উঠেছে স্কুলের শিক্ষিকা সীমা রানী দাসের বিরুদ্ধে শিক্ষক নিবন্ধন সনদ জালিয়াতির।

গত ২রা জুন ২০২০ তারিখে জেলা প্রশাসক, হবিগঞ্জ ও ইউএনও লাখাই বরাবরে এলাকাবাসীর লিখিত অভিযোগ এবং সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা যায় যে উক্ত বিদ্যালয়ে গত ০১/০৭/২০১৩ সালে তিনটি পদে শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার জন্য প্রার্থী চাওয়া হয়।

আরো অনেকের সাথে সহকারি শিক্ষিকা শরীরচর্চা পদের বিপরীতে ফান্দাউক গ্রামের সীমা রানী দাস ও আবেদন করেন। নিয়োগ কমিটি ১/৭/২০১৩ তারিখে সিমা রানী দাশ কে ইনডেক্স নিবন্ধন নং ১০০০০৪২১৯৮/২০১০, নিবন্ধন পরিক্ষার রোল নং ৩১৮০৪৫৪০, ১০০২৪১২০ নং সিরিয়াল এ ৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরিক্ষার ২০১০ সালের একটি ভুয়া সার্টিফিকেট দাখিল মূলে আবেদনকৃত পদে নিয়োগ দেন। অতঃপর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবরে প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশীদ চৌধুরীর স্বাক্ষরে নিয়োগকৃত তিনটি পদে সীমা রানী দাস সহ ৩ জন শিক্ষকের এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করেন।

কিন্তু অধিদপ্তর সীমা রানী দাস ব্যতীত বাকি দুই শিক্ষক জুয়েল পারভেজ এবং গোলাম সারোয়ার ভুইয়াকে অনুমোদন দান করেন। উল্লেখ্য জাল সার্টিফিকেট দ্বারা শিক্ষক নিয়োগ করা হলে এর শাস্তি হিসেবে প্রধান শিক্ষকের বেতন স্থগিতকরণ সহ আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথা শিক্ষক নিয়োগ নির্দেশিকার ১৮(ঘ) তে বলা আছে কিন্তু এ ঘটনায় শাস্তিমূলক কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

ইতোপূর্বেও উক্ত বিদ্যালয় নিয়ে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। এর মধ্যে শিক্ষক মামুনুর রশিদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে টিন, বই ও মিড ডে মিল সংক্রান্ত দুর্নীতির খবর অন্যতম। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শিক্ষিকা সীমা রানী দাস এর সাথে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার ওই শিক্ষক নিবন্ধন সার্টিফিকেটের নাম এবং নম্বর এ ভুল ছিল বলে স্বীকার করেন। প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশিদ চৌধুরীর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তার নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুসিকান্ত হাজং কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি জানান, তার কাছে এ সংক্রান্ত লিখিত অভিযোগ এসেছে। তিনি অতিসত্ত¡র তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে দিবেন। তদন্ত কমিটির রিপোর্ট অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

এমপি’র ব্যক্তিগত সহকারী সেই সুদীপ দাসের নামে আরো ‘‘দুর্নীতির অভিযোগ’’!

আরও পড়ুন →