previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  মাধবপুর  >  বর্তমান নিবন্ধ

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করলেও মফস্বল সংবাদকর্মীদের জন্য নেই কোনো প্রণোদনা

এই মফস্বল সাংবাদিকদের সংসার কিভাবে চলছে তা অনেকের ই জানা নেই । মফস্বল সাংবাদিকরা উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকার প্রতিনিধি হয়ে দৃঢ়তার সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে সকলের সাথে তথ্য সেবার কাজ করে যাচ্ছেন।

 জুন ২৬, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ইয়াছিন তন্ময় :   প্রাণঘাতী করোনার দূঃসময়ে মফস্বল সাংবাদিকেরা তথ্যসেবা প্রদান করলেও নেই কোন সরকারের প্রণোদনা ভাতা। তারপরও থেমে নেই, মফস্বল এর সিনিয়র সাংবাদিক থেকে শুরু করে তরুণ সংবাদ কর্মীরা। তাদের জীবনের ঝুকি নিয়ে, মৃত্যুর কাফন মাথায় নিয়ে বর্তমান সংকটময় পরিস্থিতিতে প্রশাসনের সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব, বিডিআর, আনসার, ডাক্তারদের পাশে থেকে প্রতিনিয়ত জরুরী তথ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন মফস্বল সাংবাদিকরা।
এই ঝুকিময় দূঃসময়ে আপডেট খবর প্রকাশ করে যাচ্ছে বীর সৈনিকেরা। করোনা পরিস্থিতির কারনে বিভিন্ন ধরনের শ্রেণী পেশার মানুষদেরকে আর্থিক প্রনোদনা দিচ্ছেন সরকার। কিন্তু মফস্বল ,সাংবাদিকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তথ্য সংগ্রহ করে তা জনগনের দোঁড় গোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে। বিনিময়ে তারা সব ধরনের সরকারি আর্থিক সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। এই মফস্বল সাংবাদিকদের সংসার কিভাবে চলছে তা অনেকের ই জানা নেই । মফস্বল সাংবাদিকরা উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকার প্রতিনিধি হয়ে দৃঢ়তার সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে সকলের সাথে তথ্য সেবার কাজ করে যাচ্ছেন।
আর  যে সকল সাংবাদিকরা কাজ করে যাচ্ছেন হাতে গোনা কয়েকজন ছাড়া বেশিরভাগ ই  নিম্ন ও মধ্যবিত্ত্ব পরিবারের। বর্তমানে উপজেলার অনেক  সাংবাদিকের অবস্থা এমনটাই দাড়িয়েছে যে, নূন আনতে পানতা ফুরানোর অবস্থা । তাদের অবস্থা নিম্নবিত্ত পরিবারের চেয়েও খারাপ, তবুও তারা থেমে নেই তাদের কার্মকান্ড। ধার দেনা করে ওয়াইফাই বা মোবাইলের মাধ্যমে ডাটা কিনে দেশবাসীকে তথ্য সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।
দেশের এই ক্লান্তিলগ্নে মফস্বল সাংবাদিকরা জীবনবাজী রেখে তথ্য সেবা প্রদান করে যাচ্ছেন প্রতিদিন । হাতেগোনা কয়েকটি পত্রিকা ছাড়া অন্য গুলি তে সাংবাদিকদের সূনিদিষ্ট কোন বেতন ভাতাও নেই।  অনেকেই আবার নিজেই ক্যামেরাম্যান আবার নিজেরাই সংবাদ লেখক। কোন কোন পত্রিকা থেকে মফস্বল সাংবাদিক দের উপর চাপিয়ে দেওয়া হয় বিজ্ঞাপন সংগ্রহের কাজ।  অনেক তেল পানি খরচ করে বিজ্ঞাপন সংগ্রহ করে পাঠিয়ে স্ব-স্ব পত্রিকাকে ছাপানোর পর বিলের কমিশনটাও ঠিকমত অনেকেই পান না।
জানা গেছে, সরকার এই সংকটকালীন মুহুর্তে চিকিৎসক, নার্সসহ বিভিন্ন পেশাজীবীর জন্য বীমা ও প্রণোদনা প্রদানের কথা জানালেও ঝুঁকির মধ্যে তথ্যসেবা দিয়ে যাওয়া মফস্বল গণমাধ্যম কর্মীরা পাচ্ছে না কোন প্রণোদনা বা সরকারি সুবিধা। আবার দেখা গেছে দেশের অনেক মফস্বল সাংবাদিকরা সোস্যাল মিডিয়াতে লেখা-লেখি করে যাচ্ছেন তাতেও কোন প্রকার ফল পাওয়া যাচ্ছেনা। বেশিরভাগ গণমাধ্যমে মফস্বল সাংবাদিকরা যখন বেতন-ভাতার বিষয়টি তোলেন তখন ওই প্রতিষ্ঠান থেকে তেমনি একটা সুর ভেসে আসে আমরা বেতন দিতে পারবোনা। বিজ্ঞাপন যোগাড় করেন তা থেকে কমিশন নেন।  তবুও থেমে নেই জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকরা।
আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন নিজেদের দায়িত্ব পালনে। অনেকের হয়তো জানেন না এই সাংবাদিকতা পেশায় কত মানুষ আজ অসহায়। মাসের পর মাস বেতন বকেয়া, কথায় কথায় চাকরি হারিয়ে বহু সাংবাদিক এখন দিশেহারা। এই বিষয়ে কথা হলে তরুণ সংবাদকর্মী জাহিদ বলেন, করোনার এই দু:সময়ে পরিবার পরিজন নিয়ে তেমন ভাল নেই। সরকার যদি আমাদের প্রণোদনার আওতায় নিয়ে আসতেন তা হলে ভাল হত।
মফস্বল সাংবাদিক দের প্রণোদনার ব্যাপারে আমার হবিগঞ্জের সাথে কথা হলে মাধবপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, সাংবাদিকরা সমাজের আয়না। সমাজের সকল অন্যায় ,অভিচারসহ নানান সংবাদ সাহসের সাথে করোনার এই ক্লান্তি লগ্নে মফস্বল সাংবাদিক রা দিন রাত পরিশ্রম করে প্রকাশ করে যাচ্ছেন। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার কাছে আবেদন আপনি আমাদের দিকে একটু নজর দিন।  করোনা ভাইরাসের এই মহামারিতে মফস্বল সাংবাদিকদের একটু খোঁজ নিন। আজ বহু সাংবাদিক অসহায় অবস্থায় দিনযাপন করছে। তাদের প্রতি  আপনি আপনার প্রণোদনার সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন।
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

“দৈনিক আমার হবিগঞ্জ” পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর মাধবপুর খাল দখলের সত্যতা প্রমাণ করলো কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!