previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শীর্ষ সংবাদ  >  বর্তমান নিবন্ধ

হবিগঞ্জ মৎস্য অফিসে এমপি’র ব্যক্তিগত সহকারী সুদীপ দাসের বদলী বাণিজ্যের তথ্য ফাঁস

 জুন ২৬, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

তারেক হাবিব ॥ হবিগঞ্জ জেলা মৎস্য অফিসে এমপি’র নাম ভাঙ্গিয়ে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তাকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে বদলী বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে হবিগঞ্জ জেলার এক এমপি’র ব্যক্তিগত সহকারী সুদীপ দাসের বিরুদ্ধে। সুদীপ দাস হবিগঞ্জের একজন এমপি’র ব্যক্তিগত সহকারী ও বানিয়াচঙ্গ উপজেলার সুবিদপুর ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য সুশীল দাসের পুত্র। সুদীপ দাস বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে ওই এমপির ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে কাজ করে আসছেন। বেশ কিছুদিন যাবৎ তার বিরুদ্ধে এমপি’র নাম ভাঙ্গিয়ে সরকারী-বেসরকারী বিভিন্ন দপ্তরে বদলী ও নিয়োগ বাণিজ্যসহ নানান তদবিরের অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের গোপনীয় অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে এমনই কিছু রেকর্ড ও ভিডিও চিত্র। রেকর্ড ও ভিডিও পর্যালোচনা করে জানা যায়, কিছুদিন আগে হবিগঞ্জ জেলা মৎস্য অফিসে নারায়ণ দাস নামে এক ক্ষেত্র সহকারী সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত আলীর সাথে অশুভনীয় আচরণ করেন। এমনকি ওই অফিসের সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত আলীসহ আরও দু-একজনকে মারপিট ও দেখে নেবার হুমকিও প্রদান করেন। একজন ক্ষেত্র সহকারী হয়ে সিনিয়র অফিসারদের গালমন্দ ও হুমকি প্রদান করার বিষয়টি খতিয়ে দেখতে নড়েচড়ে বসে জেলা মৎস্য কর্তৃপক্ষ। গঠন করা হয় ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি। দীর্ঘ পর্যালোচনা শেষে গত ২০ জানুয়ারি ২০২০ ইং তারিখে ঘটনার সত্যতা পেয়ে নারায়ণ দাসের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করে ওই কমিটি। পরে হবিগঞ্জ থেকে মৌলভীবাজারের জুরীতে নারায়ণ দাস’কে বদলী করা হয়। বদলী করা হলেও এখানেই শেষ নয় ঘটনাটির।

এমপি মহোদয় সুপারিশ করার পরও কেন হবিগঞ্জ জেলার মধ্যে নারায়ণ দাস’কে না রেখে মৌলভীবাজারের জুরীতে বদলী করা হলো তার কারণ জানতে চেয়ে নারায়ণ দাস’কে সাথে নিয়ে সুদীপ দাস হাজির হন হবিগঞ্জ জেলা মৎস্য কর্মকর্তার অফিসে। সেখানে উপজেলার সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত আলীর সাথে তাদের বাক-বিতন্ডা লাগে । দৈনিক আমার হবিগঞ্জের গোপনীয় অনুসন্ধানে সংগ্রহীত ৩৭ মিনিট ৫১ সেকেন্ডের ভিডিও টি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, সুদীপ দাস বারবার ওই এমপির নাম ব্যবহার করে বলছেন, ‘‘হবিগঞ্জ জেলার যেকোনো অফিসের যেকোনো অন্যায় হলে আমরা তার বিচার করার ক্ষমতা রাখি। এমপি সাহেব যেখানে ডিডি সাহেবকে বদলীর আদেশ বন্ধ করতে বলেছেন সেখানে আপনারা কোন সাহসে বদলী বন্ধ না করে ও হবিগঞ্জ জেলার মধ্যে না রেখে নারায়ণ দাস’কে জুরীতে বদলী করা হলো? বিষয়টি এখন আর নারায়ণ দাসে’র মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। এখন এটি এমপি সাহেবের মান-সম্মানের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে’’।

পরে এ ঘটনায় সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত আলী ভীতস্থ হয়ে নিজের জান-মালের নিরাপত্তা চেয়ে ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং তারিখে উল্লেখিত ঘটনা উল্লেখ করে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।

এ ব্যাপারে তৎকালীন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলম-এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘‘নারায়ণ দাসের বিভিন্ন অপকর্ম আমাদের চোখে পড়ে। সে সময়ে-অসময়ে সিনিয়র অফিসারদের সাথে বেয়াদবি এবং হুমকি-ধমকি প্রদান করত। কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তাকে জুরীতে বদলী করা হয়। পরে সুদীপ দাস নামে এক ব্যক্তি আমাকে বারবার ফোন করেন। এমনকি লোকবল নিয়ে আমার কর্মস্থলেও যান। আমাদের দিয়ে নারায়ণের বদলীর বিষয়টি জোর করে পরিবর্তন করার চেষ্টা করেন’’।

হবিগঞ্জ সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত আলী জানান, সুদীপ দাস জেলা মৎস্য অফিসে এসে নারায়ণ’কে কেন বদলী করা হলো তার কারণ জানতে চান। বার বার বলেন, ডিডিকে এমপি মহোদয় নির্দেশ দেয়ার পরও কেন বদলী করা হলো? তারা জেলা মৎস্য অফিসসহ সবার বিচার করার ক্ষমতা তারা রাখেন এ কথাও বলেন।

অভিযুক্ত ক্ষেত্র সহকারী নারায়ণ দাস’এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ঘটনাটি সম্পূর্ণ সাজানো। সুদীপ দা অফিসে গিয়েছিল ঠিকই, তবে এর সাথে আমার বদলীর কোন সম্পর্ক নেই। আমি কিছুক্ষণ পর আপনার সাথে যোগাযোগ করব বলে ফোন কেটে দেন।

উল্লেখিত এমপি’র ব্যক্তিগত সহকারী সুদীপ দাস’এর মোবাইল যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ‘‘আমার এলাকার ছেলে হিসেবে আমি নারায়ণের জন্য সুপারিশ করতে মৎস্য অফিসে গিয়েছিলাম। এখানে আমার কোন ইন্টারেস্ট ছিল না’’।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জে আলোর সন্ধানে শিক্ষা ফাউন্ডেশনের চেক বিতরণ

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!