previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  লাখাই  >  বর্তমান নিবন্ধ

‘ছাত্রদলের রাসেল’ যেভাবে লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক

 জুন ২২, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

বিশেষ প্রতিনিধি॥ তিনি ছিলেন উপজেলা ছাত্রদলের পদ প্রত্যাশী তুখোড় এবং সক্রিয় একজন ছাত্রদল নেতা। ছাত্রদলের পদের জন্য ঘুরেছেন উপজেলা ও জেলা বিএনপি ও ছাত্রদলের বড় বড় নেতাদের দ্বারে দ্বারে। কিন্তু তার এত ত্যাগ স্বীকার এবং মিছিল-মিটিংয়ে লোক সরবরাহের পরেও জোটেনি ছাত্রদলের কমিটিতে আকাঙ্খিত পদ। কারণ দীর্ঘ এক যুগেরও বেশি সময় ধরে লাখাই উপজেলা ছাত্রদলের কমিটিতে পরিবর্তন হয়নি। তারপর ভোল পাল্টে সেই লোক উপজেলা এবং জেলা আওয়ামী লীগের বড় নেতাদের আশীর্বাদে চলে আসেন আওয়ামী লীগে। বিয়ে করেন লাখাই উপজেলার যুদ্ধাপরাধের দায়ে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত লিয়াকত রাজাকারের পরিবারে। বিশেষ আশীর্বাদপুষ্ট সেই ছাত্রদল নেতা এবার সাংগঠনিক সম্পাদক প্রার্থী হয়ে যান ৬ই ডিসেম্বর ২০১৯ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে। রাজনৈতিক বড় ভাইদের বিশেষ সহযোগিতায় নির্বাচন করার জন্য গঠন করা নির্বাচন পরিচালনা কমিটির যাচাই-বাছাইয়েও হয়ে যান তিনি উত্তীর্ণ। একই পদ্ধতিতেই সকলকে তাক লাগিয়ে অতি সহজেই পার হয়ে যান নির্বাচনী বৈতরণী। কাউন্সিলে পাশ করে হয়ে যান এবার লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক। তারপর আর ঠেকায় কে? তিনি এখন মুজিব কোট লাগিয়ে লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রথম সারির গুরুত্বপূর্ণ নেতা।

উপরে বর্ণিত সেই নেতার নাম রাসেল আহমেদ, বাড়ি লাখাই উপজেলার সদরখ্যাত ভাদিকারা গ্রামে। পেশায় ইট বালু সিমেন্ট ব্যবসায়ী। তার ছাত্রদলের রাজনীতিতে থাকার বিষয়টি এখনও সকলের মুখে মুখে ফেরে।

গত ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ অনুষ্ঠিত হয় লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন। সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সভাপতি মাহফুজুল আলমের নেতৃত্বের গ্রুপ অংশ নেননি। ওই নির্বাচনে বিভিন্ন পদে মোট ১৭ জন প্রার্থী অংশ নেন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সভাপতি পদে জয়লাভ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক জনাব এডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ। নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বড় একটি গ্রুপ অংশ না নেয়ায় এটি প্রশ্নবিদ্ধ হয়। ওই নির্বাচনে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে জয়লাভ করেন কথিত ছাত্রদল নেতা রাসেল আহমেদ। বিষয়টি হবিগঞ্জ জেলার রাজনীতিতে তখন আলোড়ন তোলে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক লাখাই উপজেলা ছাত্রদলের আরেক ত্যাগী নেতা দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানান, রাসেল আমাদের কথায় ছাত্রদলের মিছিল মিটিংয়ে প্রচুর লোক সরবরাহ করত। তার উদ্দেশ্য ছিল ছাত্রদলের কমিটিতে যেকোনো মূল্যে স্থান পাওয়া। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে লাখাই উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠিত না হওয়ায় সে হতাশ হয়ে পড়ে। তৎকালীন জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বাবুলের গ্রুপ সে করতো বলে তিনি জানান।

কথা হয় লাখাই উপজেলা ছাত্রদলের তৎকালীন সভাপতি জনাব নুরুল আমিনের সাথে, তিনি বলেন রাসেল ছিল ছাত্রদলের পদ প্রত্যাশী নেতা। সে ছাত্রদলে পদ পাওয়ার জন্য দৌড়েছে। কিন্তু কমিটি টমিটি হয়নি। তবে সে বিএনপি মাইন্ডের ছিল।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার পক্ষ থেকে কথা হয় হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বাবুলের সাথে, রাসেল আহমেদ কে চিনেন কিনা জানতে চাইলে তিনি প্রথমে চিনতে না পারলেও পরবর্তীতে তাকে নিজ দলের কর্মী হিসেবে চিনতে পারেন। তিনি জানান রাসেল ছাত্রদলের পদ পদবীর জন্য তার কাছে তদবিরও করেছেন। বর্তমানে তিনি আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদ লাভ করাতে তিনি তাকে শুভকামনা জানাতে চান কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন যে শুভকামনা কিভাবে জানাবো সে আমাদের দল ছেরে যাওয়াতে আমি যথেষ্ট মনঃক্ষুন্ন এবং দুঃখিত হয়েছি।

এ ব্যাপারে লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ অনুষ্ঠিত সম্মেলনে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক এর দায়িত্ব পালন করা লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জনাব আব্দুল মতিন কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন রাসেল ছাত্রদল করতো কিনা তার জানা নেই। তবে সে কাউন্সিলরদের ভোটে নির্বাচিত হয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক হয়েছে। ছাত্রদল করত এ মর্মে প্রমাণ পেলে তিনি কি করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন দল এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে। তবে তিনি এক পর্যায়ে রাসেল আহমেদ এর আওয়ামী লীগের প্রতি মন ছিল এবং আওয়ামী লীগ করত বলেও জানান।

লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক জনাব ফারুক আহমেদ কে রাসেল আহমেদ এর বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনিও পরস্পরবিরোধী বক্তব্য প্রদান করেন। প্রথমে তিনি রাসেল পূর্বে ছাত্রদল করতো কিনা এ প্রসঙ্গে জানেন না বলেন। পরবর্তীতে তিনি আবার বলেন রাসেল আওয়ামী লীগ করত।

তবে আওয়ামী লীগ এবং তার সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীদের মধ্যে এ ব্যাপারে রয়েছে চাপা ক্ষোভ ও অভিযোগ। সচেতন মহল মনে করেন এভাবে লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীদের দূরে ঠেলে দিয়ে বিএনপি ও ছাত্রদল থেকে লোক এনে আওয়ামী লীগের কমিটিতে সুকৌশলে পদ-পদবি পাইয়ে দেয়ার ঘটনা নতুন নয়। এ ব্যাপারে আশু পদক্ষেপ না নিলে ভবিষ্যতে দলের দুর্দিনে এসব দুধের মাছি কে খুঁজে পাওয়া যাবে না।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

লাখাইয়ে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও যানবাহনকে জরিমানা

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!