previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  নবীগঞ্জ  >  বর্তমান নিবন্ধ

নবীগঞ্জে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী স্বামী, শ্বশুড় ও শ্বাশুড়ী সহ গ্রেফতার ০৪ জনের জামিন না মঞ্জুর জেল হাজতে প্রেরন।।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নবীগঞ্জ থানার ওসি(তদন্ত) উওম কুমার দাশ বলেন, ‘নির্যাতিত প্রবাসী বধূর মা বাদী হয়ে  মামলার প্রক্ষিতে ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হলে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। আসামীদের মধ্যে ১ জন জামিনে আছেন। 

 জুন ২, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগের উপ পরিচালক ও সিলেট আইএসটির অধ্যক্ষর মেয়ে  অস্ট্রলিয়া প্রবাসী অনুস্পিতা দেবের উপর নারী নির্যাতনের ঘটনায় দায়েরকৃত নারী নির্যাতন মামলায় পলাতক আসামী অভিযুক্ত স্বামী ধনঞ্জয় দেব সহ ০৪ জনকে  গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়,  অভিযুক্ত স্বামী নবীগঞ্জ পৌরসভার গয়াহরি গ্রামের ব্যবসায়ী ধীরেন্দ্র চন্দ্র দেবের অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী ছেলে ধনঞ্জয় চন্দ্র দেব প্রায় ১ বছর পুর্বে বিয়ে করেন উপজেলার বদরদী গ্রামের বাসিন্দা ডাঃ রথীন্দ্র চন্দ্র দেব এর উচ্চ শিক্ষিত কন্যা অনুস্পিতা দেব অনু’কে। বিয়ের ৩ মাসের মধ্যে নববধুকে নিয়ে অষ্ট্রেলিয়া চলে যায় ধনঞ্জয় দেব। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া যাবার পর স্ত্রীর উপর বিভিন্ন ইস্যুতে শুরু করে নির্যাতন ও অত্যাচার। এতে সহযোগীতা করে ভাসুর, দেবর, শ্বশুড় ও শ্বাশুড়ির।

এদিকে এ ঘটনায় অনুস্পিতার মা সঞ্চিতা ধর বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় গত (২৩ মার্চ) নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলার পরপর পুলিশ তাৎক্ষনিকভাবে অনুস্পিতার দেবর দিপংকর দেব (২৭)কে গ্রেফতার করেন। অপর আসামীরা পালিয়ে যায়। পরে ০১ জুন নবীগঞ্জ থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঢাকা-সিলেট মহা সড়কের সৈয়দপুর বাজার থেকে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী ধনঞ্জয় দেব (২৯), ভাসুর দীপক দেব (৩৭), শ্বশুড় ধীরেন্দ্র দেব (৬০) ও শ্বাশুড়ি মিনতি রানী দেব (৫৫) কে গ্রেফতার করে। এদিকে গ্রেফতারকৃতদের (০২ মে) কোর্ট হাজতে হাজির করা হলে তাদের জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে।

নির্যাতিত ওই প্রবাসী বধূ অনুস্পিতা দেব বলেন গত ১৭ মার্চ আমাকে সাথে নিয়ে স্বদেশে ফিরেন আমার স্বামী ধনঞ্জয় দেব। ওই দিন রাতে ঢাকা শাহজালাল আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দর থেকে আমাকে ফাঁকি দিয়ে আমার পাসপোর্ট নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে তার মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে পিতা-মাতাকে জানালে তারা আমাকে উদ্ধার করে। সে দেশে আসার আগে আমাকে বিভিন্ন ইস্যুতে নির্যাতন করত।

নারী নির্যাতন মামলার বাদী সঞ্চিতা দেব জানান আমার মেয়েকে ফেলে যাওয়ার গত ১৯ মার্চ বৃহস্পতিবার দুপুরে মেয়ে সাথে নিয়ে তার শশুড়বাড়ি গয়াহরি গ্রামে যাওয়ার পর কিন্তু শশুড়বাড়ির লোকজন পুত্রবধুকে ঘরে না তোলে গেইটে তালাবদ্ধ করে রাখে। অনু ঘরে ঢুকার চেষ্টা করলে শশুড়বাড়ির লোকজন তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে বলে অভিযোগ করেন।পরে খবর পেয়ে পুলিশ, এলাকাবাসী, পৌর মেয়রসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নবীগঞ্জ থানার ওসি(তদন্ত) উওম কুমার দাশ বলেন, ‘নির্যাতিত প্রবাসী বধূর মা বাদী হয়ে  মামলার প্রক্ষিতে ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হলে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। আসামীদের মধ্যে ১ জন জামিনে আছেন।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

এস.এন.পি স্কুল এন্ড কলেজের ছাঁদ ঢালাইয়ের অনিয়ম শীর্ষক প্রকাশিত সংবাদের স্কুল কমিটির সংশ্লিষ্টতা সম্পর্কে সভাপতি ফজলুল হক চৌধুরী সেলিমের বক্তব্য।

আরও পড়ুন →