previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  মাধবপুর  >  বর্তমান নিবন্ধ

মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্যের নিদর্শন মাটির ঘর

আমার হবিগঞ্জের সাথে কথা হলে উপজেলার মাহমুদ পুর গ্রামের বাসিন্দা সামসু মিয়া বলেন মাটির সহজলভ্যতা, প্রয়োজনীয় উপকরণের প্রতুলতা আর শ্রমিক খরচ কম হওয়ায় আগের দিনে মানুষ মাটির ঘর বানাতে আগ্রহী ছিল

 জুন ১, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ইয়াছিন তন্ময় মাধবপুর :  হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্যের নিদর্শন মাটির ঘর। গত কয়েক বছর আগেও মাধব পুরের গ্রাম এলাকার মানুষের কাছে মাটির ঘর অনেক জনপ্রিয় ছিল যার পরিচিতি ছিল গরীবের এসি ঘর নামে। কিন্তু এখন কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে সেসব মাটির ঘর। আগেকার দিনে উপজেলার বুল্লা জগদিশপুর নোয়াপাড়া সহ প্রতিটি গ্রামেই নজরে পড়তো মাটির তৈরি ঘর। ঝড়, বৃষ্টি থেকে বাঁচার পাশাপাশি প্রচুর গরম ও শীতে বসবাস উপযোগী মাটির তৈরি এসব ঘর এখন আর তেমন একটা নজরে পড়ে না।
আধুনিকতার ছোঁয়ায় আর সময়ের বিবর্তনে মাধবপুর উপজেলা থেকে মাটির তৈরি ঘর বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। অতি প্রাচীনকাল থেকেই মাটির বাড়ি গ্রামের মানুষের কাছে ঐতিহ্যের প্রতীক ছিল। গ্রামের বিত্তবানরা এক সময় অনেক অর্থ ব্যয় করে মাটির দ্বীতল মজবুত বাড়ি তৈরি করতেন যা এখনো কিছু কিছু গ্রামে চোখে পড়ে।
এঁটেল বা আঠালো মাটি কাদায় পরিণত করে ২-৩ ফুট চওড়া করে দেয়াল বা ব্যাট তৈরি করা হয়। ১০-১৫ ফুট উঁচু দেয়ালে কাঠ বা বাঁশের সিলিং তৈরি করে তার ওপড় খড় বা টিনের ছাউনি দিয়ে তৈরি হয় গ্রামীণ ঐতিহ্য মাটির ঘর। গরীবের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এ ঘর তৈরিতে ইদানিং ঝোঁক কমছে মানুষের। মাটির ঘরের বদলে তৈরি হচ্ছে ইট-সুরকির অট্টালিকা। মাধবপুর উপজেলা ঘুরে  মাটির ঘর তেমন একটা চোখে পড়ে নি,তবে চা বাগান গুলিতে রয়েছে মাঠির ঘর,
স্থানীয়রা বলছেন, আধুনিকতার স্পর্শে এখন মানুষের জীবনযাত্রার মান বেড়েছে। গ্রামে গ্রামে পৌছে গেছে বিদ্যুৎ। গ্রামীণ অর্থনীতির গতি সচল হওয়ায় মাটির ঘরের পরিবর্তে তৈরি হচ্ছে পাকা ঘর। সচেতন মানুষ কয়েক বছর পর পর মাটির ঘর সংস্কারের ঝক্কি-ঝামেলা ও ব্যয়বহুল দিক পর্যবেক্ষণ করে মাটির ঘরের পরিবর্তে দালান-কোঠা বানাতে উৎসাহী হয়ে উঠেছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টির চা বাগানের শ্রমিক রা বসবাসের জন্য মাটির ঘরই পছন্দ করে।  আগেকার দিনে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টির হিন্দু ও মুসলমান পল্লীগুলোতে অধিকাংশ ঘরই ছিল মাটির ঘর। শীত কী গরম সব সময়ের জন্যই আরামদায়ক হওয়ায় গ্রামের দরিদ্র মানুষের পাশাপাশি বিত্তবানরাও তৈরি করতেন এ ঘর। কিন্তু আধুনিকতার ছোয়ায় আজকাল তা আর প্রয়োজন পড়ে না। উপজেলার
গ্রামে গ্রামে মাটির ঘরের সংখ্যা কমে যাওয়ার কারণ হিসেবে স্থানীয়রা বলছেন, ৩ থেকে ৪ বছর পর পর মাটির ঘরের আমুল সংস্কার প্রয়োজন হয়। এর ব্যয়ভার ও স্থায়িত্বের বিষয়টি সচেতন মানুষের বিবেচনায় আসে। এর ফলে গ্রামীণ পরিবেশে মাটির ঘর এখন অনেকটাই বিলুপ্তির পথ ধরেছে।
আমার হবিগঞ্জের সাথে কথা হলে উপজেলার মাহমুদ পুর গ্রামের বাসিন্দা সামসু মিয়া বলেন মাটির সহজলভ্যতা, প্রয়োজনীয় উপকরণের প্রতুলতা আর শ্রমিক খরচ কম হওয়ায় আগের দিনে মানুষ মাটির ঘর বানাতে আগ্রহী ছিল। এ ছাড়া টিনের ঘরের তুলনায় মাটির ঘর অনেক বেশি আরামদায়ক। তীব্র শীতে ঘরের ভেতরটা থাকে বেশ উষ্ণ। আবার প্রচণ্ড গরমেও ঘরের ভেতর থাকে তুলনামূলক শীতল।তবে এখব আর তা নেই মানুষ এখন দালান ঘর তৈরি তে মনোযোগ বেশি।
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জে আরো ২৮ জনের করোনা শনাক্ত

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!