previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শায়েস্তাগঞ্জ  >  বর্তমান নিবন্ধ

শায়েস্তাগঞ্জে পাকা ধান নিয়ে গভীর চিন্তায় কৃষকরা

সুরাবই গ্রামের এক কৃষানী জহুরা আক্তার সাজন বলেন,গত সোমবারে  ২০ মণ ধান সিদ্ধ দিয়েছি কিন্তিু রোদের অভাবে ধানে গন্ধ চলে আসছে। এই ধান শুকিয়ে খাব কিভাবে এই চিন্তায় আছি।

 মে ২০, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক, শায়েস্তাগঞ্জ:  শায়েস্তাগঞ্জে ঘুর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে উঠতি পাকা বোরো ধান নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে কৃষকরা। গত কয়েকদিন যাবত রোদ আর মেঘের লুকোচুরি চলছে। গতকাল রাতে পুরো শায়েস্তাগঞ্জে বেশ দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি হয়েছে। আজ বুধবার কোথাও দেখা মেলেনি রোদের। অবিরত বৃষ্টি আর বাতাসে ধানের গাছ গুলো মাটি আর পানিতে একাকার হয়ে গেছে। পাকা ধানের নিম্মাঞ্চলের জমিতে বৃষ্টি আর ঢলের পানিতে প্রায় হাঁটু জলে পরিনিত হয়েছে। জমি থেকে বৃষ্টির পানি ধীরে ধীরে নামার কারণে ফলন বিপর্যয়ের আশংকা দেখা দিয়েছে। অনেক জমিতে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় পাকা ধান নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে কৃষকরা। আবার অনেকেই পাকা ধান কেটে সিদ্ধ দিয়েছেন, কিন্তু রোদে শুকাতে না পেরে সেই সোনার ধান নষ্ট হচ্ছে।

ছবি : শায়েস্তাগঞ্জে পাকা ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা

চলতি মৌসুমে কৃষকরা ইরি-বোরো ধানের ভাল ফলনের বুকভরা আশা করলেও গত মঙ্গল-বুধবার ঝড় আর বৃষ্টির কারণে ধানের ক্ষতি হওয়ায় আশানুরুপ ফলন নিয়ে চাষিরা শংকায় পড়েছে।  খোজ নেয়া জানা যায়, স্থানীয় কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে মাঠ পর্যায়ের কৃষকদেরকে দ্রুত ধান কাটার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।
উপজেলার সুরাবই গ্রামের কৃষক মো: কামরুল হাসান জানান, আমি এবছর ১০ বিঘা জমিতে ধান লাগিয়েছি। ইতিমধ্যেই ধান কাটা শুরু করেছি ফলন ভালই হচ্ছে। গত  কয়েকদিনের  বৃষ্টিপাতে আমার প্রায় ৬ বিঘা জমির জিরা জাতের ধান মাটিতে পড়ে গেছে। জমিগুলোতে ঢলের পানি জমে যাওয়ায় বিঘা প্রতি অতিরিক্ত মজুরী গুনতে হচ্ছে। ভাল ফলন পাবো কি না এই নিয়ে শংকায় আছি।
সুরাবই গ্রামের এক কৃষানী জহুরা আক্তার সাজন বলেন,গত সোমবারে  ২০ মণ ধান সিদ্ধ দিয়েছি কিন্তিু রোদের অভাবে ধানে গন্ধ চলে আসছে। এই ধান শুকিয়ে খাব কিভাবে এই চিন্তায় আছি।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি অফিসার সুকান্ত ধর দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, এ বছর শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল জমি  ১৩৫০হেক্টর।  শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় প্রায় ৪৫ শতাংশ ধান কাটা হয়ে গেছে। ধান কাটার জন্য উপজেলার ব্রাক্ষণডুরা ও শায়েস্তাগঞ্জে ২টি মেশিন দেয়া হয়েছে,মেশিনের পেছনে মোবাইল নাম্বার দেয়া আছে, যে কেউ ফোন করলে ধান কেটে দেয়া হচ্ছে। আর ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে ফসলের কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে জিঙ্গেস করলে উনি জানান, কিছুটাত ক্ষতি হবেই, প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনো নির্ধারণ করা যায়নি। আমরা যতটুকু পারছি চেষ্টা করছি কৃষকদের পাশে থাকার ।
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

অলিপুরে সিটিসেল টাওয়ার থেকে পড়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু

আরও পড়ুন →