previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শায়েস্তাগঞ্জ  >  বর্তমান নিবন্ধ

প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে হবিগঞ্জের দরিয়াপুরে গড়ে উঠছে ব্রিকস ইন্ডাষ্ট্রিজ

একের পর এক আইন ভেঙ্গে চলছে সানশাইন ইন্ডাষ্ট্রিজ লিঃ হাইকোর্টের রায় উপেক্ষা করে চলছে নির্মাণ কাজ

 মে ২০, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

তারেক হাবিব॥ বাহির থেকে দেখলে মনে হয় ছোটখাটো কোন শিল্প কারখানা, যার নির্মাণ কাজ শেষ হলে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা বা স্থানীয়দের জন্য বয়ে আসবে নতুন কোন সৌভাগ্য। সৃষ্টি হবে কর্মসংস্থানের, দূর হবে বেকারত্ব। কিন্তু বাহির দেখেই কি ভেতরের রহস্য বুঝা সম্ভব? বলছি, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৯নং নিজামপুর ইউনিয়নের শরীফাবাদে গড়ে ওঠা ‘‘সানসাইন ইন্ডাষ্ট্রিজ লিঃ’’ এর কথা।

বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে লোকালয়ের অভ্যন্তরে শিল্প কারখানা তৈরির বিষয়ে সরকারী নিষেধাজ্ঞা থাকলেও কোন ধরনের নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই গড়ে তোলা হয়েছে এ প্রতিষ্ঠান। নির্মাণাধীন অবস্থায়ই ওই প্রতিষ্ঠানের কাজে ব্যবহৃত কাঁচামালের নির্গত বর্জ্য থেকে ভবিষ্যতে বড় ধরণের পরিবেশ বিপর্যয়ের হুমকিতে পড়বে স্থানীয় বাসিন্দারা। ধারণা করা হচ্ছে ‘‘সানশাইন ব্রিক্স ইন্ডাষ্ট্রিজ’’ এর নির্মাণাধীন কাজে ব্যবহৃত বর্জ্য এতবারপুর, গৌরাঙ্গের চক, দরিয়াপুর, কান্দিগাও, নিজামপুর, শরিফাবাদ ও আমিনপুর হয়ে সুতাং নদীতে নির্গত হবে। আশপাশের শত শত হেক্টর ফসলী জমি হারাবে উর্বরতা, বাড়বে চরম দূর্ভোগ। তবে এতে কিছুই আসে যায় না কোম্পানী কর্তৃপক্ষের। প্রশাসনের নাকের ডগায় হাইকোর্টের রায়কে উপেক্ষা করে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে এ প্রতিষ্ঠান।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ইতোমধ্যে এলাকাবাসী স্বোচ্চার হয়ে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করে ওই প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগও দায়ের করেছেন। নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে প্রশাসনের কর্মকর্তারা বারবার নোটিশ করলেও এতে টনক নড়েনি কর্তৃপক্ষের। জনস্বার্থে কেন বন্ধ করা হবে না তার কারন জানতে চেয়ে রিট আবেদন করেন দরিয়াপুর গ্রামের মৃত ইছুব উল্লার পুত্র আব্দুল মালেক। যার নং- ১৬২৬৫/১৮ইং। পরে ওই আবেদনে বিচারক শেখ হাসান আরিফ ও বিচারক রাজিক আল জলিলের গঠিত ব্রেঞ্চ ‘‘সানশাইন ব্রিক্স ইন্ডাষ্ট্রিজ’’ এর নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ বন্ধ করার নির্দেশ প্রদান করেন।

রিট আবেদন কারী ও দরিয়াপুর গ্রামের আব্দুল মালেক জানান, জনস্বার্থে মহামান্য হাইকোর্টের কাছে আবেদন করলে, কোর্ট দীর্ঘ শুনানীর পর ‘‘সানশাইন ব্রিক্স ইন্ডাষ্ট্রিজ’’ এর নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ বন্ধ করার নির্দেশ প্রদান করেন। এ রায় বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবং জেলা প্রশাসক হবিগঞ্জকে নির্দেশ প্রদান করেন।
৯নং নিজামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ তাজ উদ্দিন জানান, এলাকাবাসীর দাবী যুক্তিসংগত। ইতোমধ্যে তাদের বিরুদ্ধে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন দেয়া হয়েছে। তাদের কোন ধরনের বৈধতা নেই।

হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান জানান, লোকালয়ের অভ্যন্তরে শিল্প কারখানা তৈরি সম্পূর্ণ বেআইনি। ইতোপূর্বে তাদের সতর্ক করা হয়েছে। হাইকোর্টের রায় অমান্য করে আবার নির্মাণ কাজ শুরু করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জের স্থায়ী বাসিন্দা সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. জহিরুল হক শাকিল বলেন, বাংলাদেশের ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০১৩ (যা ২০১৩ সনের ৫৯ নং আইন নামে পরিচিত) অনুযায়ী বিশেষ কোন স্থাপনা, রেলপথ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রভৃতি থেকে কমপক্ষে ১ কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে কোনো ইট প্রস্তুত বা ভাটা নির্মাণ করা যাবে না। অথচ নির্মানাধীন স্থাপনার ১ কিলোমিটারের মধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ২০১৩ সালের আইনের একটি ধারা মোতাবেকই এই ইট প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানটিকে স্থানীয় প্রশাসন বন্ধ করতে পারে। এছাড়া এ আইনের ২(ঝ) ধারাতে বলা আছে “কৃষি জমি” বা এমন কোন জমি যা বৎসরে একাধিকবার কৃষিপণ্য উৎপাদনে ব্যবহৃত হয় সে ধরনের জমিতে ইট প্রস্তুত করা যাবে না। এ প্রতিষ্ঠানটি আইনের এ ধারাটিও লংগন করছে।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপার আজীবন সদস্য অধ্যাপক ড. জহিরুল হক শাকিল আরো বলেন, দেশের আইন লংগন করে শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন বাংলাদেশে একটি স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এতে কেবল পরিবেশ বা প্রতিবেশের ক্ষতি হবে না। এ প্রতিষ্ঠানের পাশেই রয়েছে লোকালয়। এর বর্জ্য ও ধুয়ার মাধ্যমে এলাকার লোকজন শ্বাসকষ্টসহ নানাবিদ ফুসফুসের রোগ ও চর্মরোগে আক্রান্ত হতে পারেন। যুক্তরাজ্যের লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব ওরিয়েন্টাল এন্ড আফ্রিকান স্টাডিজ হতে পরিবেশ বিপর্যয়ের উপর পিএইচডি করা এ অধ্যাপক আরো বলেন, প্রাকৃতিক গ্যাস, সিলিকাবালিসহ অন্যান্য খনিজসম্পদ যেখানে স্থানীয় লোকজনের ভাগ্য সুপ্রসন্ন করার কথা সেখানে হবিগঞ্জে ঘটছে উল্টো। আইনের তোয়াক্কা না করে এভাবে শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলায় স্থানীয় জনগনের জীবন আজ বিভিষীকাময়।

এলাকার প্রাকৃতিক ও খনিজ সম্পদের প্রাচুর্য কীভাবে স্থানীয় জনগনের আপদ হয়ে দাড়াতে পারে হবিগঞ্জের এ এলাকাটি হচ্ছে একটি বাস্তব উদাহরণ। স্থানীয় মানুষের স্বার্থের বাইরে শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন কোনো সভ্য দেশের জন্য কাম্য হতে পারে না। পাশ্চাত্য দেশে এসব পরিবেশ দূষনকারী শিল্পমালিকদের আর্থিক জরিমানার পাশাপাশি জেল হতো। বাংলাদেশেরও আইনেও সে বিধান আছে। কিন্তু এসব আইনের বাস্তবায়ন নেই।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জে আরো ২৮ জনের করোনা শনাক্ত

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!