হবিগঞ্জ শহরের বাসা দখল নিয়ে সদর থানা ওসি মাসুক আলীর এত আগ্রহ কেন?
হবিগঞ্জ পৌর পাঠাগারে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন
মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি ভোগান্তিতে ছাত্র অভিভাবক
মাধবপুরের ছাতিয়াইন বাজারে আইএফআইসি ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন
মাধবপুরে পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে পুলিশের সভা
শহরে মুন জেনারেল হাসপাতালে র‍্যাবের অভিযান : জরিমানা আদায়
লাখাইয়ে পানিতে ডুবে দুই বোনের মর্মান্তিক মৃত্যৃ
কে হচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কান্ডারী ?
মাধবপুরে অটোরিকশার গ্যারেজগুলো যেন মরণ ফাঁদ : বাড়ছে মৃত্যু 
বাঁচতে চায় লিভার সিরোসিস রোগে আক্রান্ত মাহিদা 
আজমিরীগঞ্জ কাশবনে বাড়ছে দর্শনার্থীদের ভীড়
সুজাতপুর রাস্তার বেহাল দশা : দ্রুত সংস্কারের দাবি
চুনারুঘাটে ১১ প্রবাসীদের সংবর্ধনা দিল সিপাহসালার সাইয়েদ নাসির উদ্দিন (রহ:) মিশন
শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী
‘বিশ্ব নদী দিবস’ উপলক্ষে হবিগঞ্জের খোয়াই নদীতে আয়োজিত “নদী পরিভ্রমণ” কর্মসূচি
previous arrow
next arrow
হবিগঞ্জ শহরের বাসা দখল নিয়ে সদর থানা ওসি মাসুক আলীর এত আগ্রহ কেন?
হবিগঞ্জ পৌর পাঠাগারে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন
মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি  ভোগান্তিতে ছাত্র অভিভাবক
মাধবপুরের ছাতিয়াইন বাজারে আইএফআইসি ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন
মাধবপুরে পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে পুলিশের সভা
শহরে মুন জেনারেল হাসপাতালে র‍্যাবের  অভিযান : জরিমানা আদায়
লাখাইয়ে পানিতে ডুবে দুই বোনের মর্মান্তিক মৃত্যৃ
কে হচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কান্ডারী ?
মাধবপুরে অটোরিকশার গ্যারেজগুলো যেন মরণ ফাঁদ  : বাড়ছে মৃত্যু 
বাঁচতে চায় লিভার সিরোসিস রোগে আক্রান্ত মাহিদা 
আজমিরীগঞ্জ কাশবনে বাড়ছে দর্শনার্থীদের ভীড়
সুজাতপুর রাস্তার বেহাল দশা : দ্রুত সংস্কারের দাবি
চুনারুঘাটে ১১ প্রবাসীদের সংবর্ধনা দিল সিপাহসালার সাইয়েদ নাসির উদ্দিন (রহ:) মিশন
শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী
‘বিশ্ব নদী দিবস’ উপলক্ষে হবিগঞ্জের খোয়াই নদীতে আয়োজিত “নদী পরিভ্রমণ” কর্মসূচি
previous arrow
next arrow
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  রাজনীতি  >  বর্তমান নিবন্ধ

জাতীয় শোক দিবস আজ : ১৯৭৫ সালের এইদিনে সপরিবারে হত্যা করা হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে

 আগস্ট ১৫, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

বিশেষ প্রতিনিধি ।। বাঙালি জাতির ইতিহাসের সবচেয়ে নৃশংস হত্যাকান্ডটি সংঘটিত হয়েছিল ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পাখি ডাকা ভোরে । বাংলাদেশের স্থপতি ও রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তাঁর পরিবারের সকল সদস্যকে সেদিন পৈশাচিক উন্মত্ততায় হত্যা করা হয়েছিল। ঘটনাক্রমে বঙ্গবন্ধুর দুই আত্মজা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা দেশের বাইরে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান।

ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের ঐতিহাসিক বাসভবনটিতে অবস্থানরত বঙ্গবন্ধুর পরিবারের যেসব সদস্য হত্যাকাণ্ডের শিকার হন,তাদের মধ্যে রয়েছেন-১) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ২)বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব ৩) জ্যেষ্ঠপুত্র শেখ কামাল ৪) মেজ ছেলে শেখ জামাল ৫) কনিষ্ঠপুত্র শিশু শেখ রাসেল ৬) বঙ্গবন্ধুর ছোট ভাই শেখ আবু নাসের ৭) বড় পুত্রবধূ সুলতানা কামাল খুকু ৮)মেজ পুত্রবধূ পারভীন জামাল রোজী ৯)গৃহ কর্মী লক্ষ্মীর মা ১০) পোটকা ১১) কর্তব্যরত পুলিশ কর্মকর্তা (নাম অজ্ঞাত) এবং ১২) বঙ্গবন্ধুর নিরাপত্তায় নিয়োজিত সেনা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল আহমেদ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এছাড়াও ওই রাতে হত্যা করা হয় বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি এবং তাঁর মন্ত্রিসভার সদস্য আব্দুর রব সেরনিয়াবত,বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও বাকশালের অন্যতম সম্পাদক শেখ ফজলুল হক মণি এবং সন্তান সম্ভবা স্ত্রী বেগম আরজু মণি, সেরনিয়াবতের ছোট মেয়ে বেবি সেরনিয়াবত, ছোট ছেলে আরিফ সেরনিয়াবত,নাতি শিশু সুকান্ত বাবু প্রমুখ ।

পরিকল্পিতভাবে প্রায় একই সময়ে পৃথক তিনটি বাসভবনে একযোগে হামলা চালিয়ে এই হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়। পুর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী খুনিরা ৩টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে ভোর ৫টার মধ্যেই তিন টার্গেট ঘেরাও করে ফেলে। আত্মস্বীকৃত খুনি মেজর ফারুক যখন রক্ষীবাহিনীকে ঠেকাতে ব্যস্ত,ততক্ষণে সব টার্গেটে বিভিন্ন গ্রুপের অপারেশন শুরু হয়ে যায়। ১২টি ট্রাক ও কয়েকটি জিপ করে আক্রমণকারী ল্যান্সার ও আর্টিলারির প্রায় ৫০০জন রাইফেলস ট্রুপস আশপাশ ঘিরে ফেলে। খুনিদের প্রধান টার্গেটই ছিল ৩২ নম্বর রোডের বঙ্গবন্ধুর বাড়ি ।

খুনি মেজর মহিউদ্দিন,মেজর হুদা, মেজর পাশা, মেজর নূরের নেতৃত্বে আউটার ও ইনার গ্রুপ দুটি বৃত্তে ঘেরাও করে ফেলে ওই বাড়ি । সেদিন হত্যাকান্ডর শুরু হয় শেখ কামালকে হত্যার মধ্য দিয়ে। প্রথম দফা আক্রমণের পর রাষ্ট্রপতির সহায়তায় সেনাবাহিনী এসেছে আশা করে শেখ কামাল সেনাদলকে ভেতরে ডাকার পরই খুনি হুদা তাকে গুলি করে । শেখ কামাল নিজের পরিচয় দিলে তাঁর উপর ব্রাশ ফায়ার করা হয় ।

বঙ্গবন্ধু যখন গোলাগুলির মধ্যে আক্রান্ত ছিলেন, তখন তিনি বাসা থেকে বিভিন্ন দিকে ফোন করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তিনি পুলিশ কন্ট্রোল রুমে যোগাযোগ করতে চেষ্টা করছিলেন,কিন্তু কেউ ফোন ধরছিল না । তিনি তাঁর মিলিটারি সেক্রেটারি কর্নেল জামিলকে ফোনে পেয়েছিলেন। তাকে বলেন,‘জামিল তুমি তাড়াতাড়ি আসো ।আর্মির লোক আমার বাসা আক্রমণ করেছে । শফিউল্লাহকে ফোর্স পাঠাতে বলো।’ জামিল ফোন পেয়ে তৎক্ষণাৎ ঘটনাস্থলে তাঁর প্রাইভেট লাল কার হাঁকিয়ে ছুটে যান, ৩২ নম্বর রোডে, কিন্তু সৈন্যদের গুলিতে বাসার কাছেই তিনি নিহত হন । সেনাপ্রধান জেনারেল শফিউল্লাহকে বঙ্গবন্ধু ফোনে বলেন, ‘শফিউল্লাহ,আমার বাসা তোমার ফোর্স অ্যাটাক করেছে। কামালকে হয়তো মেরেই ফেলেছে। তুমি তাড়াতাড়ি ফোর্স পাঠাও ।’ শফিউল্লাহ জবাবে বললেন  স্যার, ক্যান ইউ গেট আউট, আই আ্যাম ডুয়িং সামথিং মেজর মহিউদ্দিন তাঁর ল্যান্সারের ফোর্স নিয়ে গুলি করতে করতে বঙ্গবন্ধুর বাসভবনের দোতলার দিকে যায়। খুনি হুদা এবং নূর যখন সিড়ির চৌকির ওপরে, তখন আগেই দুতলায় যাওয়া মেজর মহিউদ্দিন ও তাঁর ফোর্স বঙ্গবন্ধুকে নিচের দিকে নামিয়ে আনছিল।

খুনি মেজর নূর ইংরেজিতে কিছু বললে খুনি মেজর মহিউদ্দিন এবং তার ফোর্স একপাশে চলে যায় । এই সময় বঙ্গবন্ধু বলেন, তোরা কি চাস ? সঙ্গে সঙ্গে খুনি নূর এবং হুদা স্টেনগান দিয়ে বঙ্গবন্ধুকে গুলি করে । সিড়ির ওপর লুটিয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধু, সেসময়ই তিনি শাহাদাৎ বরণ করেন । শুধু জাতির জনক নন, সেদিন আসলে পুরো জাতিই লুটিয়ে পড়েছিল ।

বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডে খুব্ধ,ব্যথিত,মর্মাহত হবার নুযোগ আছে কিন্তু বিস্মিত হবার কিছুই নেই বরং চরম আন্তর্জাতিক ও দেশী ষড়যন্ত্রের মধ্যেও যে সাড়ে তিন বছর তিনি বেঁচেছিলেন তাই আশ্চর্যজনক । ভারতের স্বাধীনতার মাস কয়েক পরে প্রাণ হারান মহাত্মা গান্ধী আর স্বাধীনতার আগেই বার্মার আওংসান পাকিস্তানের প্রথম প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলীও মারা যান আততায়ির গুলিতে , শ্রীলংকায় বন্দরনায়েক । পার্থক্য শুধু বঙ্গবন্ধু নিহত হন সপরিবারে । রাশিয়ার আশির্বাদপুস্ট সরকার প্রধানের বিকল্প নেতা দাঁড় করানো মার্কিন কৌশল কিন্তু জীবদ্দশায় বঙ্গবন্ধুর স্থান নেবে এমন নেতা কই ? তাই বাংলাদেশেও ঘটল চিলির ইতিহাসের পুনারাবৃত্তি ।

ইতোমধ্যে হত্যা মিশনের গ্রুপ কমান্ডার মেজর ডালিম তার অপারেশন শেষ করে রেডিও সেন্টারে এসে ঘোষণা দিলেন, ‘আমি মেজর ডালিম বলছি। স্বৈরাচারি শেখ মুজিবকে হত্যা করা হয়েছে। জননেতা খন্দকার মোশতাক আহমদের নেতৃত্বে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ক্ষমতা দখল করেছে। দেশে সামরিক আইন জারি করা হয়েছে এবং সারাদেশে কারফিউ জারি করা হয়েছে। বাংলাদেশ এখন থেকে ইসলামী প্রজাতন্ত্র।’এর মধ্যেই তৈরি হয়ে যায় খুনি খন্দকার মোশতাকের ভাষণ । তাহেরউদ্দিন ঠাকুর নিজেই ঐ ভাষণ লিখে দেন । সকাল আনুমানিক ৮টার দিকে খুনি মোশতাকের কন্ঠে ভাষণটি রেকর্ড করে প্রচার করা হয়। সকাল ৯টার দিকে সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল শফিউল্লাহ, নৌবাহিনী প্রধানি রিয়ার এডমিরাল এম এইচ খান, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল এ কে খন্দকার,বিডিআর প্রধান মেজর জেনারেল খলিলুর রহমান, পুলিশ প্রধান নুরুল ইসলাম এবং রক্ষীবাহিনীর ভারপ্রাপ্ত প্রধান মেজর হাসান সেখানে এসে রেডিও ঘোষণার মাধ্যমে খুনি মোশতাকের প্রতি আনুগত্য ঘোষণা করেন ।

পরে বঙ্গভবনে শপথ অনুষ্ঠানেও তারা সকলেই যোগ দেন । রেডিও স্টেশনে সেসময় মেজর জেনারেল জিয়া ছাড়াও কর্নেল (অবঃ) তাহের এবং মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল (অবঃ) ওসমানী উপস্থিত ছিলেন । দুপুর বেলা জুম্মার নামাজের আগেই খুনি মোশতাক বিরাট মিছিল সহকারে বঙ্গভবনে যান। সবাই বঙ্গভবনে একত্রে জুম্মার নামাজ আদায় করেন ।

এরপর তিন বাহিনী প্রধান, বিডিআর প্রধান এবং অন্যান্য সিভিল গণ্যমান্য ব্যক্তবর্গের সামনে খুনি মোশতাক শপথ গ্রহণ করেন । উপস্থিত সবাই ছুটে গিয়ে তাকে অভিনন্দন জানান । এরপর খুনি মোশতাক তার মন্ত্রীসভার সদস্যদের শপথ গ্রহণ করান । প্রায় সবাই পুরাতন মাল । পুরাতন আওয়ামী লীগ/বাকশালের মন্ত্রীসভার কয়েকজন বাদে সবাইকে নিয়েই নতুন মন্ত্রীসভা গঠন করলেন খুনি মোশতাক ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের লাশ তখনো তার বাসভবনের সিড়িতেই পড়ে রইল , তার কথা সবাই ভুলেই গেছে । বঙ্গভবনে চলছে আনন্দ উল্লাস,খানাপিনা !

২) বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়নি দীর্ঘদিন। আর এই দীর্ঘ বছরগুলিতে জিয়ার সামরিক ও বিএনপির সরকার , এরশাদের সামরিক ও জাতীয় পার্টির সরকার এবং বেগম খালেদা জিয়ার আমলের বিএনপি সরকার বাংলাদেশের ইতিহাসের এই কলঙ্কজনক হত্যাকান্ডের বিচার হতে দেয়নি; বরং এ সরকারগুলি বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের বহুভাবে সহযোগিতা করেছে ।

উল্লেখ্য, ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর খুনি মোশতাক বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে । হত্যাকাণ্ডের ২১ বছর তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রিসিপশনিস্ট কাম রেসিডেন্ট পিএ আ ফ ম মুহিতুল ইসলাম ধানমন্ডি থানায় ২৪জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশটি বাতিল করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের পথ খুলে দেয়।

১৯৯৭ সালের ১৫ জানুয়ারি মামলার তদন্ত শেষে পুলিশ ২৪ জন আসামির বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করে। ১৯৯৭ সালের ১২ মার্চ চার আসামি মৃত্যুবরণ করায় ২০ জনের বিরুদ্ধে ঢাকার জজ আদালতে বিচার শুরু হয় । একই আদালত ১৯৯৭ সালের ৭ এপ্রিল ২০ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ।

১৯৯৮ সালের ৮ নভেম্বর ১৫০ কার্যদিবস শুনানির পর ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ কাজী গোলাম রসুল ২০ আসামির মধ্যে ১৫ জনের মৃত্যুদ-াদেশ দেন । ওই রায়ের পর এর বিরুদ্ধে কারাবন্দি চার আসামি মেজর হুদা,লে. কর্নেল ফারুক,লে. কর্নেল শাহরিয়ার ও লে. কর্নেল মুহিউদ্দিন আর্টিলারি হাইকোর্টে আপিল করেন।

২০০০ সালের ২৮জুন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিরা কয়েক দফায় বিব্রত হওয়ার পর ডেথ রেফারেন্সের শুনানি শুরু হয়। ২০০০ সালের ১৪ ডিসেম্বর ২মাস ৩দিন শুনানি শেষে হাইকোর্ট এ মামলায় বিভক্ত রায় প্রদান করেন । ২০০১ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের তৃতীয় বেঞ্চের বিচারপতি মোহাম্মদ ফজলুল করিমের আদালতে মামলার শুনানি শুরু হয় । ২০০১ সালের ৩০ এপ্রিল হাইকোর্টের তৃতীয় বেঞ্চ ১২ আসামির ফাঁসি বহাল রেখে ৩ জনকে খালাস দেন ।

ওই বছরই কারাবন্দি চার আসামি আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল দায়ের করেন । ২০০৭ সালের ১৩ মার্চ মৃত্যুদ-প্রাপ্ত অপর আসামি মহিউদ্দিন ল্যান্সারকে মার্কিন যুক্ত্ররাষ্ট্রে গ্রেফতার করা হয় এবং ১৮ জুন তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয় । ২০০৭ সালের ৭ আগস্ট বিচারপতি মোঃ তাফাজ্জল ইসলাম, বিচারপতি জয়নুল আবেদীন এবং বিচারপতি মোঃ হাসান আমিনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের বেঞ্চ বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার লিভ টু আপিলের ওপর শুনানি গ্রহণ শুরু করেন । ২০০৯ সালের ৪ অক্টোবর মামলার নিষ্পত্তিতে শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতিকে নিয়ে একটি বেঞ্চ গঠন করা হয় ।

১৯ নভেম্বর ২০০৯ বৃহস্পতিবার । ঘড়ির কাঁটার তখন বেলা ১১টা ৪৬ মিনিট । বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার চূড়ান্ত রায় ঘোষণা শুরু করলেন সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি মোঃ তাফাজ্জাল ইসলাম । পাঁচ আসামির আপিল খারিজ, ফাঁসির আদেশ বহাল-এই রায়ের মাধ্যমে শেষ হলো ১৩ বছর ধরে চলা বিচার প্রক্রিয়া ।

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত ১২ আসামির মধ্যে কারাবন্দি ৫ আসামি হলেন-খুনি ফারুক, খুনি শাহরিয়ার, খুনি মহিউদ্দিন (আর্টিলারি),খুনি হুদা ও খুনি মহিউদ্দিন(ল্যান্সার) । পলাতক ৬ আসামি হলেন খুনি রশীদ, খুনি ডালিম,খুনি রাশেদ চৌধুরী, খুনি নূর, খুনি মাজেদ (২০২০ সালের ১২ এপ্রিল ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তার মৃত্যুদ- কার্যকর করা হয়) এবং খুনি মোসলেমউদ্দিন । বাকি একজন খুনি আজিজ পাশা মারা গেছেন । ২৭ জানুয়ারি ২০১০। সুপ্রিমকোর্টের চার বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত বিশেষ বেঞ্চ বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের ধৃত আসামিদের রিভিউ পিটিশন খারিজ করে দেয় । ইতোমধ্যে রাষ্ট্রপতিও তাদের প্রাণ ভিক্ষার আবেদন নাকচ করে দেন ।

এরপর ২৭ জানুয়ারি রাত ১২টার পর পাঁচ আসামিকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদ-াদেশ কার্যকর করা হয় । অবশিষ্ট খুনিরা ধরাছোয়ার বাইরে থাকায় মামলার রায়ের পূর্ণ বাস্তবায়ন এখনো অসমাপ্ত রয়ে গেছে বটে ; তবে ধৃত আসামিদের ফাঁসি কার্যকর করার ভেতর দিয়ে বহু প্রত্যাশিত একটি অধ্যায়ের অবসান ঘটে ।

[রেফারেন্সঃ বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার ঐতিহাসিক রায় বাঙালির কলঙ্কমোচন,নূহ উল আলম লেনিন;বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড সামরিক ও গোয়েন্দা ব্যর্থতার প্রামাণ্য দলিল, জাহিদ নেওয়াজ খান; তিনটি সেনা অভ্যুত্থান ও কিছু না বলা কথা, লেঃ কর্নেল (অবঃ) এম এ হামিদ পিএসসি; স্বাধীনতা যুদ্ধের অপর নায়কেরা,নুরুজ্জামান মানিক।]

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • Sushanta.D.Gupta-Facebook

    Facebook Pagelike Widget
  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

শহরে মুন জেনারেল হাসপাতালে র‍্যাবের অভিযান : জরিমানা আদায়

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!