হবিগঞ্জ শহরের বাসা দখল নিয়ে সদর থানা ওসি মাসুক আলীর এত আগ্রহ কেন?
হবিগঞ্জ পৌর পাঠাগারে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন
মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি ভোগান্তিতে ছাত্র অভিভাবক
মাধবপুরের ছাতিয়াইন বাজারে আইএফআইসি ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন
মাধবপুরে পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে পুলিশের সভা
শহরে মুন জেনারেল হাসপাতালে র‍্যাবের অভিযান : জরিমানা আদায়
লাখাইয়ে পানিতে ডুবে দুই বোনের মর্মান্তিক মৃত্যৃ
কে হচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কান্ডারী ?
মাধবপুরে অটোরিকশার গ্যারেজগুলো যেন মরণ ফাঁদ : বাড়ছে মৃত্যু 
বাঁচতে চায় লিভার সিরোসিস রোগে আক্রান্ত মাহিদা 
আজমিরীগঞ্জ কাশবনে বাড়ছে দর্শনার্থীদের ভীড়
সুজাতপুর রাস্তার বেহাল দশা : দ্রুত সংস্কারের দাবি
চুনারুঘাটে ১১ প্রবাসীদের সংবর্ধনা দিল সিপাহসালার সাইয়েদ নাসির উদ্দিন (রহ:) মিশন
শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী
‘বিশ্ব নদী দিবস’ উপলক্ষে হবিগঞ্জের খোয়াই নদীতে আয়োজিত “নদী পরিভ্রমণ” কর্মসূচি
previous arrow
next arrow
হবিগঞ্জ শহরের বাসা দখল নিয়ে সদর থানা ওসি মাসুক আলীর এত আগ্রহ কেন?
হবিগঞ্জ পৌর পাঠাগারে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন
মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি  ভোগান্তিতে ছাত্র অভিভাবক
মাধবপুরের ছাতিয়াইন বাজারে আইএফআইসি ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন
মাধবপুরে পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে পুলিশের সভা
শহরে মুন জেনারেল হাসপাতালে র‍্যাবের  অভিযান : জরিমানা আদায়
লাখাইয়ে পানিতে ডুবে দুই বোনের মর্মান্তিক মৃত্যৃ
কে হচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কান্ডারী ?
মাধবপুরে অটোরিকশার গ্যারেজগুলো যেন মরণ ফাঁদ  : বাড়ছে মৃত্যু 
বাঁচতে চায় লিভার সিরোসিস রোগে আক্রান্ত মাহিদা 
আজমিরীগঞ্জ কাশবনে বাড়ছে দর্শনার্থীদের ভীড়
সুজাতপুর রাস্তার বেহাল দশা : দ্রুত সংস্কারের দাবি
চুনারুঘাটে ১১ প্রবাসীদের সংবর্ধনা দিল সিপাহসালার সাইয়েদ নাসির উদ্দিন (রহ:) মিশন
শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী
‘বিশ্ব নদী দিবস’ উপলক্ষে হবিগঞ্জের খোয়াই নদীতে আয়োজিত “নদী পরিভ্রমণ” কর্মসূচি
previous arrow
next arrow
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  মতামত  >  বর্তমান নিবন্ধ

১৫ আগস্ট ১৯৭৫ এর ক্যু : সামরিক বাহিনীর সিনিয়র অফিসারদের দায় কতটুকু?

 আগস্ট ৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

শরীফ আর রাফি :  আগস্ট মাস এলেই পত্রিকা, টিভি মিডিয়া বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ১৫ আগস্টের নির্মম হত্যাকা-ের কারণ ও ফলাফল নিয়ে অনেক ইতিহাস চর্চা হয়। বলা বাহুল্য সেসব ইতিহাস চর্চা অনেক ক্ষেত্রেই সত্য নির্ভরতা সামান্য, বাকীটা আবেগ আর রাজনৈতিক পক্ষ-বিপক্ষ দুষিত। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে সেই হত্যাকাণ্ডের সাথে প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে কে বা কারা জড়িত ছিলেন, তা মূল্যায়নে সেনা অফিসাররা নিরপেক্ষ বা পেশাদার আচরণ করেছিলেন কিনা, সেটাকে বিবেচনায় না এনে, কে প্রো কিংবা এন্টি আওয়ামী লীগ বা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের, না বিপক্ষের সে আলোকে আলোচনা করা হয়। অথচ যে কোন নিয়মিত বাহিনীতে পেশাদারিত্বই এক্তিয়ার বহির্ভূত কার্যক্রম যেমনঃ ক্যু কিংবা ক্ষমতা দখলের প্রচেষ্টাকে নিরুৎসাহিত করে।

আগস্ট হত্যাকান্ডের জন্য দায়ী প্রথম পক্ষ ফারুক-রশিদ-ডালিমরা যেহেতু জুনিয়র অফিসার ছিলো, তাই ধারনা করা হয় তাদের মাথার উপর সিনিয়র কারো হাত ছিলো। সহজ সমীকরণ মেলানোর স্বার্থে সেনা-প্রধানের পদ বঞ্চিত জিয়াকেই সেই সিনিয়র হিসাবে বিবেচনা করা হয়। কারণ, জিয়াই ছিলেন ১৫ আগস্ট হত্যাকান্ডের প্রধান বেনিফিসিয়ারি। এর সাথে যুক্ত হয়েছে রাজনৈতিক কারণও। জিয়া বিএনপি নামের রাজনৈতিক দলের প্রতিষ্ঠাতাও।

 

 

 

 

 

 

অভ্যুত্থানের তাৎক্ষনিক বেনিফিসিয়ারি খন্দকার মোশতাকের প্রতিও সমালোচনার স্থায়িত্ব বেশিক্ষণ থাকে না কারণ মোশতাক তাঁর নিজ দলে এমন একটা ষড়যন্ত্র সফল করার মত চৌকস ব্যক্তি বলে বিবেচিত ছিলেন না। কিংবামোশতাক নিজেও মূলত আওয়ামী লীগার ছিলেন, এটা স্বীকারে দলীয় ভাবে আওয়ামী লীগের অস্বস্তি থাকতে পারেই। তাই সেই হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে সাধারণভাবে প্রচলিত ইতিহাসে সামরিক বাহিনীর সিনিয়র অফিসারদের মধ্যে একমাত্র জিয়াউর রহমানের সংশ্লিষ্টতা নিয়েই আলোচনা বেশী ঘনীভূত হয়।

সেই আলোচনায় ধারনা দেয়া হয় যে উনিই এর মাস্টারমাইন্ড, আগস্ট হত্যাকাণ্ডের নেপথ্য নায়ক হচ্ছেন তিনি। আসলে কি তাই? নাকি প্রচলিত এই ন্যারেটিভ আসলে সত্য ইতিহাসকে তুলে ধরার গড়িমসি কিংবা রাজনৈতিক বিবেচনায় অন্য কাউকে বাঁচিয়ে দেয়ার অপচেষ্টা? হত্যাকা-ের পরবর্তী সময়ে কর্নেল ফারুক-রশিদ বলেছেন, তাঁরা সেনাবাহিনীর প্রায় সব সিনিয়র অফিসারদের সাথেই আলাদা আলাদা ভাবে সমঝোতায় এসেছিলেন (১)। প্রচলিত ন্যারেটিভের বিপরীতে ইদানীং প্রকাশিত হচ্ছে কিছু আত্মজীবনী কিংবা বিশ্লেষনণমুলক ইতিহাস।

ধীরে ধীরে উন্মোচিত হচ্ছে অনেক সত্য, যেগুলো আগে ছিলো অজানা। বেরিয়ে আসছে অনেকের সংশ্লিষ্টতা। নতুন সেইসব তথ্যের আলোকেই ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের ক্যু এবং হত্যাকা-তে সেনাবাহিনীর সিনিয়র অফিসারদের সংশ্লিষ্টতা নিয়ে এখানে আলোচনা করা হয়েছে। প্রথমেই দেখা যাক, ১৫ আগস্টের মুল কুশীলব ফারুক রহমানের ঠিকুজি।

ফারুক এক অস্থিরমতি অফিসার, যার মুল শক্তির জায়গা ছিলো তাঁর মামা ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশাররফ। তৎকালীন সরকারের অনেক কর্মকা- নিয়েই ফারুককে অখুশি দেখা যেতো। প্রকাশ্যেই তিনি সরকারের অনেক সমালোচনা করতো। তবে, এ নিয়ে ফারুককে কেউ ঘাঁটাতো না খালেদ মোশাররফের সাথে তার সম্পর্কের কারণে (১)।

১৯৭৫ এর মার্চে মহড়ার জন্য ৬টি ট্যাঙ্ক নিয়ে চট্টগ্রামের যাবার আগে ফারুক একটা অভ্যুত্থান ঘটিয়ে ফেলার পরিকল্পনা করেছিলো। সঙ্গী হিসেবে পাবার জন্য অনুরোধ জানিয়েছিল মেজর নাসির উদ্দিনকে (২)। মেজর নাসির এই বিষয়টা অবহিত করেছিলেন সিজিএস ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশাররফকে। খালেদ এটিকে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানোর বদলে ধামাচাপা দিয়েছিলেন। মনে রাখতে হবে খালেদ মোশাররফ তখন সিজিএস, শফিউল্লাহ’র পরে আর্মি চীফ হবার প্রার্থী হিসেবে সবচেয়ে এগিয়ে আছেন।

তিনি তাঁর অধস্তন একজন কর্মকর্তার এমন চরম শাস্তিযোগ্য বিদ্রোহী আচরণকে ঊর্ধ্বতন জায়গায় রিপোর্ট করা তো দূরের কথা, নিজেও কোনো ব্যবস্থা নেননি। ফারুককে শান্ত করার বা নিষ্ক্রিয় করার কোনো ব্যবস্থা তিনি নেন নি। ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট এর রক্তাক্ত অভ্যুত্থানই তার প্রমাণ। সেদিন ফারুককে বিধি মোতাবেক শাস্তির আওতায় নিয়ে আসলে কি ১৫ আগস্টের নির্মম হত্যাকা- ঘটার সুযোগ কমে যেতো না বা বন্ধ করা সম্ভব হতো না? এই ফারুকই আবার এন্থনি মাসকারেনহাসকে বলেছিলো, তৎকালীন সরকারকে হটাতে কিছু একটা করার ইচ্ছা নিয়ে সিনিয়র অফিসারদের মতামত জানতে ৭৫ এর ২০ মার্চ ডেপুটি চীফ জিয়ার কাছে গিয়েছিলো (৩, ৪)।

এটাই মুলতঃ জিয়ার বিরুদ্ধে ১৫ আগস্টের ক্যু’তে জড়িত থাকার মুল প্রমাণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। তবে, ডেপুটি চীফ জিয়া অনেক আগেই আর্মি চীফ হবার দৌড় থেকে ছিটকে পড়েছিলেন, এবং কার্যত তাকে সেনাবাহিনীর সকল গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ও দায়িত্ব থেকে আলাদা করে ফেলা হয়েছিলো (১,৮)। সেনাবাহিনীতে জিয়ার জনপ্রিয়তা ছিলো, কিন্তু ক্ষমতা ছিলো না।

এটা প্রমাণ হয় মেজর হাফিজ উদ্দীনের “সৈনিকের জীবন গৌরবের একাত্তর রক্তাক্ত পঁচাত্তর” বইয়ে বর্ণিত একটি ঘটনায়। ডেপুটি চীফ জিয়া তার পিএস মেজর হাফিজকে ব্রিগেড মেজর (বিএম) হিসেবে পোস্টিং এর জন্য সুপারিশ করলেও লে. কর্নেল নাসিম সেটার কোনো গুরুত্ব দেননি। বরং মেজর হাফিজকে বদলি করা হয় অন্যত্র। যদিও পরবর্তীতে কর্নেল শাফায়াত জামিলের সুনজরে থাকার কারণে মেজর হাফিজ ৪৬ ব্রিগেডের বিএম হিসেবে নিয়োগ পান (৮)।

মার্চ মাসের বিশ তারিখে ফারুক জিয়ার সাথে সরকার পরিবর্তন নিয়ে পরামর্শ করতে গেলে জিয়া তাকে বলে দেন সিনিয়র হিসেবে এ ধরনের কিছুর মধ্যে তিনি জড়াতে চাননা। জুনিয়ররা কিছু করতে চাইলে সেটা তাদের নিজেদের করা উচিত (৩)। জিয়া এর পর তার এডিসিকে বলে দিয়েছিলেন ফারুককে যেন আর সাক্ষাৎকারের সুযোগ দেয়া না হয়।

যদিও বলা হয় ডেপুটি চীফ হয়ে জিয়া এটা জানার পরও ফারুকের নামে অভিযোগ করলেন না কেন? খালেদের বলে বলীয়ান ফারুকের বিরুদ্ধে কিছু বলার সুযোগ কার্যত ক্ষমতাহীন জিয়ার কতটুকু ছিলো তা সহজেই অনুধাবন করা যায়। জিয়া অভিযোগ করলেও খালেদের কারণে ফারুকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক কোনো ব্যবস্থা নেয়ার সম্ভাবনা কমই ছিলো। এ কারণে ফারুকের উপর জিয়ার আস্থা না থাকারই কথা। জিয়া প্রসঙ্গে এ অবতারণা জিয়াকে নির্দোষ প্রমাণের জন্য বলা হচ্ছে না, বরং দেখানোর চেষ্টা করা হলো যে সরকারের বিরুদ্ধে ফারুকের কিছু করার ইচ্ছা জিয়ার আগেই খালেদ জানতেন।

ফারুককে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসা জিয়ার চেয়ে খালেদের জন্যই বেশি সহজ ছিলো। কিন্তু, তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি। একটা কিছু ঘটতে যাচ্ছে সেই সম্বন্ধে খালেদ মোশাররফ আগে থেকেই জানতেন। সঠিক দিনক্ষণটা হয়তো জানতেন না তিনি। উপরন্তু ১৫ আগস্ট দুপুরে ফারুকের জন্য চীফ শফিউল্লার নির্দেশ ছাড়াই ট্যাংকের গোলাবারুদ সরবরাহের ব্যবস্থা করার মাধ্যমে ফারুকের সাথে খালেদের সংশ্লিষ্টতা কিংবা ফারুকের কাজের প্রতি খালেদের সমর্থন দিবালোকের মতোই স্পষ্ট হয় (১) ।

ফারুক-রশিদ প্রকাশ্যেই বলেছিলো যে সিনিয়র অফিসারদের সাথে তাদের আলাদা আলাদা ভাবে সমঝোতা হয়েছিলো। তবে জিয়ার প্রতি যে ফারুকের মনোভাব নেতিবাচক ছিলো তার প্রমাণ পরবর্তীতে পাওয়া যায় জিয়ার শাসনামলে বগুড়ায় গিয়ে বেঙ্গল ল্যান্সারদের সাথে নিয়ে বিদ্রোহ করার ঘটনায় (১)। ১৫ আগস্টের ঘটনায় জিয়ার সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ হিসেবে আরেকটা ঘটনার উল্লেখ করা হয়। তা হলো সেদিন সকালে শাফায়াত জামিলের কাছ থেকে প্রেসিডেন্টকে হত্যার খবর পাবার পর শেভ করতে থাকা অবস্থায় তিনি বলেছেন, So what, President is dead? Vice president is there. Get your troops ready. Uphold the constitution (৩)। কেউ বলেন উনি স্বাভাবিক ছিলেন, কেউ বলেন উনি হতচকিত হয়েছিলেন।

তারপরও এমন বাক্য উচ্চারণের কারণেই সন্দেহটা দানা বাঁধে। তবে সত্যিটা হলো শাফায়াত যাবার আগেই আর্মি চীফ তার ডেপুটি চীফকে ফোন করে প্রেসিডেন্টের নিহত হবার খবর দিয়েছিলেন এবং সেনা সদরে যেতে বলেছিলেন (৪)। জিয়ার অধীনে কোনো ট্রুপস ছিলো না। ফলে শাফায়াতকেই তিনি এ নির্দেশ বা অনুরোধ করেন।

এতে বোঝা যায় ফারুকের দুরভিসন্ধি জানলেও ফারুক-রশিদের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে কমান্ড ও ক্ষমতাহীন জিয়ার কিছু করার সুযোগ ছিলো না। সুযোগ থাকলে করতেন কিনা, সেটা অবশ্য তর্কযোগ্য! কিছু করার সুযোগ না থাকায় তিনি নীরব দর্শক হয়ে থাকেন। খালেদের সংশ্লিষ্টতার আরেকটি প্রমাণ পাওয়া যায় ১৫ আগস্ট সকালে তাঁর কর্মতৎপরতায়।

সেদিন সকালে সেনাপ্রধানের নির্দেশে শাফায়াত জামিলের ৪৬ ব্রিগেড গিয়ে এর নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেন খালেদ। কিন্তু একজন সৈন্যও ফারুক- রশিদের বিরুদ্ধে নড়েনি। তখন ফারুক-রশিদের বিরুদ্ধে ৪৬ ব্রিগেডই ছিলো একমাত্র ভরসা। খালেদের এই পদক্ষেপ ৪৬ ব্রিগেডকে ফারুক-রশিদের ইউনিটের বিরুদ্ধে ব্যবহারের যে কোনো চেষ্টা নস্যাৎ করে ক্যু-পরবর্তী পরিস্থিতি তাদের অনুকূলে রাখার সুপরিকল্পিত কৌশল বলে সহজেই ধরে নেয়া যায়। যদিও সেনাপ্রধানের নির্দেশে ফোর্স মুভ করানোর জন্য খালেদ ৪৬ ব্রিগেডে গিয়ে নাকি আটকে গিয়েছিলেন, তাকে নাকি ওরা (শাফায়াত) যেতেও দিচ্ছিলো না কিংবা কিছু করতেও দিচ্ছিলো না (১)।

১৫ আগস্ট ক্যু পরবর্তী পরিস্থিতি সামাল দেয়ার জন্য রক্ষী বাহিনীকে নিষ্ক্রিয় করে ফেলাটাও গুরুত্বপূর্ণ একটি ধাপ ছিলো। ফারুক এর ৫০ ভাগ কাজ এগিয়ে নেয় ভোরেই গোলাবিহীন ট্যাংকের ভয় দেখিয়ে, আর বাকীটা করেন খালেদ মোশাররফ। রক্ষী বাহিনীর দুজন লিডার আনোয়ার উল আলম ও সারোয়ার হোসেনকে একটা বাক্য দিয়ে নিশ্চুপ করিয়ে দেন তিনি।

সেটা হচ্ছে, “I know you are patriots, but we had to do it because we do not want this country to be a kingdom!” এমনকি রক্ষী বাহিনীকে মোশতাক সরকারের প্রতি আনুগত্য স্বীকার করার জন্য জোরাজুরিও করেন খালেদ মোশাররফ (৫,৬)। ফারুক ও রশিদকে কেন্দ্র করে আরও দুটি ঘটনা তাদের ক্যু প্রচেষ্টার সাথে খালেদের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ হিসেবে বিবেচনা করা যায়।

একঃ মেজর নাসির উদ্দিনের হাতে ট্যাংক ইউনিট গঠিত হলেও, কিছুদিন পর ফারুককে এনে তার কমান্ডিং অফিসার বানানো হয়। পরে তাঁকে এই ইউনিট থেকেই একেবারে সরিয়ে দেয়া হয়। ১ম বেঙ্গল ল্যান্সার নামের এই ট্যাংক ইউনিট খালেদের অধীনে ছিলো (২)। সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা বা ডিএমআই-ও ছিলো তারই অধীন।

দুইঃ ৭৫ এর মার্চে ভারত থেকে গানারি কোর্স করে ফিরে আসা রশিদকে যশোরে বদলি করা হলেও ফারুকের প্ররোচনায় খালেদ সেই বদলি ঠেকিয়ে টু ফিল্ড আর্টিলারিতে রশিদকে নিয়ে আসেন (১)। এ প্রসঙ্গে মেলাঘরের কিংবদন্তি খালেদ মোশাররফ ভক্তরা কাউন্টার দেন ৩রা নভেম্বর এর পালটা ক্যুকে উদাহরণ হিসেবে দেখিয়ে।

তাঁরা বলতে চান চেইন অব কমান্ড ফিরিয়া আনা তথা ১৫ আগস্টের ঘটনার প্রতিবাদে খালেদ ৩রা নভেম্বর ক্যু করেছেন (২,৯)। তবে সত্য হলো, এই ক্যু ছিলো খালেদের সেনাপ্রধান হবার ক্যু। খালেদ মোশাররফ নিজেই চেইন অব কমান্ড ভেঙ্গে মোশতাকের কাছে দুই দিন ধরে ধর্না দিয়েছেন তাঁকে সেনাপ্রধান করার জন্য (১, ৪, ১০)।

১৫ আগস্ট খালেদের জন্য সেনাপ্রধান হবার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছিলো। এর কিছুদিন আগেই শফিউল্লাহকে দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য সেনাপ্রধান করা হয়েছিলো। সেনাপ্রধান হবার জন্য মুখিয়ে থাকা ব্রিগেডিয়ার খালেদের জন্য তা ছিলো চরম হতাশাজনক। ইন্টারেস্টিং ব্যাপার হলো জিয়া সেনাপ্রধান হবার দৌড়ে পিছিয়ে গেলেও খালেদের ব্যাচ ম্যাট মীর শওকত কিন্তু পাসিং আউটের মেরিটে খালেদের সিনিয়র ছিলেন (৮)। কাজেই খালেদের জন্য ১৫ আগস্ট ছিলো স্বপ্ন পূরণের জন্য একটি সুযোগ। মীর শওকত তখনো যশোরে।

তিনিও ব্রিগেডিয়ার, কিভাবে প্রমোশন আদায় করতে হয় সেটাও তার জানা আছে (৮)। অন্যদিকে ৩ নভেম্বরের ক্যু’তে খালেদের সিপাহসালার কর্নেল শাফায়াত জামিলের ব্যাপারে ১৫ আগস্টের ক্যু’র সাথে সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ হিসেবে দুটি ঘটনার কথা উল্লেখ করা হয়। প্রথমতঃ ১৫ আগস্ট ভোরে ৩২ নম্বর বাড়ি আক্রান্ত হবার পর রাষ্ট্রপতি যখন সেনাপ্রধান শফিউল্লাহর সাহায্য চান, তখন শফিউল্লাহ ফোন করেন শাফায়াত জামিলকে তাঁর ৪৬ ব্রিগেড নিয়ে প্রতিহত করার জন্য।

যদিও শাফায়াতের মতে শফিউল্লাহ বিড়বিড় করেছেন, স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। শফিউল্লাহ পরবর্তীতে শাফায়াতকে ফোন করে পাননি। উনি নাকি টেলিফোনের রিসিভার উঠিয়ে রেখেছিলেন (১, ১০)। দ্বিতীয়ত: ১৫ আগস্ট ভোর রাতে শাফায়াত জামিলের বাসস্থান এর পেছনের রাস্তা দিয়েই ঘড় ঘড় শব্দ তুলে ফারুকের ট্যাংক বহর শহরের দিকে যেতে থাকে।

এত শব্দেও শাফায়াত জামিলের নিদ্রাভঙ্গ হয়নি, কিংবা মনে কোনো প্রশ্ন জাগেনি। যদিও শাফায়াত জামিল বলতেই পারেন, ১ম বেঙ্গল ল্যান্সার ও টু ফিল্ড আর্টিলারি একত্রে মহড়া করবে এটা তিনি জানতেন। তাই এ নিয়ে তাঁর মনে প্রশ্ন জাগেনি। এটাও ঠিক যে, ৩রা নভেম্বর এর ক্যু’তে খালেদ ও শাফায়াতের দর্শন ও গন্তব্য এক ছিলো না।

পূর্বেই বলা হয়েছে, খালেদের জন্য তা ছিলো শুধু আর্মি চীফ হবার প্রয়াস, শাফায়াতের জন্য হয়তো চেইন অব কমান্ড ফিরিয়ে আনা, অর্থাৎ নিজের অধীনে বেঙ্গল ল্যান্সার ও টু ফিল্ড আর্টিলারিকে আবার নিয়ে আসা (১,৮)। তারপরও ১৫ আগস্ট ভোরে সেনাপ্রধানের ফোন পাবার পরও শাফায়াত জামিলের নিষ্ক্রিয়তা ফারুক-রশিদের পরিকল্পনা সঠিক ভাবে সম্পন্ন করতে সহায়তা করেছে, এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। খালেদ সেনাপ্রধানের কাছে অভিযোগও করেছিলেন, ৪৬ ব্রিগেডের কেউ তাঁকে যেতে দিচ্ছে না, কিছু করতেও দিচ্ছে না (১)।

আর কর্নেল হামিদের স্মৃতিকথায় জানা যায়, ফারুক যে কিছু একটা করবে এটা নিয়ে সেনানিবাসে আগে থেকেই কানাঘুষা ছিলো। শাফায়াত জামিলের নিষ্ক্রিয়তার পেছনে এমন পূর্বধারণার কোনো প্রভাব ছিলো কি? কর্নেল হামিদ তার বইয়ে বর্ণনা করেছেন, ১৫ আগস্ট সারাদিন শাফায়াত জামিল খোশমেজাজে ছিলেন এবং কর্নেল হামিদকে বলেছিলেন, “দেখলেন স্যার, ফ্রিডম ফাইটার্স হ্যাভ ডান ইট বিফোর, এন্ড দে হ্যাভ ডান ইট এগেইন (১)”! সিনিয়র অফিসারদের মধ্যে বিদায়ী ডিএফআই (বর্তমানে ডিজিএফআই) প্রধান ব্রিগেডিয়ার আব্দুর রউফের ভূমিকাও প্রশ্নবিদ্ধ কয়েকটি কারণে। একঃ ১৫ আগস্ট রাতে ফারুক-রশিদের সম্ভাব্য অভ্যুত্থানের খবর পেয়েও তড়িৎ কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে নিজের প্রাণ বাঁচাতে কিংবা দায়িত্ব এড়াতে পরিবারসহ বাসার পেছনে লুকিয়ে ছিলেন তিনি।

ভোর ৬.৩০ টায় লুঙ্গি পরিহিত অবস্থায় সেনাভবনে হাজির হন। তিনি মাঝরাতেই আর্মি চীফ শফিউল্লাহকে জানালে হয়তো কিছু হতে পারতো (১, ৪)। দুইঃ নতুন গোয়েন্দা প্রধান হিসেবে প্রেসিডেন্টের তৎকালীন মিলিটারি সেক্রেটারি হিসেবে কর্মরত কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ নিয়োগ পেলেও এতে তৎকালীন প্রধান রউফ অসন্তুষ্ট হন। তাই তিনি দায়িত্ব হস্তান্তরে গড়িমসি করছিলেন। ১৫ আগস্ট দায়িত্ব হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত হয় (১)। তিনঃ এত বড় একটা ঘটনার পরিকল্পনা ও প্রস্তুতির কোনো খবরই কি ডিএফআই পায়নি? নাকি পেয়েও চুপ করে ছিলো?

ফারুকের আচরণ যেখানে প্রশ্নবিদ্ধ ছিলো, সেখানে তার কর্মকা- সম্বন্ধে খোজ রাখা তো ডিএফআই এর দায়িত্ব ছিলো। বস্তুত: উপরোক্ত ঘটনাগুলো বিচার করলে ১৫ আগস্টের ঘটনায় ব্রিগেডিয়ার রউফের সংশ্লিষ্টতার যথেষ্ট প্রমাণ পাওয়া যায়। এই ব্রিগেডিয়ার রউফ আবার ৩রা নভেম্বর ক্যু’র পর সেনাপ্রধান জিয়ার পদত্যাগ পত্র নিয়ে আসেন কর্নেল আনোয়ারসহ (১,৪)। বুঝাই যাচ্ছে উনি খালেদ শিবিরের লোক ছিলেন। তাই ফারুক কিছু অঘটন ঘটাবে জেনেও ১৫ আগস্ট রাতে তিনি কিছুই করেননি। একই কারণে অভিযুক্ত হতে পারেন ডিএমআই প্রধান লেঃ কর্নেল সালাহ উদ্দিন। তিনি ১৫ আগস্ট রাত ৪.৩০ থেকে ৫.০০ টার দিকে জেনেছেন সম্ভাব্য অভ্যুত্থানের কথা।

শফিউল্লাহকে সেটা জানিয়েছেন ভোর ৫.১৫ থেকে ৫.৩০ এর মধ্যে (১)। ঘটনার গুরুত্ব বিচারে আরও তৎপর হওয়াটাই স্বাভাবিক ছিলো। ১৫ আগস্টের ঘটনায় আরেকজন সিনিয়র সেনা কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতার ক্লু না পাওয়া গেলেও, ক্যু পরবর্তী তাঁর কর্মকা- যথেষ্ট বিস্ময় জাগানিয়া। তিনি হলেন তৎকালীন ডিজি, বিডিআর মেজর জেনারেল খলিলুর রহমান। প্রেসিডেন্টের সাথে তাঁর ব্যক্তিগত সম্পর্ক ছাত্র জীবনে কলকাতার বেকার হোস্টেলে থাকার সময় থেকেই খুব ভালো ছিলো। খলিল সাহেব পাকিস্তান থেকে দেশে ফিরে হতে চেয়েছিলেন সেনাপ্রধান।

জেনারেল ওসমানীর সুপারিশ ছিলো তাঁর পক্ষে। তারপরেও সেনা প্রধান হতে পারেননি। বদলে পেয়েছিলেন বিডিআর এর প্রধানের দায়িত্ব। ওসমানীর সাথে ছিলো ভালো সম্পর্ক। সেনাবাহিনীর মুক্তিযোদ্ধা সিনিয়র অফিসারদের প্রতি তাঁর বিরাগ ছিলো। এটাকে তিনি লুকাননি তাঁর বইয়ে (৭)। ১৯৭৫ এর আগস্টে শফিউল্লাহ ২য় মেয়াদের জন্য সেনাপ্রধান হওয়ায় তাঁর সেনাপ্রধান হবার আশা আর ছিলো না। তাহলে কি ১৫ আগস্ট তাঁর মৃতপ্রায় ক্যারিয়ারে নতুন সুযোগ এনে দিয়েছিলো? বা¯তবে তা হয়েও ছিলো। পাকিস্তান ফেরত এই কর্মকর্তাকে ফারুক-রশিদ কেউ যে আস্থায় আনার প্রয়োজন করেনি সেটা ধারনা করা যায়।

তবে এই ব্যক্তি ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ সকাল থেকেই মোশতাক আর ওসমানীর সাথে মিলে তার কারিশমা দেখিয়েছেন ৫ নভেম্বর পযন্ত। এবার আর আর্মি চীফ না, বরং মোশতাক তিন বাহিনী প্রধানদের উপরে তাকে বসিয়েছিলেন চীফ অব জেনারেল স্টাফ হিসেবে। কোন চুক্তিতে বা ভরসায় মোশতাক এই কাজ করেছিলেন? খলিল সাহেব তো শেখ মুজিবর রহমানের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত ছিলেন (১,৭,৮)। ১৫ আগস্ট সকালে রক্ষীবাহিনীর সদস্যরা পিলখানায় রক্ষিত নিজেদের অস্ত্র আনতে গেলে খলিল সাহেব তাতে বাধা দেন (৫,৬)।

তবে এটা হয়তো সংঘর্ষ এড়ানোর জন্য তিনি করেছিলেন। সিনিয়র অফিসারদের মধ্যে ১৫ আগস্টের ঘটনায় কর্নেল নাজমুল হুদার সংশ্লিষ্টতার তেমন কোনো প্রমাণ নেই। এর কারণ হয়তো যে তিনি ঢাকার বাইরে ছিলেন। যদিও তিনি খালেদ শিবিরের লোক ছিলেন। এছাড়াও সিনিয়রদের মধ্যে পুরো ঘটনায় ব্রিগেডিয়ার মীর শওকতের তেমন কোন সংশ্লিষ্টতা দেখা যায় না। ঢাকার বাইরে থাকা কিংবা জিয়া শিবিরের লোক হওয়ায় ফারুক-রশিদের কাছে তার আলাদা কোনো গুরুত্ব ছিলো না। ভারতে থাকার কারণে কর্নেল মঞ্জুর ও এরশাদের সংশ্লিষ্টতার কোন মোটিভ বা ক্লু পাওয়া যায় না। তবে দুজনেই ১৫ আগস্টের পর ভারত থেকে দেশে ফিরেছিলেন।

আবার ধমক খেয়ে ফিরেও গিয়েছিলেন (৮)। তবে ফারুক-রশিদের সাথে এরশাদের সমঝোতা থাকার সম্ভাবনা প্রবল। কারণ ৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর দেশে ফিরে এরশাদ নিষেধ স্বত্বেও গণভবনে গিয়ে ফারুক-রশিদের সাথে দেখা করেন (৮)। জিয়ার আমলে ফারুক-রশিদসহ বাকীদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চাকুরী দেয়ার জোর সুপারিশেও এরশাদ ছিলেন (৪), আবার তাঁর শাসনামলেই ফারুক-রশিদ বাংলাদেশে রাজনীতি শুরু করার সুযোগ পায়। সেনা সদরে কর্মরত আরও দু’জন সিনিয়র কর্মকর্তা, যথাক্রমে কর্নেল মইনুল হোসেন চৌধুরী ও কর্নেল আব্দুল হামিদ ১৫ আগস্টের ক্যু পরিকল্পনায় ফারুক- রশিদের আস্থায় ছিলেন না, এটাও প্রমাণিত। মইনুল হোসেন চৌধুরী মুক্তিযোদ্ধা হলেও আব্দুল হামিদ সাহেব মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। তবে, অন্যান্য পাকিস্তান ফেরত অফিসারদের আগেই ১৯৭২ এ পালিয়ে দেশে ফিরে আসেন তিনি। এ দুজনেরই জিয়ার সাথে সুসম্পর্ক ছিলো। তবে কার্যত: তাঁরা ছিলেন পেশাদার সেনাবাহিনীর মূল্যবোধে দীক্ষিত, যারা মনে করতেন সেনাবাহিনীর রাজনীতিতে জড়িত হওয়া উচিত নয় (১,৪)। যদিও রশিদ ১৫ আগস্টের পূর্বেই জুলাইয়ে মইনুল হোসেন চৌধুরীকে সমঝোতায় আনার চেষ্টা করেছিলো। কিন্তু সে সেখানে সুবিধা করে উঠতে পারেনি (৪)।

১৫ আগস্টের ক্যু’র ঘটনায় সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল শফিউল্লাহর সংশ্লিষ্টতা নিয়ে কথা না বললে আলোচনা অসম্পূর্ণ থেকে যায়। কেউ কেউ ইঙ্গিত দিলেও বাস্তবিক অর্থে এই ঘটনায় জড়িত হবার তাঁর কোন মোটিভ ছিলো না। কারণ অল্প বয়সেই সেনাপ্রধান হয়েছেন একজনকে ডিঙ্গিয়ে, ২য় বারের জন্য মেয়াদও বেড়েছিলো তাঁর। ১৫ আগস্টে তাঁর ভূমিকা ছিলো অসহায়ত্বের এবং পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যবস্থা না নিতে পারার ব্যর্থতার। মুক্তিযুদ্ধে পাক আর্মির বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ও যুদ্ধে শৌর্য-বীর্যের ইতিহাস সমৃদ্ধ এ মানুষটির সবচেয়ে বড় অপমান হয়েছিলো ১৯৭২ এ, যখন তাকে সেনাপ্রধান করা হয়েছিলো তাঁর যোগ্যতার কারণে নয় বরং জিয়ার বিকল্প হিসেবে। বস্তুত: এ কারণে শফিউল্লাহ সাহেব নিজের ঊর্ধ্বতন কিংবা অধস্তন কারো কাছেই সম্মান পাননি (৪, ৮)।

রাজনৈতিক নেতাদের কাছে উনি ছিলেন জিয়ার বিকল্প হিসেবে অনুগ্রহ পাওয়া একজন ব্যক্তি। অধস্তনদের কাছে তিনি ছিলেন যোগ্য এক সেনা অফিসারকে সুপারসীড করা একজন ব্যক্তি, খালেদ মোশাররফের কাছে তিনি ছিলেন সেনাপ্রধান হবার পথে শেষ বাঁধা। ব্যক্তিগতভাবে তিনি একজন অত্যন্ত ভদ্রলোক মানুষ। এই নিতান্তই ভদ্র মানুষটিকে নিজের যোগ্যতা প্রমাণের সুযোগ বাংলাদেশ দেয়নি। ১৫ আগস্টের ঘটনায় আর কোনো সিনিয়র অফিসারদের সংশ্লিষ্টতার ক্লু না পাওয়া গেলেও দুজন সিনিয়র সেনা অফিসার স্পষ্ট ভাবেই এই ঘটনার বিরুদ্ধে ছিলেন। মজার বিষয় হচ্ছে, এই দুজনের কেউই মুক্তিযোদ্ধা নন বরং পাকিস্তান ফেরত আর্মি অফিসার।

একজন তৎকালীন কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ, যিনি ছিলেন প্রেসিডেন্টের বিদায়ী মিলিটারি সেক্রেটারি। পনেরো আগস্ট সকালে প্রেসিডেন্টের ডাকে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে নিহত হন তিনি (১)।

আরেকজন ব্রিগেডিয়ার কাজী গোলাম দস্তগীর। ১৫ আগস্ট সকালে ডালিমের ঘোষণা রেডিওর চট্টগ্রাম স্টেশনে প্রচার বন্ধ করার আদেশ দিয়েছিলেন তিনি (৮)। তবে তাদের এই আচরণ রাজনৈতিক বিশ্বাসপ্রসুত ছিলো না, বরং সম্পূর্ণই পেশাগত দায়িত্বশীলতার অংশ ছিলো। রাজনীতিতে জড়িত হবার চেয়েও নিজের পেশাগত দায়িত্বকে বেশী গুরুত্ব দিতেন তাঁরা।

এটা আজও রহস্যজনক, আগে থেকেই সেনানিবাসে চাউর হওয়া সম্ভাব্য ক্যু’র শিখণ্ডী কর্নেল ফারুককে কেন গোয়েন্দা পর্যবেক্ষণের আওতায় আনা হয়নি, নাকি তাকে উলটো প্রটেকশন দেয়া হচ্ছিলো? Bangladesh: A legacy of Blood বইয়ে ফারুকের বর্ণিত বুশ শার্ট ও লুঙ্গি পড়ে সন্ধ্যার পর ৩২ নম্বর বাড়ির চারপাশ রোমাঞ্চ জাগানো রেকি করতে যাওয়াটা কি কারই চোখে পড়ে নি? নাকি সেনাবাহিনীর প্রভাবশালী অংশ তাকে এ কাজ করার সুযোগ দিয়েছে? বস্তুত: কর্নেল হামিদ যেভাবে সারাংশ টেনেছেন সেভাবেই বলতে হয়, ফারুক-রশিদ অভ্যুত্থান ঘটাতে পারে এমন ধারনা জিয়া-খালেদ-রউফ-জামিলের প্রায় সবারই জানা ছিলো।

তবে ঘটনা পরম্পরা, ওই সময়ের প্রেক্ষাপট ও ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের সাক্ষ্যে প্রমাণ হয়, ফারুক-রশিদ কর্তৃক সম্ভাব্য অভ্যুত্থান ঘটানোর ব্যাপারে সিনিয়ররা প্রায় সবাই জানলেও, কেউ কেউ এতে সক্রিয়ভাবে সহায়তা করেছেন এর ভয়ংকর পরিণাম না ভেবেই, কেউ বা ক্ষমতাহীন থাকায় চুপচাপ অবলোকন করেছেন ঘটনাপ্রবাহ। আর সিনিয়রদের মধ্যে যারা জানতেন না, তাঁদের একটা অংশ পরিবর্তিত পরিস্থিতিকে কীভাবে নিজের জন্য অনুকূলে আনা যায় সে ব্যাপারে সচেষ্ট ছিলেন।

এখানে যদিও সিনিয়র অফিসারদের সংশ্লিষ্টতা নিয়ে কথা বলা হলো, তবে ফারুক-রশিদের সমসাময়িক অনেক অফিসার যে ফারুক-রশিদের উদ্দেশ্য জানতেন সেটা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। এ নিয়ে না হয় পরে আলোচনা করা যাবে। এর ফাকে আরও কিছু আত্মজীবনী ও ইতিহাস বের হয়ে আসুক। ইতিহাস এমন একটা জিনিস যা লুকিয়ে থাকতে জানে না। একদিন না একদিন তা বের হয়ে আসেই।

তথ্যসুত্রঃ

১. তিনটি সেনা অভ্যুত্থান ও কিছু না বলা কথাঃ লে.ক.(অবঃ) এম এ হামিদ পিএসপি, কালিকলম প্রকাশনা।

২. বাংলাদেশ বাহাত্তর থেকে পঁচাত্তর: মেজর নাসির উদ্দিন, আগামী প্রকাশন।

৩. Bangladesh- A legacy of Blood: Anthony Mascarenhas, Hodder and Stoughton.

৪. এক জেনারেলের নীরব সাক্ষ্য স্বাধীনতার প্রথম দশক: মেজর জেনারেল মইনুল হোসেন চৌধুরী (অবঃ) বীরবিক্রম, মাওলা ব্রাদার্স।

৫. রক্ষীবাহিনীর অজানা অধ্যায়: কর্নেল সরোয়ার হোসেন মোল্লা (অবঃ),অন্বেষা প্রকাশন।

৬. রক্ষীবাহিনীর সত্য-মিথ্যাঃ আনোয়ার উল আলম, প্রথমা প্রকাশন।

৭. কাছে থেকে দেখা ১৯৭৩-১৯৭৫- মেজর জেনারেল এম খলিলুর রহমান, প্রথমা প্রকাশন।

৮. সৈনিকের জীবন গৌরবের একাত্তর রক্তাক্ত পচাত্তরঃ হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম, প্রথমা প্রকাশন।

৯. মুক্তিযুদ্ধে মেজর হায়দার ও তাঁর বিয়োগান্ত বিদায়ঃ জহিরুল ইসলাম, প্রথমা প্রকাশন

১০.একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ, রক্তাক্ত মধ্য আগস্ট ও ষড়যন্ত্রময় নভেম্বর: কর্নেল শাফায়াত জামিল (অবঃ), সাহিত্য প্রকাশ। ]

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • Sushanta.D.Gupta-Facebook

    Facebook Pagelike Widget
  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

শহরে মুন জেনারেল হাসপাতালে র‍্যাবের অভিযান : জরিমানা আদায়

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!