previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  মতামত  >  বর্তমান নিবন্ধ

ইভান, লু-সান ও বঙ্গবন্ধুর বিপ্লব

 জুলাই ২১, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

অমি রহমান পিয়াল : বাঙালী জাতি রূপকথা বড় ভালোবাসে। গরীব গুর্বাদের এই বদ্বীপে তাই ডালিমকুমার, লালকমল-নীলকমলদের জয় জয়কার ছিলো। ব্রিটিশ আমলে কেরানি প্রতিযোগে পাল্লা দেওয়া বাঙালী শিক্ষিত জেনারেশন পাকিস্তান আমলে নতুন রূপকথার বই পাইলো। খালেদ বিন ওয়ালিদ কিংবা হ্যান্স ক্রিশ্চিয়ান এন্ডারসনরা তখন পুরানা হইয়া গেছে, ব্যাকডেটেড লোকজন পড়ে।
পাকিস্তান সরকার যাগো লগেই খয়রাতি সম্পর্ক পাতে তাগোই সংস্কৃতি মন্ত্রনালয় থিকা এইসব বই বস্তায় বস্তায় মাগনা আসতে থাকলো। তরুণ সমাজ নতুন রূপকথা পাইলো, বিপ্লবী রূপকথা। তারা শিখলো কমরেড নামে দারুণ একটা শব্দ। দোস্ত, বন্ধু, ফ্রেন্ডের থিকা অনেক বেশী জোরালো সম্বোধন। তারা জানলো মেহনতি মানুষ বনাম ভুমিদাসের লড়াই, তারা জানলো গ্রাম দিয়া শহর ঘেরাও করার লড়াই।

ছবি : লেখক অমি রহমান পিয়াল এর ফাইল ছবি

এই গল্প মুখস্ত কইরা সবচেয়ে ভালো যারা বলতে পারতো, তারা আবার ঠিকাদারী পাইলো ওইসব প্রকাশনীর। তারাই গল্পরে সত্যি করা সম্ভব জানাইলো মুগ্ধ শ্রোতাদের। সো কে কে রাজপুত্র হইতে চাও, হাত তুলো! কে ইভান হবা? কে লু-সান হবা? লাল কমল নীল কমলরা বিতাড়িত হইলো ইভান আর লু-সানদের তোড়ে। প্রোলেতারিয়েত, বুর্জোয়া, পাতি মুৎসদ্দি বাংলা শব্দ ভান্ডার সমৃদ্ধ হইয়া উঠলো এই জোয়ারে। সবাই ইভান নয়তো লু-সান হইতে চায়। সে এক হাইপ, কমরেডশিপ, মেহনতি মানুষের জয়, সর্বহারার জয়।
কিন্তু প্রকাশনীর মালিকরা তাগো স্থানীয় এজেন্টদের যেই সত্যটা কখনও অবমুক্ত করে নাই, তা হইলো বিপ্লবের কোনো ফিক্সড প্যাটার্ন হয় না। কখনও দুইটা দেশের বিপ্লব একরকম না। শিল্পসমৃদ্ধ দেশের বিপ্লবী মডেলে বর্গাচাষীরে বিপ্লবী বানানো কাঠালের আমসত্বের মতোই কঠিন রেসিপি। একেক দেশের সংস্কৃতি, ভাতৃত্ববোধ, জনমানস একেকরকম। আঞ্চলিকতা, ধর্মীয় চেতনা ইত্যাদিও বিবেচ্য। তাই ইভান আর লু-সানদের বিপ্লব সফল হয় না। তারা কিতাব ভালো কইরা পড়ে।
শব্দ এবং বাক্যের গঠনপ্রণালী বিশ্লেষণ কইরা দ্ব্যার্থক প্রতিশব্দ আবিষ্কার করে। অভিধানে যোগ হয় সংশোধনবাদী, প্রতিবিপ্লবী, ফ্যাসিবাদের দালাল। অথচ শিক্ষিত মধ্যবিত্ত তারা যে পাতি বুর্জোয়া হইয়াই সর্বহারার বিপ্লবে নেতৃত্ব দেওয়ার স্বপ্ন দেখতেছে এই সত্য গোপন কইরা, এমনই ফার্স নিয়া থিসিসের পর থিসিস লেখা হয়।
একজন লোক বুঝছিলেন এই বাংলায় বিপ্লব করতে হইলে এই বাংলার স্টাইলেই করতে হবে। এবং বাঙালী তার জাতীয়তাবাদের উপলব্ধি না করলে বিপ্লবের ক্ষেত্র তৈরি হবে না, একতা আসবে না। শোষিত এবং নিপীড়িত বইলা শুধু নিম্নবিত্তরে বিপ্লবের ঝোল দেন নাই তিনি। সব শ্রেণীই বঞ্চনার শিকার উপনৈবেশিক শৃংখলে। সবাই শোষিত, সবাই নিপীড়িত।
এইভাবেই বিপ্লব হইছে ১৯৭১ সালে, মুক্তিযুদ্ধের আদলে, বঙ্গবন্ধুর থিসিসে। বিদেশী প্রকাশনীর পুথিপাঠকরা কোনোকালেই নিজেদের জনবিচ্ছিন্নতার কারণ খোজে নাই, জনসাধারণে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা গড়ার উপায় খোজে নাই, বিপ্লবে ব্যর্থতার ব্যবচ্ছেদে যায় নাই। যেহেতু চেয়ারম্যান মাওর রেডবুকে নাই, ওইটা বিপ্লবের উপাদান হইতেই পারে না-এই মূর্খতায় জিদ্দি থাকলো তাদের পন্ডিতরা। উপর নীচের পক্ককেশ নিয়া তারা দেহ রাখলো কিন্তু থিসিস গিলাইয়া গেলো প্রজন্মান্তরে।
শোন হে, জাতীয়তাবাদ না, মুক্তিযুদ্ধ ছিলো আসলে বৈপ্লবিক সংগ্রামী কর্মসূচী ভিত্তিক- এমন থিসিসেই তারা পরিতৃপ্ত হইলো। এই কর্মসূচিতে যে তাদের নেতৃত্ব নাই, চিহ্ন মাত্র নাই, সেই বেদনা, সেই আফসোসও তারা ভুইলা গেলো জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের কৃতিত্ব মুজিবের থেকে বিপ্লবী তত্বের মাধ্যমে কেড়ে নিতে পারার মিথ্যা স্বপ্নদোষে।
ইভান না, লু-সান না, বাংলাদেশ স্বাধীন হইছে মুজিববাদে (বাঙালী জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা)। এইটাই বাস্তবতা। আর তা বাস্তবায়িত করছে বাঙালী রাজপুত্ররা। তাগো ঘোড়া ছিলো না নাঙ্গা পা, রাজপোষাক নাই ছেড়া গেঞ্জী আর লুঙ্গী। তরবারী নাই থ্রি নট থ্রি। লাল বইয়ের সমস্ত সূত্ররে হাস্যকর বানাইয়া তারা জয় বাংলা বইলা দেশটা স্বাধীন কইরা ফেললো। আফসুস…
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

সান্ধ্যকালীন আন্দোলন ও শিক্ষার চলমান সিঁড়ি

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!