previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

নিম্নমানের কাজ করায় কয়েক কোটি টাকার রাস্তা দুই বছরেই শেষ :

 জুলাই ১৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

শামীম চৌধুরী বানিয়াচং  :  বানিয়াচং উপজেলার ৬নং কাগাপাশা ইউনিয়ের কাগাপাশা আনন্দ বাজার (চকবাজার) রাস্তার হলিমপুর অংশের  এক কিলোমিটার আরসিসি ঢালাই রাস্তা দুই বছরেই ভেঙ্গেচুরে শেষ হয়ে গেছে ।
শনিবার ( ১৭ জুলাই) সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রাজেন্দ্রপুর গোগ্রাপুরের কিছু অংশ ও হলিম মরা কুশিয়ারা ব্রীজের দক্ষিণ অংশ থেকে ব্রীজ পার হয়ে উত্তর দিকে প্রায় এক কিলোমিটার রাস্তার সম্পূর্ণই ভেঙ্গে গেছে। কিছু কিছু অংশের মাঠি সরে গিয়ে আরসিসি ঢালাই তো নাই-ই এমনকি রড পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।
রাস্তাটি ভেঙ্গে চুরে বিলিন হয়ে আবার সেই আগের মতো পতিত হয়ে গেছে। মকা হলিমপুর রাজেন্দ্রপুর ও গোগ্রাপুরের জনগনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৭ সালে রাজেন্দ্রপুর থেকে গোগ্রাপুর ছেউয়াখালী কালভার্ট পর্যন্ত প্রায় দের কিলোমিটারের এক কোটি টাকার এলজিইডি রাস্তার আরসি সি’র কাজ পান বানিয়াচংয়ের ঠিকাদর ফজলে নকীব মাখন।

ছবি : নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করায় বছর ও টিকেনি কাগাপাশা আনন্দ বাজার (চকবাজার) রাস্তা

২০১৮ সালের মাঝামাঝিতে ছেউয়াখালী কালভার্টের থেকে উত্তর দিকে আলাকান্দি কালভার্ট পর্যন্ত তিন কিলোমিটারের এলজিইডি রাস্তার মাঠি এবং আরসিসি’র ঢালাইয়ের  কাজ পান আজমিরীগঞ্জের ঠিকাদার ও আজমিরীগঞ্জের বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মর্তৃজ আলী। এখানে উল্লেখ্য যে আলাকান্দি থেকে ছেউয়াখালী  কালভার্ট পর্যন্ত মাটির জন্য টাকা বরাদ্দ পান ১৬ লক্ষ টাকা এবং তিন কিলোমিটার আরসিসি রাস্তার জন্য পান ৩ কোটি টাকা।
২০১৮ সালের মার্চ এপ্রিলে মাটির কাজ শেষ হওয়ার পর পরই বর্ষাকালে রাস্তার উপরে যেনতেন ভাবে আর সিসি’র কাজ আরম্ভ হয়। এবং ২০১৯ সালের প্রথমার্ধেই শেষ হয়।
হলিমপুর এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, হলিমপুর মরা কুশিয়ারা ব্রীজ থেকে আলাকান্দি পর্যন্ত এক্সভেটর দিয়ে রাস্তার মধ্যে খাল তৈরী করে এবং দুই সাইডকে উ্চু করে বক্স করা হয়, এবং ড্রেজার মেশিন দিয়ে নদী থেকে পলিমাটি দিয়ে বক্স ভরাট করে নতুন রাস্তা করা হয়, এবং পলিমাটি আটকানোর জন্য রাস্তার দুইধারে কোন ধরনের সাপোর্ট না নিয়াই মাটি ভালো করে না বসিয়ে অপরিকল্পিত ভাবে আরসিসি ঢালাইয়ের কাজ তড়িঘড়ি করে শেষ করা হয়।
তারা আরও অভিযোগ করে বলেন, মর্তুজ আলী ঠিকাদারের ম্যানেজার মোঃ মিজান একেবারে নিম্বমানের কাজ করেছেন। মসলার ভাগ যেমন ঠিক ছিলোনা তেমনি ঠিক ছিলোনা রডের বাইনও। নিম্নমণের সামগ্রী দিয়ে একদম দায়সারা গোছের কাজ করেছেন।
যার জন্য এক দের বছরেই রাস্তা আগের মতোই হয়ে গেলো। আগেও আমরা কাগাপাশা যাইতাম নৌকায় এখনো যাই নৌকায়।
এই কোটি টাকার রাস্তা আমাদের কোন কাজেই আসেনি। এই রাস্তার বিষয়ে জানতে ঠিকাদার মর্তুজ আলীর ম্যানেজারকে ফোন দিলে তিনি জানান ভাই রাস্তার বিষয়ে কথা বলে আর কি করবেন এই রাস্তার রি-টেন্ডারের সময় এসে গেছে। আরও বিস্তারিত জানতে উপজেলা এলজিইডি ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মিনারুল ইসলামকে ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বানিয়াচংয়ে পল্লী উদ্যোক্তাদের মাঝে ঋন বিতরণ –

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!