previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  লাখাই  >  বর্তমান নিবন্ধ

খোয়াই নদীর লাখাই অংশে ৩৫ লক্ষ টাকার বাঁধ নির্মাণ কাজে অনিয়মে ১ লক্ষ ৫৬ হাজার টাকা বিল কর্তন : পিআইসি গঠনে দুর্নীতির বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে গড়িমসি

পিআইসি কমিটিতে নাম না থাকায় বাঁধে জমি হারানো ফরিদপুরের কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ

 জুলাই ১৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

আতাউর রহমান ইমরান :  হবিগঞ্জ জেলার বুক চিরে বয়ে যাওয়া খরস্রোতা খোয়াই নদীর লাখাই অংশে আগাম বন্যার কবল থেকে ফসল ও ঘরবাড়ি রক্ষার্থে গত বছর বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নেয় হবিগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড। ফরিদপুর গ্রামের নিকটে নির্মিত বাঁধটির নির্মান প্রকল্পের শুরু থেকেই কাজে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে।

 

এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে গত ২১ মে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এমডি সাজ্জাদ হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত একটি টাস্কফোর্সের মাধ্যমে তদন্ত হয়। জানা গেছে তদন্ত শেষে প্রায় ৩৫ লক্ষ টাকার ওই প্রকল্প থেকে ১ লক্ষ ৫৬ হাজার টাকা কর্তন করেছেন সংশ্লিষ্ট দপ্তর। টাকা কর্তন করার বিষয়টি নিশ্চিত করে লাখাই উপজেলা নির্বাহি অফিসার লুসিকান্ত হাজং জানান নির্ধারিত কাজের চেয়ে ৭০ মিটার কাজ কম হওয়ায় এবং তিনটি পিআইসির একটিতে কাজের গড়মিল থাকায় ১ লক্ষ ৫৬ হাজার টাকা বিল কর্তন করে সরকারি কোষাগারে ফেরত প্রদান করা হয়েছে।

বাকি পাওনা টাকা এখনও পরিশোধ করা হয়নি। এদিকে অনিয়মের কারনে বিল কর্তন করা হলেও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গঠনের বিষয়ে গুরুতর আরেকটি অভিযোগের ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে গড়িমসি করছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

 

 

ছবি : অভিযুক্তদের ছবি লাখাইয়ে খোয়াই নদীর একাংশ

 

 

 

নিয়মানুযায়ী যাদের জমির উপর দিয়ে বাঁধ নির্মিত হয়েছে, সে সকল কৃষকদের নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গঠন করে সেই কমিটি দ্বারা বাঁধটি নির্মাণ করার কথা। কিন্তু এসব নিয়মকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড হবিগঞ্জের উপসহকারী প্রকৌশলী ও প্রকল্পের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একরামুল হক স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার মুখলেস মিয়ার সঙ্গে যোগসাজশ করে নিজেদের পকেটের লোক দিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গঠন করেন।

উদ্দেশ্য আর কিছুই নয় এ থেকে প্রাপ্ত লাভের টাকা আত্মসাৎ করা। তাদের তৈরী করা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির একাধিক সদস্যের সাথে কথা বলে জানা যায় কমিটিতে তাদের নাম থাকার বিষয়টি তারা নিজেরাই অবগত নন।

এ প্রকল্পের কাজকর্ম নিয়ে তেমন কিছুই জানেন না তারা। কমিটির সদস্যদের প্রকল্প এলাকায় জমির মালিক হওয়ার নিয়ম থাকলেও তথ্য আছে এ কাজের জন্য গঠিত ৩ টি কমিটিতে নিয়োগপ্রাপ্তদের মধ্যে প্রায় কারোই প্রকল্প এলাকায় জমিজমা নেই। একাধিক কমিটিতে একই ব্যক্তি স্থান পেয়েছেন। এমনকি ঠিকানা বদলিয়ে অন্য জেলা ও উপজেলার লোকদেরকেও রাখা হয়েছে কমিটিতে।

অথচ যে সকল কৃষকদের জমির উপর দিয়ে বাঁধটি চলে গিয়েছে জমিহারা সেসব কৃষকরা বঞ্চিত থেকে গিয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী এসব জমিহারানো ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সমন্বয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠন করা হলে বাঁধ নির্মাণ কাজ থেকে প্রাপ্ত লভ্যাংশ দিয়ে নিজেদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারতেন তারা।

এ ব্যাপারে বাঁধে জমি হারানো সংশ্লিষ্ট কৃষকরা জানান, প্রভাবশালীরা তাদেরকে ভয় দেখিয়ে মুখ বন্ধ করে রেখেছে। সরকারের কাছে জমি হারানোর ন্যায্য ক্ষতিপুরন চান তারা। ফরিদপুর গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার মোঃ শাহাবুদ্দিন জানান, বাঁধ এলাকায় তাদের জমিজমা থাকলেও কমিটি গঠনের সময় কাউকেই বিষয়টি অবগত করা হয়নি।

বর্তমানে যাদের নাম দিয়ে কমিটিগুলি গঠন করা হয়েছে তাদের কারোরই বাঁধের আশেপাশে জমিজমা নেই। পিআইসি কমিটি গঠনে অনিয়মের বিষয়ে জানতে হবিগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শাহনেওয়াজ তালুকদারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের সংশ্লিষ্ট ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করেছেন। তাদের দ্বারা তৈরিকৃত কমিটি আমরা অনুমোদন দিয়েছি।

এক্ষেত্রে অনিয়ম হয়ে থাকলে তাদের কাছ থেকেই আপনারা জানতে পারবেন। তবে এসব ব্যাপারে অভিজ্ঞরা বলছেন পানি উন্নয়ন বোর্ড সংশ্লিষ্টদের এ ধরনের বক্তব্য দায় এড়ানোর কৌশল ছাড়া আর কিছুই নয়।

একটি সূত্রে জানা যায় বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরুর আগেই একটি মহল এর লভ্যাংশ হিসাবে নগদ অর্থ হাতিয়ে নিয়ে যান। এজন্যই এত অনিয়মের ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পরও এসবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।

এর আগেও একই নদীর অন্যান্য অংশের কাজেও ওই মহলটি অনিয়মকে ধামাচাপা দেয়ার বিনিময়ে বড় অংকের লভ্যাংশ হাতিয়ে নেয়।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

লাখাইয়ে নবাগত এসিল্যান্ড রুহুল আমিন

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!