previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

ধারণক্ষমতার দ্বিগুণ বন্দী হবিগঞ্জ জেলা কারাগারে !

নির্বাহী ক্ষমতা প্রয়োগে লঘু অপরাধীদের মুক্তি দেয়া যেতে পারে- এডভোকেট শিবলী

 জুলাই ১৭, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার :  নানা অভিযোগে প্রতিদিনই ২০ থেকে ৩০ জন আসামী আদালতের মাধ্যমে প্রেরণ করা হচ্ছে হবিগঞ্জ জেলা কারাগারে। ধৃতদের
অনেকেরই অপরাধ জামিন যোগ্য, আবার অনেকের অপরাধ জামিনের অযোগ্য। কারো আবার অভিযোগ থেকে জামিন পেতে পর্যাপ্ত সময়ের প্রয়োজন হয়।

তবে মহামারী করোনা আদালতের কার্যক্রম স্থগিত থাকার ফলে কার্যক্রম দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকায় আইনি সুবিধা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বন্দিরা। হবিগঞ্জ কারাগার সুত্রে জানা যায়, করোনার কারনে আদালতের কার্যক্রম স্থগিত থাকলেও প্রতিদিন কারাগারে ২০ থেকে ৩০জন আসামী আসছেন। এতে বন্দি ধারণ ক্ষমতা প্রায় দ্বিণের বেশী হয়ে যাচ্ছে।

বিচারপ্রার্থী ও বিচার কাজে সংশ্লিষ্টদের দাবি, অচিরেই যেন পুরোপুরি চালু করা হয় আদালতের কার্যক্রম। হবিগঞ্জ জেলা কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মোঃ জাকের হোসেন জানান, হবিগঞ্জ জেলা কারাগারের ধারণ ক্ষমতা ৫শ’ জনের। সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, সেখানে কয়েদি আছেন প্রায় ১ হাজার ২শ’ জন। আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় সামান্য অভিযোগেও জামিন হচ্ছে না অনেকেরই।

 

 

 

 

 

 

 

অনুসন্ধানে জানা গেছে, প্রতিদিন নতুন নতুন হাজতী ও কয়েদি আসলেও জামিন কার্যক্রম বন্ধ থাকায় কারাগারে বেড়েই চলেছে বন্দির সংখ্যা এবং আদালতের কার্যক্রম খোলা থাকলেও সাধারণ অপরাধের জন্য আত্মসমর্পণের সুযোগ না থাকায় অনেকেই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন অথবা গ্রেফতার হয়ে কারাবরণ করছেন।

আবার আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় বিচার কার্যের সঙ্গে জড়িত আইনজীবী, আইনজীবী সহকারী এবং এর সঙ্গে সংশ্লিদের আর্থিক অবস্থা ভালো নেই। যদিও গত বৃহস্পতিবার থেকে ফের ভার্চুয়ালিভাবে আংশিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এদিকে, বিচারপ্রার্থীদের মাঝেও দেখা দিয়েছে হতাশা। আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় কেউ আসছেন প্রিয়জনদের জামিনের আশায় আবার কেউ আসছেন বিচার পাওয়ার প্রত্যাশায়। কিন্তু কোনো আশার আলো নেই তাদের কাছে। তারা ন্যায় বিচারের স্বার্থে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আদালতের কার্যক্রম চালু রাখার দাবি জানিয়েছেন সরকারের কাছে।

স্পেশাল পিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক চৌধুরী জানান, করোনার জন্য আদালতের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। যদিও বৃহস্পতিবার থেকে ভার্চুয়ালিভাবে আদালত আবার শুরু হয়েছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আদালতের কার্যক্রম পুরোপুরি চালু হলে ভালো হতো।

হবিগঞ্জ জেলা অ্যাডভোকেট সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল মনসুর বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আদালত বন্ধ থাকায় একদিকে যেমন জেলা কারাগারে বন্দি বাড়ছে অন্যদিকে আদালতে মামলার জটও বাড়ছে। তাই বিষয়টি নিয়ে সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

এ ব্যাপারে হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস পর বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আইনজীবী মনজিল মোরসেদ দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘দুর্যোগের এই সময়ে মানবাধিকার তো লংঘন হচ্ছেই। কিছু করার নেই। তবে কারাগারে থাকা আসামিদের জামিন দেওয়ার ব্যাপারে বিচারকরা খাস কামরায় বসে আদেশ দিতে পারেন। আসামিদের আবেদনের প্রেক্ষিতে।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রতিদিন যেহেতু কারাগারে বন্দি সংখ্যা বাড়ছেই। এই বাড়তি চাপ কমাতে এ রকম সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে। এখন জামিন হলে তো লোক মারফত আদেশের কপি পাঠানোর প্রয়োজন নাই। কারণ আদেশের কপি কমিউনিকেশনের জন্য ডিজিটাল সিস্টেম আছে’।

হবিগঞ্জ এডভোকেট সমিতির সিনিয়র আইনজীবি এমএএন শিবলী খায়ের জানান, ‘কারাগারে চাপ কমাতে সরকার এক্সিকিউটিভ ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারেন।

লঘু অপরাধে গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিদের সরকার ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারেন ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১(১) ধারা অনুযায়ী। যেমন খালেদা জিয়াকে জামিনে মু্ক্তি দিয়েছে সরকার।’

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জ উন্নয়ন সংস্থা’র পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসনকে অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!