previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শীর্ষ সংবাদ  >  বর্তমান নিবন্ধ

কুতুব উদ্দিন জুয়েলকে হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি থেকে আজীবন বহিস্কার

তথ্য জালিয়াতির মাধ্যমে জামিনের আবেদন করায়

 জুলাই ১, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

তারেক হাবিব : ‘‘আম্মা কুতুব উদ্দিন জুয়েলের কাছে যাও, আব্বারে কও তার সাথে যোগাযোগ করতা এ ছাড়া আর কেউ পারত না গো’। এভাবেই মুক্তির আক্ষেপ নিয়ে জেল থেকে পরিবারের কাছে আকুতি জানাতো মাদক ব্যবসায়ীরা।

হবিগঞ্জ জেলায় মাদক মামলায় গ্রেফতারকৃত ৯৫ ভাগ আসামীই ছিলেন হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য কুতুব উদ্দিন জুয়েলের মক্কেল। মাদক ব্যবসায়ীদের একমাত্র আস্থাভাজন কুতুব উদ্দিন চুক্তির মাধ্যমেই আদালতে জামিনের আবেদন করতেন। অবাক করার মত হলেও সত্য মোটা অঙ্কের চুক্তির সাথেই জামিন হয়ে যেত আসামীদের।

তবে কথায় বলে ‘‘চোরের দশ দিন আর গেরস্তের একদিন’’ শেষ আকামটা করতেই বেরিয়ে এলো থলের বিড়াল। গতকাল বুধবার বিকেলে জেলা আইনজীবী সমিতির মুলতবী সাধারণ সভায় তাকে আজীবনের জন্য হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির ২য় ভবনে জেলা সমিতির সভাপতি আবুল মনসুর এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সামছুল হক এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় ২১জন আইনজীবী বক্তৃতা করেন। কুতুব উদ্দিন জুয়েলের বিরুদ্ধে গত ২ জুন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছেন তরুণ আইনজীবী আশরাফুল আলম ফয়সল।

পরে আরেকটি অভিযোগ দায়ের করেন মিজানুর রহমান। এসকল অভিযোগের আলোকে অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। গত ২৭ মে তথ্য জালিয়াতি করে আদালতকে ভূল বুঝিয়ে দুই মাদকবারীকে জামিনে মুক্ত করেন আইনজীবী কুতুব উদ্দিন জুয়েল। এই ঘটনা জানাজানির পরই আদালত প্রাঙ্গণে শুরু হয় হট্টগোল। জানা যায়, গত ৮ এপ্রিল মাধবপুর উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের জগদীশপুর মুক্তিযোদ্ধা চত্তর এলাকা থেকে ৫০ বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক কারবারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত মাদককারবারী নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানার গোয়ালদী গ্রামের হাবিবুর রহমান ভূইয়ার ছেলে মামুন ভূইয়া (৩৭) ও নরসিংদীর মাধবদী থানার মৃত নুর হোসেন এর ছেলে নবীর হোসেন (৩২)।

পরে তাদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দায়েরের পর আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ। পরে তাদের আইনজীবী হিসাবে মিজানুর রহমান বিভিন্ন সময় আদালতে জামিন প্রার্থনা করেন। কিন্তু গত ২৩ মে আসামীদের স্বজনরা মিজানুর রহমান এর কাছ থেকে মামলাটি নিয়ে কুতুব উদ্দিন জুয়েল নামে অন্য একজন আইনজীবির সাথে চুক্তি করে দ্রæত জামিন করানোর শর্তে। পরে তথ্য জালিয়াতির মাধ্যমে হবিগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ নাসিম রেজার আদালত থেকে গত ২৭ মে দুই আসামীর জামিন হয়। দায়রা জজ আদালতে জামিনের আবেদনে বলা হয় আসামীরা ৯ ফেব্রæয়ারী থেকে জেল হাজতে আছে। অথচ ওই তারিখের অনেক পরে এই ঘটনা ঘটে। আবার দায়রা জজ আদালতে নি¤œ আদালতের ১২ মে তারিখের আদেশের বিপরীতে জামিন প্রার্থনা করলেও ওই দিন নি¤œ আদালতে জামিন প্রার্থনা করা হয়েছিল একজনের। কিন্তু জাল জালিয়াতির মাধ্যমে দুইজনের জামিন করেন কুতুব উদ্দিন জুয়েল। পরে বিষয়টি আদালতের নজরে আসলে ভারপ্রাপ্ত দায়রা জজ গত ২ জুন এক আদেশে নবীর হোসেনের জামিন বাতিল করেন। পরে ১০ জুন অপর আসামী মামুন ভূইয়ারও জামিন বাতিল করেন তিনি।

একই সাথে কুতুব উদ্দিন জুয়েলকে কেন তার সনদ বাতিলের জন্য বার কাউন্সিলে সুপারিশ করা হবে না তার কারণ দর্শানোর জন্য তিন কার্যদিবসের মধ্যে জেলা আইনজীবী সমিতির মাধ্যমে জানাতে বলেন। আইনজীবী কুতুব উদ্দিন জুয়েল কারণ দর্শানোর জবাবে তার অজান্তে এই ভুল হয়েছে বলে জবাব প্রদান করলেও এতে বিচারক সন্তুষ্ট না হয়ে বার কাউন্সিলের সচিব বরাবর তার সনদ বাতিলের সুপারিশ করেন।

সনদ বাতিলের সুপারিশে বলা হয় আসামী নবীর হোসেনের জামিন নি¤œ আদালত নামঞ্জুরের বিষয়টি অবগত থাকার পরও বেআইনীভাবে ফ্রড প্র্যাকটিস করে জামিন নিয়ে অপরাধ করা ছাড়াও জাল জালিয়াতির মাধ্যমে নকল সৃষ্টি করে শুদ্ধ হিসাবে ব্যবহার করে সে ফৌজদারী অপরাধ করেছে। একজন জুনিয়র আইনজীবী হিসাবে পেশাজীবনের শুরুতেই আদালতের চোখে ধুলো দেয়াসহ আদালতের কাগজ জাল করার মত ফৌজদারী অপরাধে সম্পৃক্ত করায় ভবিষ্যতে তার পক্ষে আরও বড় ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে আইন পেশার মত মহান একটি পেশাই শুধু কলংকিত হবে না, বার ও বেঞ্চের সমন্বয়ে গঠিত বিচারালয়ের প্রতিও সাধারণ মানুষের আস্থা বিনষ্ট হবে।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি আবুল মনসুর জানান, জালিয়াতির দায়ে সর্বসম্মতিক্রমে তাকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তিনি আজীবনের জন্য হবিগঞ্জ জেলা বার থেকে বহিস্কৃত। এ বিষয়ে বহিস্কৃত আইনজীবি কুতুব উদ্দিন জুলের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি বলেন, ‘আমার প্রতি অবিচার করা হয়েছে। যেহেতু আমার সনদ বাতিলের জন্য বাংলাদেশ বার কাউন্সিলে সুপারিশ করা হয়েছে সেহেতু আলাদা ভাবে হবিগঞ্জ জেলা বার আমার বিরুদ্ধে একই ঘটনায় আলাদা প্রদক্ষেপ নিতে পারে না, আমি ন্যায় বিচার বঞ্চিত’।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জ উন্নয়ন সংস্থা’র পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসনকে অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!