কেমন ই-কমার্স পলিসি চাই আমরা?
হবিগঞ্জ শহরের বাসা দখল নিয়ে সদর থানা ওসি মাসুক আলীর এত আগ্রহ কেন?
হবিগঞ্জ পৌর পাঠাগারে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন
মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি ভোগান্তিতে ছাত্র অভিভাবক
মাধবপুরের ছাতিয়াইন বাজারে আইএফআইসি ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন
মাধবপুরে পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে পুলিশের সভা
শহরে মুন জেনারেল হাসপাতালে র‍্যাবের অভিযান : জরিমানা আদায়
লাখাইয়ে পানিতে ডুবে দুই বোনের মর্মান্তিক মৃত্যৃ
কে হচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কান্ডারী ?
মাধবপুরে অটোরিকশার গ্যারেজগুলো যেন মরণ ফাঁদ : বাড়ছে মৃত্যু 
বাঁচতে চায় লিভার সিরোসিস রোগে আক্রান্ত মাহিদা 
আজমিরীগঞ্জ কাশবনে বাড়ছে দর্শনার্থীদের ভীড়
সুজাতপুর রাস্তার বেহাল দশা : দ্রুত সংস্কারের দাবি
চুনারুঘাটে ১১ প্রবাসীদের সংবর্ধনা দিল সিপাহসালার সাইয়েদ নাসির উদ্দিন (রহ:) মিশন
শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী
previous arrow
next arrow
কেমন ই-কমার্স পলিসি চাই আমরা?
হবিগঞ্জ শহরের বাসা দখল নিয়ে সদর থানা ওসি মাসুক আলীর এত আগ্রহ কেন?
হবিগঞ্জ পৌর পাঠাগারে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন
মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি  ভোগান্তিতে ছাত্র অভিভাবক
মাধবপুরের ছাতিয়াইন বাজারে আইএফআইসি ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন
মাধবপুরে পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে পুলিশের সভা
শহরে মুন জেনারেল হাসপাতালে র‍্যাবের  অভিযান : জরিমানা আদায়
লাখাইয়ে পানিতে ডুবে দুই বোনের মর্মান্তিক মৃত্যৃ
কে হচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কান্ডারী ?
মাধবপুরে অটোরিকশার গ্যারেজগুলো যেন মরণ ফাঁদ  : বাড়ছে মৃত্যু 
বাঁচতে চায় লিভার সিরোসিস রোগে আক্রান্ত মাহিদা 
আজমিরীগঞ্জ কাশবনে বাড়ছে দর্শনার্থীদের ভীড়
সুজাতপুর রাস্তার বেহাল দশা : দ্রুত সংস্কারের দাবি
চুনারুঘাটে ১১ প্রবাসীদের সংবর্ধনা দিল সিপাহসালার সাইয়েদ নাসির উদ্দিন (রহ:) মিশন
শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী
previous arrow
next arrow
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  মতামত  >  বর্তমান নিবন্ধ

মানব পাচার ও আধুনিক দাস প্রথার বলয়

 জুন ২৬, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

অঞ্জন কুমার রায় :  এক টেবিলে ব্ল্যাক কফি, অন্যটিতে কোল্ড ড্রিংকস। চা নিয়ে হাত দুটি ব্যালেন্স করে রেস্টুরেন্টে পুরো দস্তুর মতো কাজ করছে ছটকো। পয়সা পায় না, তবে ৩৯;বেলা খেতে পারে এতেই তৃপ্তির ঢেকুর তুলে। মায়ের হাতে কবে লুচি পায়েস খেয়েছিল মনে নেই ছটকোর। তারপরও মনের মাঝে কোন দু:খ নেই টিভিতে সিনেমা দেখতে পারে বলে! ছটকোর জীবনীতে ক্রীতদাসের ছবি ফুটে উঠে। নিখুঁত করে বলতে গেলে
আধুনিক ক্রীতদাস্ বা গড়ফবৎহ ঝষধাব. তবে সব ছটকোই যে ক্রীতদাস তা কিন্তু নয় বা জবরদস্তিমূলকভাবে কাজ করানোর সঙ্গে আধুনিক ক্রীতদাসের সম্পর্ক অতি নিবিড়। গ্লোবাল স্লেভারি ইনডেক্স সূচক নির্ভর প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা কেভিন ব্যালেস আধুনিক দাসপ্রথার ধারণাটি বিশ্ববাসীর সামনে নিয়ে আসেন।

 

বিশেষজ্ঞদের মতে, কোন কর্মী যদি নির্ভয়ে তার অপছন্দের কাজকে বলার পরিবেশ নিশ্চিত করতে পারে তবেই প্রকৃত স্বাধীনতা অর্জন করতে পারে। কর্মক্ষেত্রে প্রকৃত স্বাধীনতা অর্জন করতে না পারলে ক্রীতদাস হিসেবেই জীবনকে বেছে নিতে হয়। অদ্ভুত ব্যাপার হলো, অনেকেই ছোটবেলা থেকে কর্মক্ষেত্রে জোর জবর দস্তিমূলকভাবে বেড়ে উঠায় ব্যক্তি স্বাধীনতা কি তা ভুলে যায়। বেগার শ্রম, মানব পাচার, বলপূর্বক শ্রমে নিয়োগ, জোর করে বিয়ে দেয়া আধুনিক ক্রীতদাস হিসেবে বিবেচ্য। মানব পাচার হলো দাসত্বের আধুনিকতম পর্যায় যা বাধ্যবাধক শোষণের জন্য মানুষের অবৈধ বাণিজ্য জড়িত।

 

 

 

ছবি : লেখক অঞ্জন রায় এর ছবি

 

 

 

মুলত: সমাজের অতি দরিদ্র্য, নিরক্ষর মানুষরাই মানব পাচারকারী টার্গেটে পরিণত হয়। বিদেশ পাড়ি দেবার কথা বলে মানুষগুলোর মাঝে আশা জাগায়। স্বপ্ন দেখতে শুরু করে চোখ ভরে; অবারিত ধারায় জীবন চলতে শুরু করে সরলমনা মানুষগুলোর প্রথম প্রহরেই। কিন্তু প্রতারণার ফাঁদে পড়ে দুর্বিষহ জীবন নেমে আসে।

নারীদের অবস্থা আরো ভয়াবহ রূপ ধারণ করে। অনেক ক্ষেত্রে তাদেরকে জোরপূর্বক পতিতা বৃত্তি গ্রহণ করতে বাধ্য করা হয় কিংবা গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতে হয়। সেখান থেকে পালিয়ে বাঁচা আরো কঠিন হয়ে পড়ে। বিশেষ করে ইউরোপ কিংবা আমেরিকায় অবৈধ অভিবাসী হিসেবে বসবাস করায় দেশে ফেরত পাঠানোর ভয়ে অনেকটা চোখ বুজে নির্যাতন সহ্য করে।

রুটস: দ্যা সাগা অব অ্যান আমেরিকান ফ্যামিলি উপন্যাসে দাসের উপর নির্যাতনের সেরূপ করুণ চিত্র আমরা খুঁজে পাই। লেখক অ্যালেক্স হ্যালি দাসের নির্মম কাহিনী অত্যন্ত সুনিপুণ ভাবে তুলে ধরেছেন। উপন্যাসে কোন্টাকিন্ট বার বার চেষ্টা করেও দাসত্বের বলয় থেকে নিজেকে মুক্তি দিতে পারেনি। বরং দাসত্ব থেকে মুক্তি পাবার বদলে মালিকের কুঠারের আঘাতে পায়ের পাতার অর্ধেকটুকু হারিয়ে চিরতরে মুক্ত্হারায় কোন্টা! পাচারকৃত ভূক্তভোগিদের বেশি সংখ্যক নিরক্ষর থাকায় দেশগুলোর আইন-কানুন সম্পর্কে ধারণা থাকে না।

ফলে নির্যাতনের মতো অবস্থা থেকে উদ্ধার পেতে কোন আইনি প্রক্রিয়ায় এগোতে পারে না। শিশুদের ক্ষেত্রে আরো ভয়ানক বার্তা প্রকাশ পায়। তাদেরকে জোরপূর্বক মাছ ধরার কাজে নিয়োজিত রাখে। এমনকি, কোন কোন শিশুকে নেতিবাচক মতবাদ বা আদর্শে উদ্বুদ্ধ করা হয়। ফলে এক অন্ধকার অমানিশায় ঘুরপাক খায় মানুষগুলোর ভাগ্যের চাকা। বহু প্রতীক্ষিত স্বপ্নের স্ফূলিঙ্গ ভাসিয়ে দেয় উত্তাল সাগরে।

ইউনাইটেড নেসনস অফিস অন ড্রাগস অ্যা- ক্রাইম(ইউএনওডিসি)- এর তথ্যমতে, প্রতিবছর আন্তর্জাতিক সীমান্তে প্রায় ৮ লক্ষ লোক পাচার হয়। এর মধ্যে ৮০ শতাংশ নারী বা মেয়ে এবং ৫০ শতাংশ নাবালিকা। জাতিসংঘের এক তথ্যমতে, এখনও মানব পাচার বিশ্বের সবচেয়ে বড় এবং লাভজনক পেশার একটি। মানব পাচারকারীরা ভূয়া বিজ্ঞাপন দিয়ে ভূক্তভোগিদের আকৃষ্ট করে। বিশেষ করে নারীদের আকর্ষণীয় বেতনে চাকরি দেবার প্রতিশ্রুতি মানব পাচারকারীদের একটি অপকৌশল মাত্র।

সে প্রতিশ্রুতির ফাঁদে ফেলে নারীদের আকৃষ্ট করে পাচারকারীরা তাদের কূট কৌশলে সফল হয়। উদাহরণস্বরূপ, কম্বোডিয়ার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারী ও শিশু থাইল্য- এবং মালয়েশিয়ায় পাচার করা হয়। দেশগুলোতে নারী পাচারের ট্রানজিট হিসেবেও কম্বোডিয়াকে ব্যবহার করা হয়। যাদের প্রধান উদ্দেশ্য শিশুশ্রম ও বাণিজ্যিক যৌন শোষণ। আমাদের দেশ থেকে যেসব মানব পাচার হয়ে থাকে তার উল্লেখযোগ্য সংখ্যকই নারী।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের তথ্য অনুযায়ী, শুধু ২০২০ সালেই অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দেবার সময় ৩০৩ নারীকে উদ্ধার করা হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক তথ্য মতে, ২০১২ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত ৯ বছরে নারী পাচারের শিকার এমন মামলার সংখ্যা ১ হাজার ৭৯১ টি। মামলার তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে যত মানব পাচার হয়েছে তার মধ্যে ২১ শতাংশ নারী। সম্প্রতি ভারতের বেঙ্গালুরোতে বাংলাদেশের এক তরুণীকে নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল হয় যা আমাদের বিবেককে নাড়া দেয়।

তবে আশার কথা হলো,আধুনিক দাসদের মাঝে নারী ও শিশুদের পুনর্বাসনে কিছু প্রতিষ্ঠান কাজ করে যাচ্ছে। এমনকি তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে এ সকল প্রতিষ্ঠানের ভূমিকাও ইতিবাচক। তারপরও আমাদেরকেই সচেতনতার ব্যাপারে এগিয়ে আসতে হবে। তবেই আধুনিক দাসপ্রথার বলয় থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • Sushanta.D.Gupta-Facebook

    Facebook Pagelike Widget
  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

কেমন ই-কমার্স পলিসি চাই আমরা?

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!