previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  রাজনীতি  >  বর্তমান নিবন্ধ

গৌরব ঐতিহ্য ও সংগ্রামের ৭২ বছর : আজ আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

 জুন ২৩, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

নুরুজ্জামান মানিক :  আজ ২৩ জুন, আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ১৯৪৯ সালের এইদিনে পুরানো ঢাকার ঐতিহ্যবাহী রোজ গার্ডেনে দলটি প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই পাকিস্তানি সামরিক শাসন, জুলুম, অত্যাচার-নির্যাতন ও শোষণের বিরুদ্ধে সব আন্দোলন-
সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে আওয়ামী লীগ।

৫২-এর ভাষা আন্দোলন, ৫৪-এর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, আইয়ুবের সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলন, ৬৬-এর ছয় দফা আন্দোলন, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান ও ৭১-র মহান মুক্তিযুদ্ধে আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব দেয়। স্বাধীনতার পরে ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি দেশে ফিরে বঙ্গবন্ধু যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে সোনার বাংলায় পরিণত করতে কাজ শুরু করেন। কিন্তু ’৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে হত্যা করা হয় স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।এরপর ৩ নভেম্বর জেলখানায় জাতীয় চার নেতাকে হত্যার মাধ্যমে এই সংগঠনটিকে নিশ্চিহ্ন করার অপচেষ্টা চালানো হয়। পরে শুরু হয় সামরিক শাসন। এ সময় স্বৈরাচার-বিরোধী আন্দোলনেও রাজপথে নামে আওয়ামী লীগ।

 

 

ছবি : ঢাকার কে এম দাস লেনে অবস্থিত রোজ গার্ডেন্  । এই বাড়িতেই আওয়ামী লীগের জন্ম হয় ।

১৯৮১ সালের ১৭মে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশে ফিরে আসেন। এ সময় তিনি আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করার উদ্যোগ নেন। আবারও শুরু হয় রাজপথের আন্দোলন সংগ্রাম। নব্বইয়ের স্বৈরাচার-বিরোধী আন্দোলনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে দলটি।১৯৯৬ সালের নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জয়ী হয়ে ২৩ জুন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ফিরে আসে। শেখ হাসিনা সরকার গঠন করে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন। ২০০১ এবং ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারির পর আর এক দফা বিপর্যয় কাটিয়ে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নির্বাচনে তিন-চতুর্থাংশ আসনে বিজয়ী হয়ে আবারও রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পায় দলটি।

 

 

 

 

 

২০১৪ সালে তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ‘রূপকল্প ২০৪১’-এর আলোকে বাংলাদেশকে একটি উন্নত, সমৃদ্ধ, আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মাণের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। এরপর ৩০ ডিসেম্বর ২০০৮ অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জন করে এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনা
চতুর্থ-বারের মত শপথ নেন । প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ। তার সঠিক দিক নির্দেশনায় বাংলাদেশ আজ বিশ্ব দরবারে উন্নয়নের রোল মডেল হিসাবে পরিচিত। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাস লিখলে অবশ্যই আসবে আওয়ামী লীগ ও তার কান্ডারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম । তাই আওয়ামী লীগের ইতিহাস জানা জরুরি ।

চলুন জেনে নেই আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠার ইতিহাস: ’৪৭ সালে ব্রিটিশদের থেকে স্বাধীন হওয়ার পর উর্দুভাষী খাজা নাজিমউদ্দিনকে পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী নিযক্ত করা হলে তিনি সোহরাওয়ার্দী সমর্থক সকলকেই বাদ দিয়ে মন্ত্রীসভা গঠন করেন। পূর্ব পাকিস্তানকে ভালোভাবে কব্জা করার জন্য প্রাদেশিক চিফ সেক্রেটারি নিযুক্ত করা হয় অবাঙালি আজিজ আহমদকে। মেজর জেনারেল (পরে ফিল্ড মার্শাল) আইয়ুব খান আসেন জিওসি হয়ে। পূর্ব পাকিস্তানের সমস্ত উচ্চপদেই বসানো হয় পশ্চিম পাকিস্তানি অথবা ভারত থেকে আগত অবাঙালি আমলাদের। কেন্দ্রে তো বাঙালিদের কোনো অস্তিত্বই ছিল না।রাজধানীসহ রাষ্ট্রের যাবতীয় সদর দফতর স্থাপন করা হয় পশ্চিম পাকিস্তানে। ফলে, ভারত থেকে যেসব পুঁজিপতি পাকিস্তানে চলে এসেছিল তারা স্বভাবতই তাদের পুঁজির স্বার্থে পশ্চিম পাকিস্তানেই স্থিতিলাভ করে। সব মিলিয়ে পাকিস্তানের জন্মলগ্ন থেকেই এটা সুস্পষ্ট হয়ে যায় যে, পূর্ব পাকিস্তানকে পশ্চিম পাকিস্তানের সমান মর্যাদা ও সুযোগ দেয়ার কোনো চিন্তা পাকিস্তানি শাসক-চক্রের নেই। ইতোমধ্যে দক্ষিণ টাঙ্গাইল নির্বাচনী কেন্দ্রে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং আসাম প্রাদেশিক মুসলিম লীগের সাবেক সভাপতি মওলানা ভাসানী সরকারি প্রার্থী খুররম খান পন্নী ও অপর দুজনকে পরাজিত করে বিপুল ভোটাধিক্যে বিজয়ী হন। কিন্তু এ কে ফজলুল হক, সোহরাওয়ার্দী বা মওলানা ভাসানীর মতো কাউকে ক্ষমতার চৌহদ্দির মধ্যে ঢুকতে দেয়া হবে না এই চক্রান্ত করে, নির্বাচনে ত্রুটির ধুয়া তুলে নির্বাচনী ফলাফল বাতিল ঘোষণা করা হয় এবং ভাসানীকে ’৫০ সাল পর্যন্ত নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা করা হয়। ওই আসনে ২৬/৪/৪৯ তারিখে পুননির্বাবচন দেয়া হয়। এবারে খুররম খান পন্নীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অবতীর্ণ হন তরুণ ছাত্রনেতা শামসুল হক। তিনিও বিপুল ভোটাধিক্যে বিজয় লাভ করেন। ভীতসন্ত্রস্ত ক্ষমতাসীন গোষ্ঠী আর কোনো উপনির্বাচন দিতেই সাহস পায় না। এমতাবস্থায় পূর্ব পাকিস্তানের সকল সচেতন মানুষ এই অঞ্চলের জনগণের র্স্বাথরক্ষার জন্য বিকল্প সংগঠনের অপরিহার্যতা অনুভব করে ।[নুরুজ্জামান মানিক, স্বাধীনতা যুদ্ধের অপর নায়কেরা,ফেব্রুয়ারি ২০০৯,পৃ ২৫]

২৩ জুন ১৯৪৯ বেলা তিনটায় কাজী হুমায়ুন বশীরের কে এম দাস লেনস্থ বাসভবন রোজ গার্ডেনের দোতলার হলঘরে মুসলিম লীগের এক কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ২৫০ থেকে ৩০০কর্মী উপস্থিত হন। প্রথম অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন শামসুল হক,আবদুল জব্বার খদ্দর, খয়রত হোসেন, আনোয়ারা খাতুন, আলী আহমদ খান, খন্দকার মোশতাক আহমদ,শওকত আলী, ফজলুল কাদের চৌধুরী, শামসুদ্দিন আহমেদ, আতাউর রহমান খান, আবদুর রশিদ তর্কবাগীশ, আলী আমজাদ খান, ইয়ার মোহম্মদ খান প্রমুখ । এছাড়া মওলানা মোহম্মদ আরিফ চৌধুরী, পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের সহসভাপতি মওলানা শামসুল হক,যুগ্ম সম্পাদক মওলানা এয়াকুব শরীফ, ঢাকার প্রভিন্সিয়াল লাইব্রেরীর মালিক আবদূর রশিদ এবং রেল-শ্রমিক সংগঠন, ছাত্র-সংগঠন ও অন্য নানা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরাও সম্মেলনে যোগ দেন। শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক কিছুক্ষণের জন্য উপস্থিত হয়েছিলেন। তিনি একটা ভাষণও দেন। আতাউর রহমান খান মূল অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন। অনেক আলোচনার পর ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ’ নামে নতুন একটা রাজনৈতিক দল গঠনের প্রস্তাব গৃহীত হয় । সম্মেলনে বিবেচনার জন্য শামসুল হক মূল-দাবী নামে পুস্তিকা আকারে একটি কর্মসূচি উপস্থাপন করেন । শেখ মুজিবুর রহমান কারাগারে আটক থাকার কারণে এই সম্মেলনে উপস্থিত হতে পারেননি । অধিবেশনের শেষ দিকে ৪০ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয় । [মহিউদ্দিন আহমদ,আওয়ামী লীগের উত্থানপর্ব ১৯৪৮-১৯৭০,পৃ ৪১-৪৪]

কমিটির কর্মকর্তাদের মধ্যে ছিলেন মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী (সভাপতি), আতাউর রহমান খান, সাখাওয়াত হোসেন, আলী আহমেদ খান,আলী আমজাদ খান ও আবদুস সালাম খান ( সহ সভাপতি),শামসুল হক (সাধারণ সম্পাদক ), শেখ মুজিবুর রহমান (যুগ্ম সম্পাদক ), খন্দকার মোশতাক আহমদ ও এ কে এম রফিকুল হোসেন (সহ-সম্পাদক) এবং ইয়ার মোহাম্মদ খান (কোষাধ্যক্ষ) ।[অলি আহাদ, জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫ থেকে ৭৫, পৃ ৯৮ ; মিজানুর রহমান চৌধুরী, রাজনীতির তিনকাল, পৃ ৩৪৪]

উল্লেখ্য, ১৯৫৫ সালের ২১-২৩ অক্টোবর ঢাকার সদরঘাটে রূপমহল সিনেমা হলে অনুষ্ঠিত পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে দলের নাম থেকে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দিয়ে ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ’ রাখা হয়।[মহিউদ্দিন আহমদ,প্রাগুক্ত, পৃ ৭৯-৮০]

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সার্ভারে ৪২০ জন টিকা গ্রহীতার তথ্যের কোন হদিস নেই

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!