previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

শায়েস্তানগর থেকে মশাজান পর্যন্ত পইলের রাস্তার কালভার্টের অ্যাপ্রোচ এর কাজ শুরু

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা সংবাদ প্রকাশের পর

 জুন ৯, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

এম.এ.রাজা :   দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় গত ২০মে শায়েস্তানগর থেকে মশাজান পর্যন্ত পইলের রাস্তার কালভার্টের অ্যাপ্রোচ এর কাজের অগ্রগতি নেই।এই শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর, গত ৬ই জুন থেকে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কালভার্টের অ্যাপ্রচ এর নির্মাণ কাজ শুরু করেছে।
শায়েস্তানগর থেকে মশাজান পর্যন্ত পইলের রাস্তা নির্মাণে একাধিক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ এর দায় মাথায় নিয়ে  রাস্তাটি সংস্কার কাজ শেষ হলেও,এত দিন করা হয়নি তিনটি কালভার্টের অ্যাপ্রোচ এর কাজ। এতে করে ভোগান্তিতে পড়েছিলেন হবিগঞ্জ শহরের খোয়াই নদীর পূর্ব পাশের তিন-চারটি গ্রামে  বসবাসকারী লক্ষাধিক মানুষ।
এলাকাবাসীর অভিযোগ দীর্ঘদিনের কাঙ্ক্ষিত রাস্তাটির সংস্কার কাজ ভিক্ষুক আর মানববন্ধনের মাধ্যমে শেষ হলেও। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান গাফিলতি করে ফেলে রেখেছিল তিনটি কালভার্টের অ্যাপ্রোচ এর কাজ। এতে করে কালভার্টের দুই পাশে উঁচু-নিচু গর্তের সৃষ্টি হয়েছে প্রায় সময়ই ছোটখাট দুর্ঘটনা ঘটতো। গাড়ি চলার সময় চাকার সাথে মাঠি লেগে ধুলো বালি উড়ার কারণে ওই রাস্তায় যাতায়াতকারী যাত্রী ও চালকরা আক্রান্ত হতেন নানা রোগে।

ছবি : সংবাদ প্রকাশের শায়েস্তানগর থেকে মশাজান পর্যন্ত পইলের রাস্তার কালভার্টের অ্যাপ্রোচ এর কাজ শুরু

বৃষ্টি বাদলের দিনে জনদুর্ভোগ আরো কয়েকগুণ বেড়ে হয়ে যেত অভিযোগ ওই রাস্তায় যাতায়াতকারীদের। কালভার্ট গুলোর দুইপাশের গর্তগুলোতে বৃষ্টির পানি জমে সৃষ্টি হয়ে থাকতো জনদূরভোগের। এতে করে ওই রাস্তায় চলাচল কারী শত শত টমটম, সিএনজি, রিকশা প্রায় সময়ই দুর্ঘটনায় কবলিত হয়তো। এমনকি পায়ে হেঁটে চলাচল কারী স্থানীয়  বাসিন্দারাও বৃষ্টির দিনে পা পিছলে পড়ে হাত পা ভাঙার মতো দূঘটনাও ঘটেছে।
এছাড়াও শায়েস্তানগর থেকে মশাজান পর্যন্ত পইলের রাস্তার বিভিন্ন জায়গায় ভালো ভাবে রুলার না করার কারণে।প্রায় জায়গাতেই উঁচু-নিচু হয়ে আছে। বৃষ্টির দিনে নিচু জায়গা গুলোতে পানি জমে যায়।এতে করে অল্প দিনেই রাস্তা ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন সচেতন মহল।
যদিও ইতিপূর্বে  এই রাস্তা সংস্কারে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে বেশ কয়েকবার স্থানীয় বাসিন্দারা বিক্ষোভ মানববন্ধন ও মিছিল করেছেন এ বিষয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় নিউজও প্রকাশ করা হয়েছে। তবে আন্দোলনকারীদের দাবি তাদের আন্দোলন এবং পত্রপত্রিকার নিউজ এর কারণে রাস্তার বাকি ৬০ভাগ কাজ আগের তুলনায় অনেকটা ভালো হয়েছে।
জানা যায়,হবিগঞ্জ সদর উপজেলার শায়েস্তানগর বাজার থেকে মশাজান বাজার পর্যন্ত প্রায় ৭ কিলোমিটার রাস্তার মধ্যে তিনটি আরসিসি বক্স কালভার্ট সহ। এলজিইডি হবিগঞ্জ-এর আওতায় আরআইআইপি-১১ প্রজেক্টের মাধ্যমে মেরামত কাজ শুর হয়। ৭ কোটি ৩৬ লাখ ৮৫ হাজার ১৩৩ টাকার মূল্যের কাজটি পায় ফজলুল রহমান এন্ড লিওন এন্টারপ্রাইজ। যার স্বত্বাধিকারী হাজী মোঃ দুলাল (ওরফে রাডার দুলাল)। কাজের মেয়াদ ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২০ সালের ৮ নভেম্বর পর্যন্ত মেয়াদ ছিল।
পরবর্তীতে মেয়াদ বাড়িয়ে ৩০ মে ২০২১ সাল পর্যন্ত করা হয়েছে। এরই মধ্যে রাস্তার কাজ প্রায় শেষ হয়েছে। তিনটি আরসিসি বক্স কালভার্টের সংস্কার কাজ জোড়াতালি দিয়ে শেষ করা হলেও করা হয়নি অ্যাপ্রচ এর কাজ। এ নিয়ে ওই রাস্তা দিয়ে যাতায়াতকারীদের মধ্যে অসন্তুষ্টি দেখা দিয়েছিল। দেরিতে হলেও অ্যাপ্রচ এর নির্মাণকাজ শুরু হওয়ায় খুশি ওই সব এলাকার মানুষ।
জাহাঙ্গীর নামের স্থানীয় বাসিন্দা এক ব্যক্তি জানান, আন্দোলন ও মানববন্ধনের মাধ্যমে পইল সহ খোয়াই নদীর পূর্ব পাড়ের বাসিন্দা  মানুষদের জন্য একটি সুন্দর রাস্তা হয়েছে। এখন যদি কালভার্ট গুলোর অ্যাপ্রচ এর কাজ সুন্দর ভাবে শেষ হয় তাহলে দীর্ঘদিনের রাস্তা নিয়ে দুর্ভোগ অনেকাংশেই কমে যাবে।
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ : অনুমোদনের তিন দিনের মাথায় কমিটি পুনর্গঠন

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!