previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শায়েস্তাগঞ্জ  >  বর্তমান নিবন্ধ

র‍্যাবের অভিযানে ৬ টি চোরাই সিএনজিসহ সংঘবদ্ধ গাড়ি চোর চক্রের ১০ সদস্য আটক

শুক্রবার (৪জুন) সকাল ১১ টায় র‍্যাব-৯ সিপিসি-১ শায়েস্তাগঞ্জ এর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান মেজর সৌরভ মোঃ অসীম শাতিল

 জুন ৪, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

মুহিন শিপনঃ  সিলেট বিভাগের বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে ৬টি চোরাই সিএনজি অটোরিক্সাসহ সংঘবদ্ধ গাড়ি চোর চক্রের ১০ সদস্যকে আটক করেছে র‍্যাব-৯ সিপিসি-১।
বৃহস্পতিবার (৩জুন) দিনব্যাপী সিলেট বিভাগের  বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ৬ টি চোরাই সিএনজি অটোরিক্সা উদ্ধার করা হয়।
আটক সিএনজি অটোরিক্সা চোর চক্রের ১০ সদস্য হল- শামসু মিয়া (৪৫), মহিউদ্দিন (২৬), কামরুল (২৪), মানিক মিয়া (৩৭), হৃদয় মিয়া (২১), অনুকুল রায় (১৯), মশিউর রহমান (৩০), মঈন উদ্দিন (২৮), শফিকুল ইসলাম (৩৬), সেলিম আহম্মেদ মুন্না (৩০)
শুক্রবার (৪জুন) সকাল ১১ টায় র‍্যাব-৯ সিপিসি-১ শায়েস্তাগঞ্জ এর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান মেজর সৌরভ মোঃ অসীম শাতিল।

ছবি : সিএনজি অটোরিক্সাসহ সংঘবদ্ধ গাড়ি চোর চক্রের ১০ সদস্যকে আটক করেছে র‍্যাব-৯ সিপিসি-১

র‍্যাব সূত্রে জানা যায়, গত ২৮ এপ্রিলে মাধবপুর এলাকা থেকে সিএনজি চুরির অভিযোগ পাওয়ার পর গত বৃহস্পতিবার চোর চক্রের সদস্য শামসু মিয়া (৪৫) কে আটক করে র‍্যাব। পরবর্তীতে তার দেওয়া তথ্যমতে চোরাই ৬ টি সিএনজি সহ চোর চক্রের বাকি সদস্যদের ও আটক করা হয়।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, আটককৃত  মহিউদ্দিন এ সকল চুরি/ছিনতাই এর মূল পরিকল্পনাকারী। এ ক্ষেত্রে মহিউদ্দিন নাম্বার বিহীন সিএনজি টার্গেট হিসাবে বাছাই করে এবং টার্গেট এর গ্যারেজ চিহ্নিত করে। টার্গেট এবং গ্যারেজ চিহ্নিত করার পর আসামী মহিউদ্দিন চুরির প্রস্তাব মানিককে দেয়। আাসামী মানিক চোর চক্রের মূল লিডার।
আসামী মোঃ মহিউদ্দিন এর দেয়া প্রস্তাব অনুযায়ী আসামী মানিক প্রাথমিক ভাবে কিছুদিন টার্গেট এবং গ্যারেজ পর্যবেক্ষণ করে।অতঃপর চুরির দিন নির্ধারণ করে। চুরি করার ক্ষেত্রে মানিক তার দলের প্রধান অস্ত্র হিসাবে হৃদয়কে ব্যবহার করে। হৃদয় যে কোন যানবাহন চাবি ছাড়া ইঞ্জিন চালু করতে পারদর্শী। হৃদয় ইঞ্জিন চালু করে দেয়ার পর সে নিজে এবং আসামী মশিউর এবং দলের অন্যান্য সদস্যরা যানবাহন সমূহ চালিয়ে মানিকের পূর্ব নিধার্রীত স্থানে নিয়ে আসে।

ছবি : চুরি হওয়া ৬টি সিএনজি অটোরিক্সা উদ্ধার করেছে র‍্যাব-৯ সিপিসি-১ 

মানিক এর নেতৃত্বে চুরি/ছিনতাই অপরাধ কার্যক্রম সংঘটিত হওয়ার পর তারা আবার প্রধান সমন্বয়কারী মহিউদ্দিন এর সাথে যোগাযোগ করে। তারপর মহিউদ্দিনই চোরাই গাড়ী বিক্রির অন্যতম সদস্য কামরুল এর সাথে  যোগাযোগ করে। মহিউদ্দিনের মাধ্যমে চোরাই যানবাহন সমূহ কামরুল গ্রহণ করে এবং উক্ত যানবাহন সমূহ চোরাই পথে বিক্রির প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে। চোরাই পথে যানবাহনগুলো বিক্রির পর  বিক্রিত অর্থের কিছু অংশ মহিউদ্দিনের মাধ্যমে চুরি ছিনতাই গ্রুপের মূল লিডার মানিক এর হাতে আসে। যা পরবর্তীতে মানিক তার গ্রুপের অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেয়। সিএনজি চুরি যাওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যেই এ কার্যক্রম সম্পন্ন হয়।
সাধারণত প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকা মূল্যের একটি সিএনজি কামরুল এক লক্ষ ত্রিশ হাজার টাকা থেকে এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকার মধ্যে বিক্রি করে থাকে। এক্ষেত্রে বিক্রয়মূল্যের দুই-তৃতীয়াংশ মহিউদ্দিন এবং কামরুল নিয়ে থাকে এবং এক-তৃতীয়াংশ বা তার কিছু কম বাকি সদস্যরা পেয়ে থাকে।
আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

শায়েস্তাগঞ্জে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন : জরিমানা আদায় 

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!