previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

জেলা জুড়ে নাম সর্বস্ব সমবায় সমিতির নামে চলছে অবৈধ লেনদেন

অ-নিবন্ধনকৃত সমবায় সমিতির মাধ্যমে লেনদেন করলে তার দায়-দায়িত্ব তাকেই নিতে হবে-জেলা সমবায় কর্মকর্তা তানিয়া সুলতানা

 জুন ২, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

রায়হান উদ্দিন সুমন :   হবিগঞ্জ জেলাসহ প্রায় সবকটি উপজেলা জুড়ে ব্যাঁঙ্গের ছাতার মত গড়ে উঠেছে নামে-বেনামে অসংখ্য সমবায় সমিতি। আর এসব প্রতিষ্ঠানের আড়ালে চলছে সমবায়ের নামে দাদন ব্যবসার মহোৎসব। চালাচ্ছে অবৈধ লেনদেন। এসব সমিতি থেকে টাকা ঋণ নিয়ে অনেকেই হচ্ছেন সর্বশান্ত। কেউ কেউ ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে ঘর-বাড়ি ও ব্যবসা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

দ্বিগুন মুনাফার লোভ দেখিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। সরকারী নিয়মনীতিকে তোয়াক্কা না করে জেলাসহ প্রায় সবকটি উপজেলার অনেক অ-নিবন্ধনকৃত সমবায়গুলো অধিকাংশ অনিয়মের মধ্যে দিয়েই পরিচালিত হচ্ছে। সমাজের কিছু স্বার্থন্বেশী অসাধু অর্থলোভী ব্যক্তিরা প্রথমে তাদের আপনজন ও নিজ এলাকার পরিচিত জনদের ভোটার আইডির ফটোকপি ও ছবি সংগ্রহ করে তাদের মনোনীত ব্যক্তিদের সভাপতি ও সম্পাদক বানিয়ে তাদের মাধ্যমেই নামে-বেনামে সমিতি গঠন করে থাকে।

 

 

 

 

 

সমবায় সমিতিকে নিজেদের ব্যক্তিগত প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়ে শুরু করে তাদের বিভিন্ন কার্যক্রম। সমবায় সমিতির নিয়ম অনুসারে সমিতির সদস্যদের মধ্যে সঞ্চয়, শেয়ার, বীমা, ঋণ কার্যক্রম করতে পারবেন। কিন্তু হাতে গোনা কিছু সমিতি ছাড়া অন্যসব সমিতিগুলো সদস্যদের বাহিরে ঋণ প্রদান করে থাকে। আবার অনেকে সমিতির নির্দেশিকা না মেনে নির্দিষ্ট কার্য এলাকার বাহিরে ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি বলেন,কিছু সমিতি সমবায় নীতিকে অমান্য করে অসহায়ত্বয়ের সুযোগ নিয়ে গ্রাহকদের মধ্যে উচ্চ হারে ঋণ দিয়ে থাকেন। কিছু সমিতি সরাসরি দাদন বা সুদের ব্যবসার সাথে জড়িত। সদর ইউনিয়নের একাধিক ব্যক্তি বলেন তার এলাকার বেশ কিছু মানুষ ঐসব সমিতি থেকে সুদের টাকা নিয়ে সর্বশান্ত হয়ে বাড়ী-ঘর ছেড়ে পরিবার পরিজন নিয়ে পালিয়ে গেছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। আবার কিছু সমিতির পরিচালক বা সভাপতিগণ অধিক মুনাফা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বিত্তশালী ও সমাজের সাধারণ মানুষদের নিকট থেকে এককালীন চেক/পাশবহির মাধ্যমে আমানত গ্রহন করে থাকে। কিন্তু সময় মত আমানতের টাকা ফেরত না দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে নিজেরাই উধাও হয়ে যায়। আবার ফিরে এসে দেই-দিচ্ছি দিব বলে নানা তাল বাহানা করে থাকে।

এতে সঞ্চয় আমানতকারী সাধারণ গ্রাহকেরা বিপাকে পড়েছে। এ বিষয়ে একাধিক সমিতির সভাপতিদের সাথে কথা বললে তারা কোন সদুত্তর না দিয়ে বিষয়টি এড়িয়ে যান।

এ বিষয়ে জেলা সমবায় কর্মকতা তানিয়া সুলতানা দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,জেলাসহ সবকটি উপজেলায় আামদের নিবন্ধিত সমবায় সমিতি রয়েছে ৯৮৪টি। এগুলোর নামে এধরনের কোন অভিযোগ নেই। সাইনবোর্ড বা তাদের টাকা প্রদানের বইয়ে যদি সমবায় শব্দটি থেকে থাকে তাহলে সেই সব অবৈধ সমিটির বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। অভিযোগটি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। তবে নিবন্ধন ছাড়া সমিতির বিরুদ্ধে কোনে অভিযোগ থাকলে সেটা আমাদের দেখার বিষয় না।

তিনি আরো বলেন অ-নিবন্ধনকৃত সমবায় সমিতির মাধ্যমে লেনদেন করলে তার দায়-দায়িত্ব তাকেই নিতে হবে।

সমাজের সচেতন মহলের দাবী,এইসব অবৈধ সমবায় সমিতির নামে যারা দাদন ব্যবসা করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

রায়হান উদ্দিন সুমন
০১৭১৬-২৩০৩৪০
পহেলা জুন ২০২১

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

অবশেষে শেষ হয়েছে শায়েস্তানগর থেকে মশাজান পর্যন্ত পইলের রাস্তা নির্মাণ কাজ

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!