previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

অস্তিত্বহীন প্রেস ও সাংবাদিক শোয়েব চৌধুরীর বক্তব্য

একজন জেলা প্রশাসক অস্তিত্বহীন প্রেসের নামে ডিক্লেয়ারেশন দেবেন তা কী করে সম্ভব। অফিসে কাগজপত্র ও এর অস্তিত্ব দেখেই অনুমোদন দিয়েছেন

 মে ২৯, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

বিশেষ প্রতিনিধি  :  গত কয়েকদিন ধরে হবিগঞ্জের কয়েকটি দৈনিকে ‘অস্তিত্বহীন’ সোনালী প্রিন্টিং প্রেসে ‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’ পত্রিকা ছাপা হচ্ছে সংক্রান্ত সংবাদ নিশ্চয়ই আপনার/আপনাদের চোখে পড়েছে। সংগে আমার ও দৈনিক আমার হবিগঞ্জ সম্পাদকের ছবিও জুড়ে দেয়া হয়েছে সংবাদে। এতে বলা হয়, হবিগঞ্জের নব নির্বাচিত মেয়র আতাউর রহমান সেলিম জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ করেছেন যে, সোনালী প্রিন্টিং প্রেসের নামে হবিগঞ্জ শহরে কোন প্রেস নেই।
আমি ও পত্রিকার সম্পাদক জেলা প্রশাসকের সম্মুখে পত্রিকা ছাপার ব্যাপারে ‘বি ফরমে’যে স্বাক্ষর করেছি তা জালিয়াতি করা হয়েছে। এজন্য মেয়র সেলিমসহ গোটা হবিগঞ্জবাসীর মনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে । তিনি এখানেই থেমে যাননি। অভিযোগে আরো বলেছেন, পৌরসভায় প্রেসের কোন ট্রেড লাইসেন্সও নেই।

ছবি : অফিসে কাগজপত্র ও প্রেসের অস্তিত্ব দেখেই অনুমোদন দিচ্ছেন তৎকালীন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান

এ প্রসঙ্গে আমি সম্মানিত পাঠককে জানাতে চাই সোনালী প্রিন্টিং প্রেসটি প্রায় ৩০ বছর আগে তৎকালীন সাপ্তাহিক দৃষ্টিকোন প্রকাশের জন্য কেনা হয়েছিল। ওই সময়ে প্রেসটি ছিল বদিউজ্জামান সড়কে। বর্তমানে পুরান মুন্সেফী রোডে (শংকর বস্রালয়ের কাছে) এর অবস্থান।
আমার চাচা নোমান চৌধুরী হবিগঞ্জের বহুপুরনো সাপ্তাহিক দৃষ্টিকোণ ও দৈনিক প্রভাকর পত্রিকা সম্পাদনা ও প্রেসটি পরিচালনা করতেন। তিনি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ও যথেষ্ট দায়িত্বশীল ছিলেন। যার কারনে পত্রিকার পাশাপাশি ওই সময়ে জেলা প্রশাসকের অফিস থেকে এই প্রেসের নামে তিনি ডিক্লেয়ারেশনও নিয়েছেন ।
২০১৬ সালে ৫ এপ্রিল সকালে হঠাৎ চাচার মৃত্যু হলে আমাদের একান্নবর্তী পরিবারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমি পত্রিকা ও প্রেস পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহন করি। কারন আমার একমাত্র চাচাতো ভাই বর্তমানে লন্ডনের স্বনামধন্য নর্দামব্রিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত । চাচী ওই সময়ে সরকারি চাকুরী করতেন। বর্তমানে শয্যাশায়ী। এমনকি আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর পৌরসভা থেকে সোনালী প্রিন্টিং প্রেসের নাম ও স্থান উল্লেখ করে ট্রেড লাইসেন্সও করি। মেয়র পৌরসভায় আমার ট্রেড লাইসেন্স আছে নিশ্চিত হওয়া সত্বেও তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে যে অসত্য অভিযোগটি করেছেন যা দুঃখজনক, অনভিপ্রেত ও লজ্জাজনক ।
তিনি কি কারনে আমার উপর হঠাৎ অসন্তুষ্ট হয়ে এই নির্জলা অসত্য অভিযোগ এনেছেন তা বোধগম্য নয়। তবে সংবাদ পড়ে বুঝতে অসুবিধা হয়নি যে, দৈনিক আমার হবিগঞ্জের বিভিন্ন সংবাদ নিয়ে তিনি ক্ষুব্দ।তাই পত্রিকাটি বন্ধ করারও দাবি করা হয়েছে নিউজে। তাই বলে অসত্যের ঢাল ব্যবহার করে প্রেসের অস্তিত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলবেন?
একজন জেলা প্রশাসক অস্তিত্বহীন প্রেসের নামে ডিক্লেয়ারেশন দেবেন তা কী করে সম্ভব। অফিসে কাগজপত্র ও এর অস্তিত্ব দেখেই অনুমোদন দিয়েছেন। জেলা প্রশাসক হওয়া খুব সহজ নয়। তিনি আমার বা সুশান্তের আত্নীয় ছিলেন না। চাকরির মায়া সকলেরই আছে।
প্রায় সপ্তাহখানেক আগেও মেয়রের সাথে চা খেয়েছি। তখনও তিনি এ বিষয়ে আমার নিকট থেকে জেনে নিতে পারতেন।

ছবি : সোনালী প্রিন্টিং প্রেসের নামে ডিক্লারেশনের কপি

আমার স্বীকার করতে দ্বিধা নেই যে, করোনা প্রাদুর্ভাব ,আমার পরিবারের একাধিক সদস্যের মৃত্যুসহ বিভিন্ন ঝামেলার কারণে আমি ট্রেড লাইসেন্সটি নবায়ন (রিনিউ) করতে পারিনি। ইতোমধ্যে নবায়নের জন্য আবেদন করা সত্বেও তিনি নবায়ন না করতে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরকে মৌখিকভাবে নির্দেশ দিয়েছেন। আমাকে কেন লাইসেন্সটি নবায়নের সুযোগ দেবেন না জানতে চাই। আইনতো তা বলছেনা। তা হলে নব নির্বাচিত মেয়র সাহেব কী আমার মত সাধারন মানুষকে সেবার করার মনমানসিকতা চেয়ারে বসতে না বসতেই হারিয়ে ফেলেছেন? নতুবা অজ্ঞাত কোন ব্যক্তিগত জেদের আক্রোশ মেটাচ্ছেন? তা ও বুঝতে পারছিনা।
স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদকগণও এই প্রেসের আদিঅন্ত ইতিহাস জানেন। তাদের কেউ কেউ হবিগনজের সিনিয়র সাংবাদিক আমার চাচার এই ছাপাখানার পাশের কক্ষে বসেই দুই লাইন লেখার শিক্ষাও নিয়েছেন। তাদের কেউ কেউ চাচাকে সাংবাদিকতার গুরুও হিসেবেও মানেন। এতদ সবকিছু জানা স্বত্বেও সংবাদ প্রকাশের আগে আমার বক্তব্য নেয়াটা দায়িত্ব বোধ করেননি! একজন সংবাদ কর্মী হিসেবে তা-ই তো শিখেছি যে, যার বিরুদ্ধে নিউজ করা হবে তার বক্তব্য অবশ্যই নিতে হয়। যদি ভুল বলে থাকি তা হলে সাংবাদিকতা নীতিমালা গুগলেই দেখতে পারেন।
ষ্টাফ রির্পোটার উল্লেখ করে সব কটি পত্রিকায় একই ভাষা একই শব্দের ব্যবহার দেখে বুঝার উপায় নেই যে, এটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি, নিউজ নাকি বিজ্ঞাপন। সাংবাদিকতার নীতিমালা ভংগ করে এধরণের সংবাদ প্রকাশের দায় সম্পাদক কোনভাবেই এড়াতে পারেন না। আইনের দৃষ্টিতে মানহানিকরও বটে। ইলেকট্রনিক ডিভাইসে তা প্রকাশ করাও যে গুরুতর অপরাধ তাও বোধ করি মনে করিয়ে দিতে হবেনা। আশা করি অভিযোগটি যে বিভ্রান্তিকর, অপমানজনক ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত এ সম্পর্কে আপনি/আপনারা সংক্ষিপ্ত ধারনা পেয়েছেন।
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ : অনুমোদনের তিন দিনের মাথায় কমিটি পুনর্গঠন

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!