previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

“মঞ্জুরী ভবন” ভাংচুর, লুটপাট-ডাকাতির পরিকল্পক আবু জাহির এমপি নিজেই 

 এপ্রিল ২৯, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার।। দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্তের  শ্বশুর অমূল্য চন্দ্র দাশের “মঞ্জুরী ভবন” ভাংচুর, লুটপাট ও ভবনের ৬ টি ফ্লাট ডাকাতির মূল পরিকল্পনা করেছিলেন আবু জাহির এমপি নিজেই। দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৫ সালে হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী আতাউর রহমান সেলিমের পরাজয়ের পরপর সুশান্ত দাস গুপ্তের এক ফেইসবুক পোস্টের সূত্র ধরে আবু জাহির এমপি সুশান্ত দাসের শ্বশুর অমূল্য চন্দ্র দাশকে তার নিজ বাসায় ডেকে নিয়ে হূমকী দিয়েছিলেন, আপনার বাসা বাড়ি যদি আমার আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কর্মীরা ভেংগে চুরমার করে দেয়, তাহলে আপনার কী করার আছে? সেদিন অমূল্য চন্দ্র দাশ কোনক্রমে তার বাসা থেকে প্রাণ নিয়ে বেঁচে ফিরেছিলেন। লোকমুখে প্রচলিত আছে, সেই ঘটনার প্রতিশোধ নিতেই সুশান্ত যুক্তরাজ্যের আয়েশী জীবন ছেড়ে হবিগঞ্জের রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছেন। শুধু তাই নয়, হবিগঞ্জ-৩ আসন থেকে গত সংসদীয় নির্বাচনে এমপি পদে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন ও চেয়েছিলেন।
অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৫ সালে হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আতাউর রহমান সেলিম নৌকা মার্কা নিয়ে পরাজিত হওয়ার পর দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক ও লন্ডন আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্ত এক ফেইসবুক পোস্টে লিখেছিলেন, ” আতাউর রহমান সেলিম ভাইকে কেন পৌরসভা নির্বাচনে ফেইল করতে হলো। সকল দায়ভার হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের।  তাদের পদত্যাগ করা উচিত।” এই পোস্ট দেওয়ার পর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু জাহির এমপি সুশান্ত দাস গুপ্তের পিতা সোনামনি দাস গুপ্তকে ফোন করে ডেকে এনে হুমকী দেওয়ার জন্য তৎকালীন সাধারণ  সম্পাদক আব্দুল মজিদ খান এমপিকে পরামর্শ দিলে তিনি তা অগ্রাহ্য করেন।
পরে আবু জাহির এমপি নিজেই আওয়ামী লীগ নেতা প্রবাল মোদক ঝন্টুকে দিয়ে সুশান্ত দাস গুপ্তের শ্বশুর অমূল্য চন্দ্র দাশকে তার নিজের বাসায় ডেকে পাঠান। সন্ধ্যার সময় যখন অমূল্য দাশকে আবু জাহির এমপির বাসায় আনানো হয় তখন উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা সুমংগল দাশ, অনুপ দেব মনা, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি সৈয়দ কামরুল ইসলাম সহ আরো অনেকে। সেদিনের ভয়াবহতার কথা বলতে গিয়ে উপস্থিত নেতাদের একজন জানান, অমূল্য চন্দ্র দাশকে আবু জাহির এমপি অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন। সু্শান্ত দাস গুপ্তকে অনতিবিলম্বে ফেইসবুক পোস্ট মুছে দেওয়ার জন্য অমূল্য দাশকে নির্দেশ দেওয়া হয়।
উপস্থিত নেতৃবৃন্দের সম্মুখে আবু জাহির এমপি অমূল্য দাশকে বলেন, তোর বাসা আমার নেতাকর্মীরা ভাংচুর করার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে আছে। আমি একটু ইশারা দিলে তোর বাসা তছনছ করে দিবে। এমন ভয়াবহ অবস্থায় সুশান্ত দাসের শ্বশুরকে অন্যান্য নেতৃবৃন্দ অভয় দিয়ে আবু জাহিরের বাসা থেকে উদ্ধার করে তার নিজের বাসায় পৌঁছে দেন।
দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, অমূল্য চন্দ্র দাশের বাসা ভাংচুর করার ২০১৫ সালের সেই হূমকী ই ২০২১ সালে বাস্তবায়ন করলেন আবু জাহির এমপি। তাও আবার যার সমব্যথী হয়ে সুশান্ত দাস গুপ্ত পোস্ট লিখেছিলেন, সেই আতাউর রহমান সেলিমের  নেতৃত্বেই।
২০১৫ সালের সেই ঘটনার সাক্ষীদের একজন বলেন, মঞ্জুরী ভবন ভাংচুর,লুটপাট, ডাকাতির পুরো পরিকল্পনা আবু জাহির এমপির নিজেরই দীর্ঘদিনের খায়েশ, যা বাস্তবায়ন করলেন হবিগঞ্জ পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র আতাউর রহমান সেলিম।
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

“সাস্টিয়ান হবিগঞ্জের” উদ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!