previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শীর্ষ সংবাদ  >  বর্তমান নিবন্ধ

মোটরসাইকেল চুরি-ডাকাতি ও পুলিশ অ্যসল্ট মামলার আসামি ডিসি এসপি অফিসে

 এপ্রিল ২৯, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: মোটরসাইকেল চুরি-ডাকাতি ও পুলিশ অ্যসল্ট মামলার আসামি ডিসি এসপি অফিসে।

 

স্টাফ রিপোর্টার : আইনের প্রতি কি বিন্দু পরিমান সম্মান নাই? হবিগঞ্জ জেলাবাসীর প্রতি কি তাদের কোন দায়িত্ব সচেতনতা নেই? বাংলাদেশ সরকার যেখানে লকডাউন ঘোষনা করেছে সেখানে তারা কিভাবে একসাথে জড়ো হয়ে মিছিল মিটিং মানববন্ধন করে? বলছি হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সম্প্রতি দুবাই ফেরত সাইদুর রহমানের কথা! পাশ্ববর্তী দেশ ইন্ডিয়ার অনেক মানুষ দুবাই বসবাস করে করোনার জন্য অনেক ইন্ডিয়ান দুবাই চলে গিয়েছে। আর সেখানে থেকে দেশে ফেরত আসলেন জেলা ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সভাপতি সাইদুর রহমান। মানছেন না কোন স্বাস্থ্যবিধি করে যাচ্ছেন সভা সমাবেশ মানববন্ধন কর্মসূচি। অথচ সরকারের নিয়ম অনুযায়ী তার ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা। তার সংস্পর্শে ছিল হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলার নেতাকর্মী।

দুবাই ফেরত সাইদুর রহমান যদি করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয় তাহলে কি রক্ষা করা যাবে হবিগঞ্জবাসীকে ! প্রশ্ন রয়ে গেল। জেলা ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সভাপতি সাইদুর রহমান দিনে দুপুরে মোটরসাইকেল ডাকাতি মামলার আসামি। যার বাড়ি থেকে চুরি হওয়া মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে সেই সোনাই মিয়া ১৬৪ ধারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানিয়েছেন ওই মোটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত সাইদুরের নাম। বিদেশ ফেরত সাইদুর রহমান হোম কোয়ারেন্টাইনে না থেকে ও ডাকাতি মামলার আসামি সাইদুর রহমান কি করে প্রকাশে মিছিল-মিটিং করে যাচ্ছেন এমনকি পুলিশ সুপারের কাছে গিয়ে স্বারকলিপি প্রেরণ করেছেন সেটা বোধগম্য নয়।

অন্যদিকে জেলা ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহি সম্প্রতি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা অফিস ও মঞ্জুরি ভবনে হামলা ভাংচুর ও লুটপাটের সাথে জড়িত এবং পুলিশের উপর হামলা করার কারণে পুলিশ অ্যাসল্ট মামলার এজাহার নামীয় আসামি। আবার মোটরসাইকেল চুরির সাথেও সে জড়িত। এখন প্রশ্ন উঠেছে একজন এজাহার নামীয় আসামি এবং হামলা ভাংচুর ও লুটপাট মামলায় আসামি হওয়া সত্ত্বেও সে কি করে প্রকাশে মিছিল মিটিং এমনকি ডিসি অফিসে দায়িত্বপ্রাপ্তদের কাছে স্বারক লিপি দিতে যায়। বিষয়টি সাধারণ মানুষের মনে দাগ কেটে যাচ্ছে।

তাদের প্রশ্ন আইনকি শুধু সাধারণ পাবলিকের জন্য ? সরকার দলীয় নেতারা যদি কোনো অন্যায় করে তাদেরকে কি আইনের আওতায় আনা যাবে না? নাকি প্রভাবশালী দলের নেতা হওয়ায় পার পেয়ে যাবে ? প্রশ্ন থেকে গেলে।

বিষয়টি নিয়ে কথা হল জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ বিপিএম-পিপিএম এর সাথে। তিনি জানান, সে তো এজাহারভুক্ত আসামি না। তদন্ত করে দেখতে হবে। তদন্তের আগে তাকে আসামি বলা যাবে না।

বিস্তারিত জানতে কথা হল জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহানের সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, আমিতো ওই দিন অফিসে ছিলাম না । সিলেটে গিয়েছিলাম। পুলিশ তো অফিসে ছিল। তারপরও আমার অফিসে আসলে আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখব।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জ উন্নয়ন সংস্থা’র পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসনকে অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!