previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বাহুবল  >  বর্তমান নিবন্ধ

বাহুবলে নদীর বালু নদীতে রেখেই চলছে ড্রেজিং! ফলে ধসে পড়েছে পাকা রাস্তা 

বাহুবল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) স্নিগ্ধা তালুদকার বলেন, এ প্রকল্পটি জেলা থেকে তদারকি করা হয়। এখানে উপজেলা প্রশাসনের কোনো এখতিয়ার নেই। কেউ অভিযোগ করলে তা আমরা দেখতে পারি।

 এপ্রিল ২৬, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার : বাহুবল উপজেলার মিরপুর বাজারের উপর দিয়ে যাওয়া নদীর বালু নদীতে রেখেই চলছে ড্রেজিং। উপজেলার মিরপুর, পশ্চিম জয়পুর,রাঘপাশা এলাকাসহ বিভিন্ন পয়েন্টে চলছে এ অভিনব ড্রেজিং কার্যক্রম।
নদী খনন ও ড্রেজিং করতে গিয়ে পশ্চিম জয়পুর গ্রামের ব্রীজের কাছে পিচ ঢালা পাকা সড়কটি ধ্বসে পড়েছে। সড়কের পাশে কোন ভরাট ছাড়াই অবৈধভাবে কাজ করছে ঠিকাদার। প্রভাবশালীর জবরদখল করা জমি রক্ষার জন্য উওর দিকে ধনুকের মতো বাঁকিয়ে নদী খনন করেন। আর এতেই পাকা সড়ক ভেঙে নদীতে চলে যাচ্ছে। দ্রুত এর ব্যবস্থা না নিলে সম্পূর্ণ পাকা রাস্তা নদীগর্ভে চলে যাবে।
জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর ছোট নদী ও খাল খনন প্রকল্পগুলোর মধ্যে একটি মিরপুর নদীর ড্রেজিং প্রকল্প। এই প্রকল্পের কাজ শেষ হলে প্রায় ৯ হাজার ৪শ হেক্টর জমি চাষাবাদের আওতায় আসবে। বন্যা থেকে রক্ষা পাবে উপজেলার ১ লাখ মানুষ।
সরকারের অতি গুরুত্বপূর্ণ এ প্রকল্পের কাজ যেনতেনভাবে চললেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কোনো তদারকি নেই বলে জানিয়েছেন সচেতন মহল।

ছবি : বাহুবলে নদীর বালু নদীতে রেখেই চলছে ড্রেজিং! ফলে ধসে পড়েছে পাকা রাস্তা 

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) বাহুবল উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক এম শামছুদ্দিন বলেন, নদী থেকে বালু তুলে তা রাখা হচ্ছে নদীর বুকেই। এখন বর্ষা চলে আসছে। যদি এরমধ্যে বৃষ্টি বেড়ে যায় তবে সিংহভাগ বালু ফের নদী চলে যাবে।
তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের দাবি, নদীটির প্রায় ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট এ প্রকল্পের ৭০ ভাগ কাজ ইতোমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। বর্ষার আগেই বাকি কাজ শেষ হবে এবং এসব বালু সরানোর উদ্যোগ নেওয়া হবে।
তবে চলমান এ প্রকল্পের বাহুবলের বিভিন্ন অংশে কাজ পরিদর্শন শেষে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)- এর নেতারা।
‘নদী ড্রেজিং মানে, নদী থেকে বালু বা মাটিগুলো তুলে নিরাপদ দূরত্বে রাখা হবে, আমরা এটাই বুঝি। কিন্তু বাহুবলের এই খনন কাজ দেখে আমরা বিস্মিত হয়েছি’, বলেন লায়ন মীর জমিলুন্নবী ফয়সল।
তিনি আরও বলেন, দেখলাম, নদী থেকে বালু তুলে নদীতেই রাখা হচ্ছে। নদীর বুকে রাখা বালুগুলি ড্রেজিং করছে না তারা। এ কাজটি না করার ফলে একটু বৃষ্ঠিতেই সব বালু নদীতে পড়ে নদী আবারও ভরাট হওয়ার আশংকা থেকেই যায়।
নদীর বুকে বালু রাখার বিষয়ে জানতে চাইলে মেসার্স অসিম সিং এর কাজ তদারকির দায়িত্বে থাকা মো. শামছু নামের ব্যক্তি মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে জানান, নদীর দুইপাশে জায়গা সংকটের কারণে বালু নদীর বুকে রাখা হয়েছে।
প্রকল্পের ডিজাইন অনুযায়ী কাজ হচ্ছে না বিষয়টি স্বীকার করে তিনি বলেন, হাইটুপি অংশে ৫ মিটার ড্রেজিংয়ের কথা থাকলেও দুইপাশে জায়গা না থাকায় তা করা যাচ্ছে না।
এদিকে সরকারের এত বড় একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের তদারকির ক্ষেত্রে উপজেলা প্রশাসনের উদাসীনতা আছে বলে মন্তব্য করেন সুশাসনের জন্য নাগরিকের নেতারা।
যদিও বাহুবল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) স্নিগ্ধা তালুদকার বলেন, এ প্রকল্পটি জেলা থেকে তদারকি করা হয়। এখানে উপজেলা প্রশাসনের কোনো এখতিয়ার নেই। কেউ অভিযোগ করলে তা আমরা দেখতে পারি।
এদিকে বাহুবলে প্রায় সাড়ে ৫ কোটি টাকার খাল খনন প্রকল্পে চরম অনিয়মের অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী।
তাদের অভিযোগ, দরপত্রের শর্ত মানছে না সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় জনমনে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ ও উত্তেজনা।
বাহুবল উপজেলার গুরুত্বপূূর্ণ একটি খালের নাম ‘যোজনাল’। স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে এটি ‘দুধনাল’ হিসেবে পরিচিত। কথিত আছে, এক সময় এ খাল দিয়ে বড়-বড় মালবাহী নৌকা চলাচল করত। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম ছিল এটি। কালের বিবর্তনে খালটি দীর্ঘদিন আগে থেকেই প্রায় মৃত অবস্থায় রয়েছে।
সম্প্রতি জাতীয় ভাবে খাল পূনঃ খনন প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। এরই অংশ হিসেবে ‘যোজনাল’ খাল খননের প্রায় সাড়ে ৫ কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড। দরপত্রের মাধ্যমে কাজের দায়িত্বপায় ‘মেসার্স আবুল কালাম আজাদ ও মেসার্স অসিম সিং’ নামে দুটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।
প্রকল্পের মেয়াদ অনুযায়ী আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই বাস্তবায়ন হবার কথা। মোট ১৫ কিলোমিটারের মধ্যে ১০ কিলোমিটার কাজ করবে ‘মেসার্স অসিম সিং’ এবং অবশিষ্ট ৫ কিলোমিটার কাজ করবে ‘মেসার্স আবুল কালাম আজাদ।’
প্রকল্পের সীমানা হল, করাঙ্গী রাবার ড্যাম থেকে শুরু হয়ে মিরপুর বাজারের উজানে দুই কিলোমিটার। মিরপুর বাজার অংশের কাজ করবে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স আবুল কালাম আজাদ।
স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রকল্পের কাজে চরম অনিয়ম করছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। খননের গভীরতা ও প্রস্থে হচ্ছে দরপত্রের শর্ত লঙ্ঘন। কোথাও গভীরতা হচ্ছে বেশি, কোথাও কম। কোথাও প্রস্থ হচ্ছে সরু, আবার কোথাও প্রসস্থ। ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা খালের মধ্যে চলে যাওয়ার অভিযোগও করছেন কেউ কেউ।
অন্যদিকে, অনেক প্রভাবশালীদের অবৈধ স্থাপনা কৌশলে বাঁচিয়ে দেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। এ অবস্থায় স্থানীয় জনমনে বিরাজ করছে ক্ষোভ ও উত্তেজনা। ইতোমধ্যে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে স্মারক লিপিও দেয়া হয়েছে প্রশাসনিক দপ্তরে।
জানতে চাইলে হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ শাহনেওয়াজ তালুকদার বলেন, ‘গতকালও আমি প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেছি। এতে অনিয়মের কোন সুযোগ নেই। কাজ শেষ হবার পর ‘লেভেল মেশিন’ দিয়ে মাপা হবে। যতটুকু কাজ হবে ততটুকুরই বিল পাবে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।
প্রকল্পে অনেক প্রতিবন্ধকতা আছে। বাজার, কবরস্থান, মন্দির কিংবা শ্মাশানের মতো জায়গা উদ্ধার করা কঠিন। তবে অবৈধ স্থাপনার মালিকদের মৌখিকভাবে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সরানো না হলে নোটিশ করা হবে এবং প্রয়োজনে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।’
তিনি বলেন, ‘এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে এলাকার মানুষের অনেক সুবিধা হবে। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে অতিরিক্ত পানি খাল দিয়ে প্রবাহিত হবে। এতে এলাকার জলাবদ্ধতা দুর হবে। পাশাপাশি শুষ্ক মৌসুমে পানি ধরে রাখবে। এতে কৃষকের সেচের ব্যবস্থা হবে।’
তিনি আরও বলেন, ‘প্রকল্পের প্রস্থে স্থান ভেদে ভিন্নতা আছে। কোথাও ৩ মিটার, কোথাও ৫, ৬ এবং কোথাও ৭ মিটার প্রস্থ হবে। মিরপুর বাজার থেকে উজানের দিকে ৩ মিটার এবং মিরপুর বাজার থেকে ভাটির দিকে স্থান ভেদে ৫ থেকে ৭ মিটার পর্যন্ত প্রস্থ হবে। গভীরতা হবে গড়ে ২ মিটার। মূলত জায়গা পেলেই খাল বড় হবে।’

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

ঈদ উপহার নিয়ে অসহায় পরিবারের পাশে ইউনিক সোস্যাল অর্গানাইজেশন

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!