previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শীর্ষ সংবাদ  >  বর্তমান নিবন্ধ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের মোটরসাইকেল চুরিতে জড়িত ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুরও তার ভাই মিজান

১৬৪ ধারা জবাবন্দিতে স্বীকারোক্তি দেন আটক সোনাই মিয়া

 এপ্রিল ২২, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার :  দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা সাংবাদিকের উদ্ধারকৃত মোটরসাইকেল চুরিতে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সভাপতি সাইদুর রহমান ও তার আপন ভাই মোবাইল মেকানিক মিজান জড়িত বলে ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে স্বীকার করেছেন গ্রেফতারকৃত সোনাই মিয়া।
জানা যায়, গত ২৩শে ডিসেম্বর হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের সামনে আওয়ামী লীগের  দুই পক্ষের সংঘর্ষের সংবাদ সংগ্রহের ঘটনার সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সাংবাদিক এম.এ রাজার মোটরসাইকেল চুরির ঘটনায় জেলা ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সভাপতি সাইদুর রহমানকে আসামী করে  মামলা দায়ের করা হয়। মামলা করার দীর্ঘ চার মাস পর ডিবি পুলিশের তৎপরতায় রিচি গ্রাম থেকে উদ্ধার হয় চুরি যাওয়া মোটরসাইকেলটি।

ছবি : মোটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুরের ভাই মিজানের ফাইল ছবি

মোটরসাইকেলটি গত ১৯ এপ্রিল আবু জাহির এমপির বাড়ির পাশের সোনাই মিয়ার বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়। সে সময় মোটরসাইকেল চুরির দায়ে সোনায় মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। পরে গ্রেফতারকৃত সোনাই মিয়ার দেয়া ১৫৪ ধারার ধারার জবানবন্দি থেকে জানা যায়, সোনাই মিয়ার বাড়ি থেকে উদ্ধারকৃত মোটর সাইকেলটি সাইদুরের আপন বড় ভাই মোবাইল মেকানিক মিজান মোটর সাইকেলটি কিছু দিন পূর্বে তার বাড়িতে রাখেন । এরপর  বেশ কিছুদিন অতিবাহিত হলে যখন মিজান সাইকেলটি তার বাড়ি থেকে ফেরত নেননি  তখন সোনাই সাইদুরকে বিষয়টা অবগত করেন তখন সাইদুর তাকে আশ্বস্ত করেন সমস্যা নাই কিছু দিনের মধ্যে সাইকেলটি নেয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলে।
মোটরযান চুরি সংক্রান্ত দায়ের করা আরও কয়েকটি মামলার তদন্ত কার্যক্রম পর্যালোচনা করে জানা যায়, এসব চুরির ঘটনার সাথে আবু জাহির এমপি ও হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিম এর বিভিন্ন রক্ত সম্পর্কের আত্মীয়-স্বজন জড়িত রয়েছেন।

ছবি : মোটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত জেলা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি সাইদুর রহমান এর ফাইল ছবি

উল্লেখ্য, গত ২২ শে ডিসেম্বর শায়েস্তাগঞ্জে বিজয় দিবসের আলোচনা  সভায়  বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডেন্ট মানিক চৌধুরীর কন্যা সাবেক সংরক্ষিত মহিলা আসনের এম.পি কেয়া চৌধুরীর উপর পরিকল্পিত হামলা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২৩ ডিসেম্বর বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। ঐদিন এমপি আবু জাহিরের নির্দেশে  বিক্ষোভ মিছিলটি ঠেকিয়ে দিতে কিছু উশৃংখল যুবক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ হামলা করেন।
এসময় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বিবদমান দুটি পক্ষের মধ্যে চলা সংঘর্ষের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে আবু জাহির এমপি পক্ষের নেতা কর্মীদের দ্বারা বেশ কয়েকজন সংবাদকর্মী আহত হন এবং তাদের ব্যবহৃত জিনিসপত্র ছিনতাই হয়। হামলাকারীরা এটিএন বাংলার জেলা প্রতিনিধি এবং দৈনিক প্রভাকর পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আব্দুল হালিমের মোবাইল ফোন, মানিব্যাগ ও ডিজিটাল ক্যামেরা ছিনিয়ে নেন। এসময় আব্দুল হালিম হামলাকারীদের কে বাধা দিলে তাকে পিটিয়ে আহত করে। অন্যান্য সাংবাদিকরা তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে এসে তাকে প্রানে রক্ষা করেন। ওই সময় দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার গ্রাফিক্স ডিজাইনার আব্দুর রহিম পলাশ এর নিকট থেকে হামলাকারীরা একটি ডিএসএলআর ক্যামেরা ও একটি স্যামসাং মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেন এবং সদর প্রতিনিধি এম.এ রাজার মোটরসাইকেল চুরি করে নিয়ে যায়।
এ ঘটনার বিষয়ে আব্দুর রহিম পলাশ জানান তার ক্যামেরা মোবাইল ফোন ও সঙ্গে থাকা কিছু টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে যান সাইদুর রহমান, মহিবুর রহমান মাহি, সাব্বির আহমেদ রনি সহ আরও কয়েকজন।
সাংবাদিক আব্দুল হালিম জানান উশৃংখল কয়েকজন যুবক আমার মোবাইল ফোন, ক্যামেরা সহ আরো কিছু জিনিসপত্র ছিনিয়ে নেয়। আমি প্রতিবাদ করতে চাইলে আমার ক্যামেরাপারসন লিমনের ওপর হামলা চালায় তারা। হবিগঞ্জ সমাচার পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার জাকারিয়া চৌধুরী কেউ মারধর করেন সাইদুর-মাহি ও তাদের অনুসারীরা। অভিযুক্তদের পক্ষে আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট সুলতান মাহমুদ, এড. আজিজুর রহমান খান সজল, নুর উদ্দিন চৌধুরী বুলবুল ও আব্দুল মুকিতসহ আরো কয়েকজন হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে গিয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করে এই ঘটনা ধামাচাপা দেন।
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

“সাস্টিয়ান হবিগঞ্জের” উদ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!