previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

বানিয়াচংয়ে সরকারের দেয়া ১৮ দফা বাস্তবায়নে প্রশাসনের ঢিলেঢালা ভাব

করোনা-লকডাউন নিয়ে ঠাট্টা-তামাশা জনসাধারণের

 এপ্রিল ৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

রায়হান উদ্দিন সুমন : করোনার ঊর্ধ্বগতিতে সরকার ঘোষিত এক সপ্তাহের টানা লকডাউন শুরু হয়েছে। লকডাউন বিষয়ে সরকারি আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন সরকার। জরুরি সেবা বলতে যেগুলো বুঝায় সেগুলো ছাড়া বাকি সবকিছুই পরবর্তী নির্দেশ না আশা পর্যন্ত বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। এই লকডাউনের গতকাল বুধবার (৭ এপ্রিল) ছিল ৩য় দিন।

 

সারা দেশের ন্যায় বানিয়াচংয়েও করোনা ভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় সরকারের দেয়া ১৮ দফা নির্দেশনা বাস্তবায়নে উপজেলা প্রশাসনের ঢিলেঢালা ভাব লক্ষ্য করা গেছে। তবে পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তারা সরকারি নির্দেশনা মানতে জনগণের মাঝে প্রচারণা চালিয়ে ছিলেন বেশ কিছুদিন পূর্বে। তারা বিভিন্ন হাটবাজারে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করেছেন।

 

 

করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনায় মাঝে-মধ্যে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করলেও তা মাত্র খানিক সময়ের জন্য। মাঠ পর্যায়ে দেখা গেছে, জনগণের মাঝে সচেতনতার কোনো বালাই নেই। রাস্তায় কিংবা হাট-বাজারে অধিকাংশ মানুষই মাস্ক ছাড়া চলাচল করছেন। বিশেষ করে তরুণও বয়স্করা করোনাকে তোয়াক্কাই করছে না।

করোনা আর লকডাউন নিয়ে হাসি তামাশাতে মেতে উঠছেন অনেকেই। কিছু মানুষ বিশ্বাসই করতে চায় না যে দেশের মধ্যে করোনার মহামারি বয়ে যাচ্ছে। গত সোমবার এক প্রজ্ঞাপনে করোনা প্রতিরোধে ১৮ দফা নির্দেশনা দেওয়া হয়। এর মধ্যে সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় ও অন্যান্য অনুষ্ঠান সীমিত করার কথা বলা হয়েছে।

এছাড়া মসজিদসহ সব ধর্মীয় উপাসনালয়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি পালনে বিভিন্ন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বুধবার( ৭ এপ্রিল) দুপুরে বানিয়াচংয়ে কয়েকটি হাটবাজার ঘুরে দেখা গেছে,দোকানপাট আগেই মতোই খোলা। তবে অনেক ব্যবসায়ী তাদের দোকানের অর্ধেক দরজা বন্ধ করে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। পুলিশ কিংবা প্রশাসনের কোন গাড়ি দেখলেই হুট করে দরজা বন্ধ করে দিচ্ছেন তারা। কিন্ত এসব দোকানগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বালাই ছিলনা। ক্রেতা-বিক্রেতাদের অনেকেই মাস্ক ছাড়া পাশাপাশি দাঁড়িয়ে কেনাকাটা করছেন।

এক বাজার থেকে অন্য বাজারে যেতে অটোরিকশাতে গাদাগাদি করে মানুষজনকে চলাচল করতে দেখা গেছে। ফলে সব মিলিয়ে এমন ঢিলেঢালা লকডাউন নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হচ্ছে জনসাধারণের মাঝে।

লকাডাউনে বাজারে আসা সজিব আহমেদ নামে এক শ্রমিক জানান,লকডাউনে অনেকেই এখন কাজ করছে। কয়জনে মানে এই লকডাউন। শুধুু গাড়ি বন্ধ। মানুষতো তাদের প্রয়োজনে ঠিকই বাইরে যাচ্ছে। আমার কাজ আছে তাই আমাকে বের হতে হয়েছে। লকডাউন গরীবের কষ্ট ছাড়া আর কিছু ই না।

ব্যবসায়ী আব্দুর রহমান জানান,গত বছরের লকডাউনে ঘর থেকে বের না হলেও এবার আর লকডাউন মনে হচ্ছে না। এই লকডাউন ব্যবসায়ীদের পেঠে লাঠি দেয়া ছাড়া আর কিছুই না। তিনি আরো জানান,আমাদের দাবি স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে যেন দোকানপাট খুলে দেয়া হয়।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমরান হোসেন জানান,লকডাউন শুরুর আগ থেকেই বানিয়াচং থানা পুলিশের পক্ষ থেকে জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে কাজ করেছে। পথচারীদের মধ্যে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার সম্পর্কে নির্দেশনা ও সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি এগুলো বিতরণ করা হয়েছে। তারপরও কিছু লোক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে চাইছে না। পুলিশ এ নিয়ে কাজ করছে।

বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রানা বলেন, জনগণকে সচেতন করতে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রয়োজনে আরো কঠোর হবে প্রশাসন।

 

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বানিয়াচং থানা পুলিশের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ ও উদ্ধুদ্ধকরণ কর্মসূচি

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!