previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

বানিয়াচং উপজেলা নির্বাচন অফিসে ঘুষ দিলেই মিলছে জাতীয় পরিচয়পত্র !

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর নানা তথ্য

 এপ্রিল ৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

উজ্জ্বল আহমেদ  :  জাতীয় পরিচয়পত্র এনআইডি’র জন্য নিবন্ধিত হওয়ার আগে ৫টি সুনির্দিষ্ট প্রমাণপত্র জমা দেয়া বাধ্যবাধকতা থাকলেও ঘুষ দিলে এসব কিছুই লাগে না। বানিয়াচং উপজেলা নির্বাচন কমিশনের একশ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশেই ঘটছে এমন অনিয়মের ঘটনা।

একটি অনুসন্ধান প্রতিবেদনে বেরিয়ে আসা এই দুর্নীতির কথা স্বীকারও করছে কর্তৃপক্ষ। হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অফিসে গিয়ে দেখা যায়, নিবন্ধিত হতে এসেছেন স্থানীয়রা। এজন্য লাগছে জন্ম নিবন্ধন, নাগরিকত্ব সনদ ও বিদ্যুৎ বিলের কপিসহ ৫টি বিষয়ের প্রমাণপত্র। তবে, ঘুষ দিলে লাগবে না এসবের কিছুই। জানালেন নাম বলতে অনিচ্ছুক.ই- জোনের এক মাস্টার রোল কর্মচারী। তিনি জানান, কম্পিউটার অপারেটর সুমন চন্দ্র দাস, অনেকের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা।

কিছুদিন পূর্বেও হবিগঞ্জের কুশিয়ারতলা গ্রামের এক ১৭ বছরের মাদ্রাসার ছাত্রীকেও টাকার বিনিময়ে ১৪ দিনের মধ্যে কার্ড দিবে বলে ৫হাজার টাকা নেয় সুমন। পরে তার কার্ড সুমন চন্দ্র দাস নিজেই লক করে দিয়ে ওই নারীকে দিনের পর দিন হয়রানী করে প্রায় ৭হাজার টাকা দাবী করে পরে তারা ৪ হাজার টাকা দিলে তাদের কার্ড পান। অভিযোগটি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ টিমের একজন প্রতিনিধির কাছে এলে অনুসন্ধান চালিয়ে কয়েকটি অভিযোগ পাই সুমন চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে।

এর পর ছদ্মবেশে সুমন এর নাম্বারে কল দিলে সুমন চন্দ্র দাস জানান, তোমাদের এটা হবে না এটা বার বার তুমি তোমার মোবাইল এ আর কম্পিউটারের দোকানে অতিরিক্তবার দেখাতে তোমার কার্ড লক হয়ে গেছে। তুমি কার্ড পাবে না। আরো ২হাজার টাকা দিতে হবে চেষ্টা কওে দেখবো ঢাকা থেকে তোমার কার্ডটি দিতে পারব কি না। তার কথা মতো মেয়েটি তার মামাতো ভাই কে নিয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের একজন সংবাদ কর্মীর সাথে দেখা করে বিষয়টি খুলে বললে অনুসন্ধানে নামে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর সংবাদকর্মী।

 

 

 

 

নাম পরিচয় গোপন রেখে ফোন করি সুমন এর নাম্বারে ফোন দিলে সে বলে ২ হাজার টাকা না দিলে নাকি কার্ড পাওয়া যাবে না। পরে থাকে আমরা বিকাশে আরো ২হাজার টাকা পাঠালে সে ২ মিনিটের মধ্যে ভুক্তভোগী মেয়ের ইমুতে এনআইডি কার্ডটি পাঠায়। পরে এমন আরো অনেক অভিযোগ উঠে সুমন চন্দ্র দাস এর নামে।

বানিয়াচং উপজেলার কয়েকজন ব্যক্তির বক্তব্যের সূত্র ধরে, পাওয়া গেলো আরেক মাস্টার রোল কর্মচারীকে। তিনিও জানালেন কয়েক ধাপে পাঁচ হাজার টাকা খরচ করলেই প্রমাণপত্র ছাড়া যে কাউকেই নিবন্ধন করিয়ে দিতে পারে সুমন চন্দ্র দাস। সত্যতা যাচাইয়ে, নিবন্ধন করতে না পারা এক বৈধ নাগরিককে নিয়ে যাওয়া হয় হবিগঞ্জে এর কুশিয়ার তলার আর এক নারীকে টাকা দেয়া হয় সুমন দাসকে এর পর পরই শুরু হয় নিবন্ধন প্রক্রিয়া। প্রমাণপত্র ছাড়াই নিবন্ধিত হন এই ব্যক্তি। পেয়ে যান নিবন্ধন স্লিপটিও। জাতীয় পরিচয়পত্রের স্মার্টকার্ড পেতে এখন আর কোনো বাধা নেই তার। তবে, এই তৎপরতায় জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের কিছু কর্মকর্তারা জড়িত বলে ধারণা করছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

 

এখনই নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনা না গেলে ভবিষ্যতে জাতীয় পর্যায়ে বড় ধরণের সংকটের আশঙ্কা করছেন তারা। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিকেন্দ্রীকরণের অংশ হিসেবে নির্বাচন কমিশন থেকে ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ছবিসহ ভোটার জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন-সংক্রান্ত একটি গেজেট জারি হয়। সেখানে বলা আছে, এনআইডি সংশোধন-সংক্রান্ত যাবতীয় আবেদন উপজেলা কার্যালয় গ্রহণ করবে। সেখানেই সংশোধন-সংক্রান্ত আবেদনের শুনানি, যাচাই- বাছাই ও তদন্তপূর্বক আবেদনের ধরন অনুযায়ী শ্রেণিবিন্যাস (ক, খ, গ ও ঘ) ঠিক করে দেবেন ইসির উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা। তাদের নির্ধারিত ক্যাটাগরির পর সংশোধনের জন্য প্রধান কার্যালয়ে পাঠালে সংশোধনের ধরন অনুযায়ী অনুমোদন দেবে কমিশন। মাঠ অফিস থেকে চৌকশ ও দক্ষ হাতে গোনা কয়েক জন কর্মকর্তাকে নির্বাচন করে এনআইডি উইংয়ে সংযুক্তি নিয়োগ দেওয়া হয়।

এসব কর্মকর্তা মাঠের অফিসের শ্রেণিবিন্যাসের কাজটি করে দিচ্ছেন এবং সে অনুযায়ী মাঠ অফিসে পাঠানো হচ্ছে। তারা (উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা) সব তথ্য যাচাই করে সংশোধনের উপযোগী সুপারিশ জানালে কমিশন কার্ডটি মুদ্রণের অনুমোদন দিচ্ছে। এতেই সময়ক্ষেপণ হয় বেশি। ডিজিটাল যুগেও সংশোধনের আবেদন শ্রেণিবিন্যাসের নামে মাসের পর মাস পড়ে থাকে এনআইডি উইংয়ে। সীমিত জনবল দিয়ে কাজ করানোয় ঐ জটিলতা তৈরি হচ্ছে। ফলে সাধারণ মানুষের দ্রুত সেবা পাওয়ার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাচ্ছে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বানিয়াচং থানা পুলিশের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ ও উদ্ধুদ্ধকরণ কর্মসূচি

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!