previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  চুনারুঘাট  >  বর্তমান নিবন্ধ

এক সময়ের বিএনপির নেতা দুলাল ভূইয়া এখন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি

 এপ্রিল ৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

খায়রুল ইসলাম সাব্বির || চুনারুঘাট উপজেলার ২ নং আহম্মাদাবাদ ইউনিয়নের বিএনপির সাবেক সভাপতি প্রার্থী ও বর্তমান ইউপি মেম্বার দুলাল ভুইঁয়া এখন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি। বিএনপির একজন সংক্রিয় কর্মী থেকে রাতারাতি উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে থাকায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঝে বইছে ব্যাপক সমালোচনার ঝড়।

 

দুলাল ভূঁইয়া নিজেকে চুনারুঘাট উপজেলার স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি দাবী করে সাধারণ মানুষ কে ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। এমনকি ইউনিয়ন পরিষদের জন্ম নিবন্ধন সাটিফিকেট নিয়েও তার বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎতের অভিযোগ করছেন ইউনিয়নের একাধিক নাগরিক।

জানা যায় , চুনারুঘাট ২ নং আহম্মাদাবাদ ইউনিয়নের বর্তমান মেম্বার ও সাবেক বিএনপি নেতা দুলাল ভুইঁয়া ২০১৭ সালের ১৫ অক্টোবর ইউনিয়ন পর্যায়ে বিএনপি কাউন্সিল নির্বাচনে (তালা) মার্কায় সভাপতি পদে সালাহ উদ্দিন বাবরু সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে মাত্র ১৩ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। তখন দলে সুবিধাজনক অবস্থান করতে না পেরে চুনারুঘাট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবেদ হাসনাত সনজু চৌধুরীর হাত ধরে কোন কাউন্সিল ছাড়াই চুনারুঘাট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি পদ লাভ করেন দুলাল ভূইয়া। যা নিয়ে এলাকায় বিতর্কের সৃষ্টি করে।

ফেসবুকের মাধ্যমে জানা যায়, দুলাল ভূইয়ার ছেলে ঢাকা কলেজের ছাত্র নাহিদ উদ্দিন ভূঁইয়া তারেক (২৫) তার ফেসবুক ওয়ালে বর্তমান সরকারের তীব্রভাবে আক্রমণাত্মক সমালোচনা করে যাচ্ছেন। যা আওয়ামী লীগে সরকারের উন্নয়নের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে। দুলাল ভূইয়ার ভাতিজা সুমন ভূঁইয়া (২৮) প্রবাসে অবস্থান করে আওয়ামী সরকারের নোংরা সমালোচনা করেন। এই বিষয়গুলো এলাকায় ধুম্রজাল সৃষ্টি করে।

এ বিষয়ে চুনারুঘাটের আহম্মাদাবাদ ইউনিয়নের প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতারা বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের শাসনামলে আওয়ামী পরিবারের লোকজনের উপর বিভিন্ন ভাবে নির্যাতনসহ নানাভাবে হয়রানি করতেন দুলাল ভুইঁয়া। আর সেই বিএনপি পরিবারে সদস্যকে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি করা হয়েছে তা একেবারেই গান্ধা প্রকৃতির কাজ।

কিন্তু আমাদের মতো মানুষেরা যারা আওয়ামী লীগের দূ:সময়ে পাশে ছিলাম, জেলজুলুম হুলিয়া মাথায় নিয়ে পালিয়ে থেকেছি, নানা নির্যাতনের শিকার হয়েছি আমাদের মতো এ সব ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাদের বাদ দিয়ে চিহ্নিত বিএনপি নেতাকে সিনিয়র সহ-সভাপতি পদ দেয়া হয়েছে। আমরা যতটুকু জানি দুলাল ভূইয়া ছাত্র জীবনে সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ জামাত শিবিরের কর্মী ছিলেন।

 

 

ছবি: মেম্বার দুলাল মিয়ার ফাইল ছবি

 

 

জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সৈয়দ কামরুল হাসান বলেন, “আমি ব্যক্তিগত ভাবে দুলাল ভূঁইয়াকে চিনি না। এই বিষয়টি চুনারুঘাট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি/ সম্পাদক বলতে পারবেন। আমরা যদি উপযুক্ত প্রমাণ পাই অবশ্যই তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।”

এ বিষয়ে চুনারুঘাট উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মানিক সরকার বলেন, “দুলাল ভূঁইয়া ছাত্র জীবনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। তার ভাই সালেক মেম্বার খুন হওয়ার পরে সে দল পরিবর্তন করে বিএনপির রাজনীতির সাথে সংযুক্ত হয়। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর আমার সাথে ঘষামাজার সম্পর্ক তৈরি হলে হলে আমরা তাকে স্বেচ্ছাসেবক লীগে নিয়ে আসি।”

এবিষয়ে চুনারুঘাট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু বলেন, “দুলাল ভূইয়া আমার সভাপতি মানিক সরকারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তার মাধ্যমই সে স্বেচ্ছাসেবক লীগে প্রবেশ করেছে। আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।”

এ বিষয়ে আহম্মদাবাদ ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সালাউদ্দিন বাবরু বলেন, “দুলাল মেম্বার দীর্ঘদিন আমার সাথে বিএনপির রাজনীতি করছে। সর্বশেষ সে আমার সাথে সভাপতি প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে পরাজিত হয়ে সনজু চেয়ারম্যানের উৎসাহ ও প্রলোভনে সে স্বেচ্ছাসেবক লীগে চলে যায়। সনজু চৌধুরী তাতে চেয়ারম্যান বানিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেয়।”

এবিষয়ে দুলাল ভূইয়া বলেন, “জন্মগত ভাবে আমি আওয়ামী লীগ পরিবারের সন্তান। ছাত্রলীগের হাত ধরে আমার রাজনীতি শুরু। তবে ১৯৯২ সালে আমার ভাই সালেক মেম্বার তৎকালীন আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যানের হাতে নির্মম ভাবে খুন হন। দুঃখের বিষয় হলেও সত্য সেই সময়ের আওয়ামী লীগ নেতৃত্ববৃন্দ সুষ্ঠু বিচারের দাবি করেননি, খুনির পক্ষে অবস্থান করেন। এমনকি তৎকালীন এমপি বোরকা পড়ে খুনির পক্ষে আইনজীবী হিসেবে আদালতে অবস্থান নেন। সেই ক্ষোভে ও দুঃখে ভাইয়ের খুনের বিচারের জন্য বিএনপিতে যোগ দিয়েছিলাম।”

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

চুনারুঘাটে কোভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধে প্রশাসনের অভিযান 

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!