previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বাহুবল  >  বর্তমান নিবন্ধ

বাহুবলে উপজেলা পরিষদের কম্পিউটার অপারেটার কনক দেবের বিলাসী জীবন যাপন

অল্প দিনে ই বনে গেছেন কোটি টাকার মালিক

 এপ্রিল ৫, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার :  চাকুরী গ্রহনের মাত্র ৯ বছরের মাথায় কোটি টাকা বানিয়েছেন বাহুবল উপজেলা পরিষদের কর্মচারী কনক দেব মিঠু। চলাফেরা-সাজসজ্জায় রাজকীয় ভাব। নামে-বেনামে বিভিন্ন জায়গায় ক্রয় করেছেন জায়গা-সম্পত্তি। উপজেলা পরিষদের সামান্য কর্মচারী হয়েও ব্যবহার করেন বিলাস বহুল চেয়ার, দখল করেআছেন ১ম শ্রেণীর কর্মকর্তাদের ব্যবহৃত ডেকোরেশনের রুম। স্ত্রীকে নিয়ে একজায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাতায়াত করেন বিমানে। এককথায় বিলাসী জীবন যাপন করছেন তিনি।

 

চলাফেরা দেখে বুঝার উপায়নেই তার সুনির্দিষ্ট পেশা কি? মনে তিনিই কোন সরকারী দপ্তরের ১ম শ্রেণীর কর্মকর্তা। বাহুবল উপজেলা পরিষদের বিতর্কিত কম্পিউটার অপারেটর কনক দেবমিঠুর পরিষদের দোতলায় অফিস চেম্বারটি রাজকীয় ভাব নিয়ে সজ্জিত। প্রশ্ন উঠেছে মিঠু যে চেয়ার ব্যবহার করেন তা তার ব্যবহারের এখতিয়ার আছে কিনা? মিঠু জানা যায়, বতর্মানে যে চেয়ারটি ব্যবহার করছেন সেই চেয়ারটি ছিল সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হাই’র। তৎকালীন চেয়ারম্যান আব্দুল হাই পরির্বতন করে নতুন চেয়ার নিয়ে আসলে, তার ব্যবহার করা চেয়ারটি সকলের চোখে ধুলো দিয়ে মিঠু নিজে ব্যবহার করতে শুরু করেন। যেহেতু চেয়ারটি সর্বজন শ্রদ্ধেয় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহোদয় ব্যবহার করতেন, সেহেতু এই চেয়ারটি স্মৃতি ও সম্মানের সহিত সংরক্ষণ না করে পরিষদের একজন সাধারণ কর্মচারী নিজেই ব্যবহার করায় চেয়ারম্যান পদের চরম অবমাননা ছাড়া কিছু নয় বলে অনেকেই মনে করেন।

এ ব্যাপারে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই বলেন- আমি চেয়ারম্যান থাকাকালে মিঠু তার অফিস কক্ষ সাজানোর কোন বাজেট দেয়া হয়নি। সে হয়ত পরবর্তীতে কোন সোর্স থেকে টাকা সংগ্রহ করে এমনটা করতে পারে। চেয়ারম্যানের চেয়ার ব্যবহারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যে চেয়ারের কথা বলছেন সেটি আমার আগে আব্দুল কাদির চৌধুরী ব্যবহার করেছেন, পরবর্তীতে আমি কিছুদিন ব্যবহার করেছি। নতুন চেয়ার আনার পর ওই চেয়ারটি পরিষদে সংরক্ষণ করে রাখা হয়। সেই চেয়ারটি যদি মিঠু ব্যবহার করে থাকে তাহলে সেটি চরম বেয়াদবী এবং এখতিয়ার বহিঃর্ভূত।

 

 

ছবি : নিজের রাজকীয় অফিসে বসা কম্পিউটার অপারেটার কনক দেব

 

 

সেটা পরিষদ এবং প্রশাসন দেখছে না কেন? জানতে চাইলে এ ব্যাপারে বর্তমান চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান বলেন, মিঠুর অফিস কক্ষ সাজানোর বিষয়টি আমি চেয়ারম্যান হওয়ার আগেই হয়েছে। তবে সে এভাবে সাজানো স্টালে বসতে পারে না। নৈতিকতার পরিপন্থী। চেয়ার প্রসঙ্গে বলেন, সাবেক চেয়ারম্যান মহোদয়গণের ব্যবহার করা চেয়ারটি মিঠু কোন অবস্থায়ই ব্যবহার করতে পারে না। তাহলে চেয়ারম্যান আর কর্মচারী সমান হয়ে গেল। বিষয়টি দেখতাছি ।

 

এদিকে, পরিষদের একজন সাধারণ কর্মচারী কনক দেব মিঠুর বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে কোটিপতি বনে যাওয়া ও স্ত্রীকে নিয়ে বিমানযোগে বিভিন্নস্থানে হানিমুনে যাওয়া নিয়ে বিভিন্ন প্রিণ্ট ও অনলাইন মিডিয়ায় সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ হলে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, টুইটারে ভাইরাল হয়ে যায়। বাহুবল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার স্নিগ্ধা তালুকদারের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত কনক দেব মিঠুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমার উপর প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে কিছু লোক আমার ক্ষতি করার চেষ্টা চেষ্টা করছেন। বিষয়টি মূলত কিছুই নয়।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

এমপি মিলাদ গাজীর সুস্থ্যতা কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!