previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

হবিগঞ্জে হারবাল চিকিৎসার নামে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন ভূয়া ডাক্তার এম এ আলীম

ভূয়া চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে -ডেপুটি সিভিল সার্জন

 মার্চ ৩, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

তারেক হাবিব :  এক ফাইলই যথেষ্ট, চিকন স্বাস্থ্য মোট করুন। কিডনি-ক্যান্সার-প্যারালাইসেন্স-পিত্তে পাথর, যেকোন টিউমার, স্তন টিউমার, জরায়ু টিউমার, অর্শ্ব, গেজ, পাইলস, একশিরা, নাকে মাংস বৃদ্ধি, জন্ডিস ইত্যাদি জঠিল-কটিন এবং পুরাতন রোগের দ্রুত আরোগ্য। হবিগঞ্জে এভাবেই আর্কষণীয় বিজ্ঞাপনে সাধারণ মানুষকে আশ্বস্থ করে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন এম এ আলীম নামে ভূয়া এক হারবাল চিকিৎসক।

 

ভূয়া হারবাল চিকিৎসক আলীম হবিগঞ্জ শহরের কোর্ট স্টেশন এলাকায় “আলীম হারবাল মিউজিয়াম ও আলীম হোমিও কমপ্লেক্স’ নামে এক প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসা দিয়ে আসছেন দীর্ঘদিন ধরে। সাধারণ চিকিৎসার পাশাপাশি করছেন স্তন টিউমার, জরায়ু টিউমারের মতো গুরুতর শারীরিক সমস্যার সমাধানও। গ্রহণযোগ্য ডাক্তারী কোন ডিগ্রি না থাকলেও নামের আগে ব্যবহার করছেন ডাঃ ও হাকীম পদবী। সাইন বোর্ড ও বিজ্ঞাপনে ব্যবহার করছেন অজানা একাধিক ডাক্তারী ডিগ্রি।

 

ঝাঁকজমক পোস্টার-ব্যানার দিয়ে সাজিয়েছেন চেম্বার। দরজার গ্লাসে বড় অক্ষরে লিখে রেখেছেন ‘শীততাপ নিয়ন্ত্রিত’। তার চিকিৎসায় আবার অনেক রোগীকেই তিনি দিচ্ছেন রোগ মুক্তির শতভাগ নিশ্চয়তা। তবে চিকিৎসায় কাজ না হলে পরে টাকা ফেরত চাওয়ার সময় চিকিৎসকের সাথে রোগীর ঘটে বাকবিতন্ডা।

 

 

ছবি : হবিগঞ্জের ভূয়া হারবাল চিকিৎসক এম এ আলীম এর ফাইল ছবি

 

 

সূত্র জানায়, এমবিবিএস ডিগ্রিধারী বা বিএমডিসি’র আওতাভুক্ত না হলে কেউ নামের আগে বা পরে  ডাক্তার পদবী ব্যবহার করা সম্পূর্ণ নিষেধ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবাসী ভুক্তভোগী দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, এম এ আলীমের কাছ থেকে ৬ মাস মেয়াদী ২০ হাজার টাকার ঔষধ ক্রয় করি। ব্যবহারের পর তার গোপনাঙ্গ সুস্থ্য হবার বিপরীতে অকালে পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্থানে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠেছে হারবাল চিকিৎসা। মহামারী করোনার মাঝে ৬ মাস এসব প্রতিষ্ঠান কিছুটা বন্ধ থাকলেও গত কয়েক মাস ধরে আবারও এসব হারবাল ব্যবসা জমজমাট হয়ে উঠেছে। অভিযোগ রয়েছে, যৌন উত্তেজক ইয়াবা ট্যাবলেট দিয়ে অস্বাস্থ্যকরভাবে বিভিন্ন ধরণের ওষুধ তৈরি করে সহজ সরল মানুষের কাছে বিক্রি করছেন তারা। আর এসব সেবনের ফলে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। কেউ আবার বরণ করছেন পঙ্গুত্ব, লজ্জায় আবার কেউ বিষয়টি নিরবেই সহ্য করে যাচ্ছেন ।

এসব দোকানের কোনো লাইসেন্স নেই। ভুয়া ট্রেড লাইসেন্স তৈরি করে দেদারছে এসব ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রশাসনের অভিযানে মাঝে মধ্যে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করলেও কিছুদিন বন্ধ থাকার পর আবার যেই-সেই। একটি বিশ্বস্থ সূত্র থেকে জানা যায়, কিছু কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে ভূয়া ডিগ্রি ক্রয় করে এ ধরণের অপকর্ম করে যাচ্ছেন তারা।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ভূয়া চিকিৎসক এম এ আলীমের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ডাক্তার সম্পর্কে আপনার কি করে জানবেন, আপনার কি যোগ্যতা আছে’ বলে তিনি ফোন কেটে দেন। এরপর বার বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

হবিগঞ্জের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মুখলিছুর রহমান জানান, ভূয়া ডাক্তারদের বিরুদ্ধে পূর্বে একাধিক অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। তবে সকলের অগোচরে তারা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বিএনপি থেকে আগত আওয়ামী লীগ নেতার দখলে ২শ বছরের পুরনো জিউ আখড়া

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!