previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

হায়দার আলী জেনারেল হাসপাতাল : এমবিবিএস ডিগ্রি ছাড়াই রোগী দেখছেন একাধিক ভূয়া ডাক্তার

 ফেব্রুয়ারী ২৩, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

তারেক হাবিব :   হবিগঞ্জ শহরের রাজনগর এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আলী জেনারেল হাসপাতালের বিরুদ্ধে ভূয়া ডাক্তার দিয়ে চিকিৎসা প্রদানের অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে, ওই হাসপাতালে নির্ধারিত ডিগ্রি ছাড়াই নিয়মিত রোগী দেখছেন একাধিক ভূয়া ডাক্তার। গতকাল সোমবার (২২ফেব্রুয়ারি) বিকেলে সরেজমিনে ওই হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, অভ্যর্থনার পাশে জাঁকজমকভাবে ২০/২৫টি বিদেশী সার্টিফিকেটের সাথে নিজের বিশাল ছবি দেয়ালে ঝুলিয়ে চেম্বার সাজিয়ে রোগী দেখছেন আব্দুর রহমান নামে এক কথিত ডাক্তার।

 

 

 

 

তবে বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল অ্যাক্ট অনুযায়ী তার এমবিবিএস বা বিডিএস কোন ডিগ্রি না থাকলেও সাধারণ মানুষকে বোকা বানিয়ে মোটা অঙ্কের ফি নিয়ে নিয়মিত রোগী দেখছেন তিনি। অভিযোগ আছে, তার ব্যবহৃত সবগুলো সার্টিফিকেই ভূয়া। অনুসন্ধানে জানা যায়,  ওই হাসপাতালে আব্দুর রহমান ছাড়াও রয়েছেন আরও একাধিক ভূয়া ডাক্তার।

 

শহরের অন্যান্য প্রাইভেট হাসপাতালের তুলনায় হায়দার আলী জেনারেল হাসপাতালের গঠন কাঠামো কিছুুটা ভিন্ন। জাঁকজমক বিলাস বহুল পরিবেশে রোগীদের ভিন্নভাবে আকৃষ্ট করতে রাখা হয়েছে ২০/২৫ জনের এক ঝাঁক উঠতি বয়সী তরুণী। বøাড, ইউরিন, ইসিজি, এক্সরে, আরবিএস, ক্রিয়েটিনিনসহ গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষাগুলো করেন থাকেন দায়িত্বরত অদক্ষ তরুণীরাই। অভিযোগ আছে, গ্রামাঞ্চল থেকে অভাবের তাড়নায় শহরে আসা অসহায় তরুণীদের দূর্বলতার সুযোগ নিয়ে তাদের মাধ্যমে কৌশলে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন ওই হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিসুর রহমান।

 

 

 

 

বিষয়টির সত্যতা যাচাইয়ে গতকাল বিকেলে সরেজমিনে রোগীর ছদ্দবেশে ওই হাসপাতালে গেলে অভ্যর্থনায় থাকা এক তরুণী বলেন, ‘স্যারের সাথে কোন দেখা করা যাবে না। স্যারের ভিজিট ৬’শ টাকা। যদি কোন দরকার থাকে তাহলে লাইনে দাঁড়ান টাকা দিয়ে ভেতরে গিয়ে কাজ সেরে আসুন’। পরে নিয়ম অনুযায়ী ৬’শ টাকা ভিজিট দিয়ে আব্দুর রহমানের চেম্বারের ভেতরে গেলে শরীরের প্রেসার মাপতে আসেন উঠতি বয়সী আরেক তরুণী। প্রেসারের সঠিক পরিমাণ উল্লেখ না করে তিনি ডাক্তারকে জানিয়ে দেন প্রেসার স্বাভাবিক আছে।

 

এ সময় আব্দুর রহমান রোগীর সমস্যা জানার আগেই ব্যবস্থাপত্রে ১৫/২০টি ঔষধের নাম লিখে দেন। এদিকে, বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল অ্যাক্ট ২০১০ (২০ ডিসেম্বর ২০১০-এ প্রকাশিত গেজেট) এর ধারা ২২(১) ও ২৯(১) থেকে জানা যায়, এমবিবিএস বা বিডিএস ডিগ্রি ছাড়া চিকিৎসকদের নামের আগে ডাঃ (ডাক্তার) পদবী ও নামের পরে ডিগ্রি ব্যবহার দন্ডনীয় অপরাধ। ন্যূনতম এমবিবিএস অথবা বিডিএস ডিগ্রিধারী ব্যতীত অন্য কেউ তাদের নামের পূর্বে ডাক্তার পদবী লিখতে পারবে না। তাও আবার তাকে বিএমডিসি’র রেজিস্ট্রেশনভূক্ত হতে হবে। এই নিয়ম অমান্য করে কেউ নিজের নামের আগে ডাক্তার শব্দ ব্যবহার করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে বিএমডিসি।

 

বিএমডিসি’র আইনের ২২ (১) ধারায় বলা হয়েছে, নিবন্ধন ব্যতীত এ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসা নিষিদ্ধ। কোনো ব্যক্তি এ ধারা লঙ্গণ করলে তাকে ৩ বছরের কারাদন্ড অথবা ১ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ড অথবা উভয় দন্ডে-দন্ডিত হতে হবে। ওই আইনের ২৯ (১) ধারা অনুযায়ী ভ‚য়া পদবী ব্যবহার নিষিদ্ধ।

এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আলী জেনারেল হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিসুর রহমানের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিক পরিচয় জানার পর লাইন কেটে দেন।

 

অভিযুক্ত কথিত ডাক্তার আব্দুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে মোবাইলে কোন কথা বলব না, আপনি কোন কিছু জানতে চাইলে আগামীকাল হাসপাতালে আসেন’।

 
 
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জ শহরের হায়দার আলী জেনারেল হাসপাতালের ভূয়া ডাক্তার আব্দুর রহমানের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!