previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

সাবেক ছাত্রদল নেতা রাসেলের দখলে হবিগঞ্জ শহরের ফুটপাত !

শীঘ্রই অভিযান পরিচালনা করে দখলদারদের উচ্ছেদ করা হবে -ওসি মাসুক আলী

 ফেব্রুয়ারী ২১, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

তারেক হাবিব :  হবিগঞ্জ শহরের সড়ক ও ফুটপাত দখল করে চলছে অবৈধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। শহরের কোথাও কোথাও আবার মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণভাবে বিভিন্ন হোটেলের চুলা ফুটপাতের ওপর রেখে রান্না করা হচ্ছে। খোলা এসব রান্নার চুলার পাশ দিয়ে হেঁটে যেতে হচ্ছে পথচারীদের। শুধু তাই নয়, স্থায়ী দোকানিরা দোকানের মালপত্র ফুটপাতে রেখে দেয়ায় পথচারী চলাচলে মারাত্মক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। বিশেষ করে ফাস্টফুডের দোকানগুলো বেশ লক্ষ্যনীয়। অভিযোগ আছে, শহরের চলাচলের ফুটপাত দখল করে টং দোকান স্থাপন করে অবৈধভাবে ফাস্টফুডের ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে একদল যুবক।
শুধু ফুটপাত দখলই নয়, দোকানগুলোতে খাবার গরম, রান্না করার ওভেন মেশিন, ইলেকক্ট্রিক পাখা, বাতি ইত্যাদিতে ব্যবহার করা হচ্ছে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। গতকাল শনিবার সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে শহরের শায়েস্তানগর পয়েন্ট থেকে শুরু করে চৌধুরী বাজার পর্যন্ত ৯টি স্থানে ফুটপাত দখল করে বসানো হয়েছে অস্থায়ী টং দোকান। আর দোকানগুলোর বিদ্যুৎতের চাহিদা মেটাতে পিডিবি’র মেইন লাইনের তার ফুটা করে বিপদজ্জনকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে বিদ্যুৎ।

ছবি : ফুটপাত দখল করে রাখা রাসেলের ফাস্টফুডের দোকান

তথ্য আছে, এ সব অবৈধ কর্মকান্ডের পেছনে রয়েছে রাসেল বিন নামে এক যুবক ও তার সহযোগীরা। রাসেল বিন নামধারী ছাত্রলীগের কর্মী হলেও জানা গেছে সে ছাত্রদলের কৌটায় ২০১৩ সালে  বৃন্দাবন সরকারি কলেজে ভর্তি হয়ে ছাত্রদল নেতা জিল্লুর রহমানের গ্রæপে সম্পৃক্ত থেকে দীর্ঘদিন সরকার বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত ছিলো। পরে বিরোধী দলের অবস্থায় সুবিধা না করতে পেরে যোগ দেয় কলেজ ছাত্রলীগে। কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক পদবী ব্যবহার করে শুরু করে অবৈধ কার্যকলাপ।
রাসেল বিন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রিচি গ্রামের রং মিস্ত্রি আন্নর আলীর পুত্র। ছাত্রদল থেকে রাতারাতি কলেজ ছাত্রলীগের নেতা। রিচি গ্রাম এবং জনৈক যুবলীগ নেতার আধিপত্যের ভয় দেখিয়ে শহরের বিভিন্ন স্পটে অবৈধভাবে ফুটপাত দখল করে ব্যবসা পরিচালনাকে রীতিমত ভাবিয়ে তুলেছে সচেতন মহলকে।
ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে তার অবৈধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো বার বার উচ্ছেদ করা হলেও পরে আবার যেই-সেই। হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মিজানুর রহমান মিজান জানান, ফুটপাত দখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করা সম্পূর্ণ অবৈধ। পূর্বে একাধিকবার অভিযানে তাদের উচ্ছেদ করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই অভিযান পরিচালনা করে আবার তাদের উচ্ছেদ করা হবে। হবিগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আব্দুল মজিদ জানান, অবৈধ বিদ্যুৎ ব্যবহারের বিরুদ্ধে আমার জিরো টলারেন্স।
কোন ধরণের তথ্য পাওয়া মাত্রই তাদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি মোঃ মাসুক আলী জানান, হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশের অভিযানে ফুটপাত দখলকারীদের বার বার উচ্ছেদ করা হয়েছে। দখলকারীরা পুলিশের নজর এড়িয়ে চলে। তবে নজরে আসামাত্রই তাদের উচ্ছেদ করা হবে।
হবিগঞ্জ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলমগীর জানান, ফুটপাত দখলকারীদের বিষয়ে পূর্বে আমরা পুলিশ সুপারকে জানিয়েছি। উচ্ছেদ করা হলেও এরা পূনরায় আবার বসে। এদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করা জরুরী। ফুটপাত দখল করে অবৈধ ব্যবসা পরিচালনাকারী সাবেক ছাত্রদল নেতা রাসেল বিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমার ব্যবসার কোন ট্রেড লাইসেন্স বা ফুটপাতে বসার অনুমতি নেই। তবে মেয়র মিজান ভাইকে অবগত করেই আমি ব্যবসা পরিচালনা করে আসছি।
দোকানে ব্যবহৃত বিদ্যুৎ সংযোগগুলো পিডিবি’র। তবে আমি একজন ছাত্র, আমার বৃহৎ কোন কর্মসংস্থান না থাকায় বেকারত্বকে দূর করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। ছাত্রদলের সাথে সম্পৃক্ত থাকার কথা জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘ছাত্রদলের জিল্লুর ভাই ছিলেন আমার বড় ভাইয়ের মতো। ভাই হিসেবে তার ডাক মতো হাজির হতাম’।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বঙ্গবন্ধু ম্যারাথন উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!