previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

ভাষার মাস এলেই কদর বাড়ে শহীদ মিনারের : অন্য সময় পড়ে থাকে অযত্নে-অবহেলায়

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের দুই একদিন আগে ও পর ছাড়া বছরের বাকী সময় জুড়েই শহীদ মিনারটি থাকে ময়লার ভাগাড় হিসেবে। ভাষা শহীদদের সম্মানে তৈরি করা এই শহীদ মিনারকে যেন দেখভাল করার কেউ নেই।

 ফেব্রুয়ারী ১৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

রায়হান উদ্দিন সুমন : দরজায় কড়া নাড়ছে শহীদ দিবস ও মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। একদিন পরেই ভাষা শহীদদের সম্মান জানাতে শুরু হবে এসব শহীদ মিনারের পুষ্পস্তবক অর্পণ। সারা বছর খোঁজ না নিলেও শুধুমাত্র এই দিবসটি এলে কদর বাড়ে বানিয়াচং শহীদ মিনারের। অন্য সময় অযত্ন অবহেলায় পড়ে থাকে বানিয়াচংয়ের একমাত্র শহীদ মিনারটি। শুধুমাত্র ২১ ফেব্রুয়ারি মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস এলেই শুরু হয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা কাজ।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের দুই একদিন আগে ও পর ছাড়া বছরের বাকী সময় জুড়েই শহীদ মিনারটি থাকে ময়লার ভাগাড় হিসেবে। ভাষা শহীদদের সম্মানে তৈরি করা এই শহীদ মিনারকে যেন দেখভাল করার কেউ নেই। পবিত্রতা রক্ষার্থে যে কোন শহীদ মিনারে জুতা পায়ে দিয়ে প্রবেশ নিষেধ। কিন্তু এই নিষেধাজ্ঞা মানছেন না কেউ। বরং বানিয়াচং শহীদ মিনারটি পরিণত হয়েছে বেকার মানুষদের আড্ডাখানায়। পাশের জিপ স্ট্যান্ডের চালকরা অবসরে আড্ডা মেরে সময় কাটান শহীদ মিনারে। এই আড্ডায় শহীদ বেধিতে বসেই চলে চায়ের সাথে ধূমপান।

 

 

ছবি : বানিয়াচংয়ে শহীদ মিনারটি সারা বছরই পড়ে থাকে অযত্নে অবহেলায়।ভাষা দিবস এলেই বাড়ে কদর

 

 

স্থানীয়রা জানান, বানিয়াচং বড়বাজারস্থ শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে রাখা হয় মোটরসাইকেল। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সভা-সমাবেশও হয় এই শহীদ মিনারের ভিতরেই। বানিয়াচং বড়বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি কর্তৃক শহীদ মিনারটির পবিত্রতা রক্ষায় সাইনবোর্ড সাঁটানো হয়। তবে এই সাইনবোর্ড কারো চোখে পড়ে না। সকাল থেকে এই শহীদ মিনারের আশপাশ পরিণত হয় প্রস্রাবখানায়।

সন্ধ্যা নামার পরই মাদকসেবীদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে পরিণত হয় এই শহীদ মিনারসহ আশপাশ। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দিনের বেলায় অনেকেই জুতা পড়ে মিনারের বেদিকে হাঁটা-চলা করছেন। পাশাপাশি শহীদ মিনারের ভিতরে এক কবিরাজ মজমা সাজিয়ে নানান রকম ঔষধ বিক্রি করছেন। জনৈক এক ব্যক্তি এই শহীদ মিনারে হাঁস-মোরগের খাদ্য শুকাচ্ছেন।

পাশের স্ট্যান্ড থাকায় তাদের জীপ গাড়ি, মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেল এলোপাতাড়ি করে রাখা হয়েছে। সারা বছর খবর না নিয়ে শুধুমাত্র ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি এলেই কিছুটা কদর বাড়ে বাংলাভাষার গৌরবময় স্মৃতিবিজড়িত স্থান শহীদ মিনারের। চলে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ও সাজ-সজ্জার কাজ। শুধুমাত্র ফেব্রুয়ারি মাসে শহীদ মিনারে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ও সাজ-সজ্জা আর সারাবছর কোনো নজর রাখায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় সচেতনমহল। ভাষা শহীদদের সম্মানার্থে শহীদ মিনারের মর্যাদা ও পবিত্রতা রক্ষায় জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছেন তারা। অভিযোগ রয়েছে- শহীদ বেদিতে বসে উশৃঙ্খল তরুণেরা ধূমপানসহ মাদক সেবন করে। শহীদ মিনারের মূল বেদিতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে থাকে সিগারেটের প্যাকেট ও অসংখ্য উচ্ছিষ্ট অংশ, খড়কুটো,ময়লা-আবর্জনায়।

 

আবার এই শহীদ মিনারের ভিতের মেলাও অনুষ্ঠিত হয়। বিশেষ করে মিনারের পূর্বদিকটা অস্থায়ী প্রস্রাবখানা হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। তাই এখানে উদ্ভট গন্ধ থাকে সব সময়। শহীদ মিনারের দুইদিকে স্টিলের পাইপ দিয়ে সীমানা দিলেও সেটা কাজ শেষ করার পরপরই ভেঙ্গে পড়ে যায়। এসব পাইপ কে বা কারা নিয়ে গেছে তারও কোনো হদিস নেই এখন। তাই সব সময় যাতে এই শহীদ মিনারটিকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা এবং শহীদ মিনারের চতুঃপার্শ্বে সীমানা নির্ধারণ করা যায় জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন ভাষা সৈনিকসহ সাংস্কৃতিককর্মীরা।

 

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় উপজেলা নির্বাহী মাসুদ রানার সাথে। তিনি জানান, কেউ যাতে শহীদ মিনারের পবিত্রতা নষ্ট না করে সেই জন্য বাজার কমিটির পক্ষ থেকে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়া হয়েছে। আর উপজেলা প্রশাসন থেকেও আমার দেখভাল করছি। আশা করছি অতি শীঘ্রই শহীদ মিনারের চারপাশে সীমানা প্রাচীর দেয়ার পরিকল্পনা হাতে নেয়া হবে। এর পবিত্রতা রক্ষায় সাংবাদিক থেকে শুরু করে জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্তরের লোকজনদের এগিয়ে আসা দরকার।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চ উপলক্ষে বানিয়াচংয়ে আলোচনা সভা ও মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!