previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শীর্ষ সংবাদ  >  বর্তমান নিবন্ধ

প্রতারণা ও তথ্য গোপন করার দায়ে জামায়াত নেতা হাফিজুল ইসলামকে বার কাউন্সিলের শোকজ

 ফেব্রুয়ারী ৫, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: জামায়াত নেতা হাফিজুল ইসলাম

 

স্টাফ রিপোর্টার :দুর্নীতি, অসাধু পন্থা অবলম্বন ও তথ্য গোপন করে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য হওয়ায় হবিগঞ্জ জেলা বারের সদস্য জামায়াত নেতা হাফিজুল ইসলামকে শোকজ করেছে বাংলাদেশ বার কাউন্সিল।

গত ১২ জানুয়ারী বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সহকারী সচিব আফজালুর রহমান স্বাক্ষরিত একপত্রে এ শোকজ করা হয়। জানা যায়, হাফিজুল ইসলাম ২০০৮ সালের ১৭ মার্চ বার কাউন্সিলের ৫০১নং সনদে তালিকাভূক্ত হন এবং একই বছরের ৩ এপ্রিল হবিগঞ্জ জেলা বারের সদস্য হয়ে আইন পেশায় নিয়োজিত হন।

তবে বার কাউন্সিলের শর্ত লঙ্গণ এবং তথ্য গোপন করে নবীগঞ্জ উপজেলার দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের এমপিওভূক্ত শিক্ষক হিসাবে থাকা অবস্থায় তিনি এ সদস্যপদ লাভ করেন। যদিও বার কাউন্সিল ও হবিগঞ্জ জেলা বারের বিধান অনুযায়ী এডভোকেট হিসাবে তালিকাভূক্তির পর কোনো সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করার বিধান নেই।

জানা যায়, হাফিজুল ইসলাম ১৯৯৫ সালের ১৯ এপ্রিলে দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসাবে যোগদান করে ২০০৯ সালের ৫ আগষ্ট পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৯ সালের ৫ আগষ্ট পর্যন্ত তিনি এমপিওভূক্ত শিক্ষক হিসাবে সরকারের বেতন ভাতাদি লিখিতভাবে গ্রহণ করেন। দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ সংক্রান্ত একটি প্রত্যয়নপত্র দিয়ে হাফিজুল ইসলামের ২০০৯ সালের ৫ আগষ্ট পর্যন্ত সেখানে চাকুরী করার তথ্য স্বীকার করেন।

মাসিক পে-অর্ডার এমপিও শিট অনুযায়ী ২০০৯ সালের জুলাই মাসে হাফিজুল ইসলাম ইনডেক্স নং ২৬৩৬৯০-এর বিপরীতে ৬ হাজার ১শ’ ৭৯ টাকা সরকারের বেতন উত্তোলন করেছেন। একই মাসে তিনি জেলা আইনজীবি সমিতির সদস্য হিসাবে একাধিক মামলাও পরিচালনা করেছেন।

এর আগে লাখাই উপজেলার মোড়াকরি গ্রামের হাজী নোমান মোল্ল¬া নামের এক ব্যক্তি হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি, দুদকের হবিগঞ্জ কার্যালয় এবং ঢাকার বার কাউন্সিলসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ প্রেরণ করেন। এদিকে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের অনুসন্ধানে হাফিজুল ইসলাম বাংলাদেশ জামায়তে ইসলামী দলের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত থেকে হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্থানে সরকার বিরোধী নানা কর্মকান্ডে জড়িত আছেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আইনজীবি হাফিজুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, শো-কজ অনুযায়ী বার কাউন্সিলে জবাব প্রদান করা হয়েছে। আশা করছি বার কাউন্সিল এর গ্রহণযোগ্য সমাধান করবেন। ঘটনাটির অভিযোগকারী লাখাই উপজেলার বাসিন্দা নোমান মোল্লা জানান, হাফিজুল ইসলাম একজন অসাধু ব্যক্তি তিনি তথ্য গোপন করে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে হবিগঞ্জ জেলা বারে আইন ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার বিরুদ্ধে দ্রæত ব্যবস্থা না নিলে এর দায় সকল আইনজীবিদের নিতে হবে।

হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি এডভোকেট আবুল মুনসুর জানান, ঘটনাটি সত্য হলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। অপরদিকে অভিযোগ প্রমাণিত হলে হাফিজুল ইসলামের আইনজীবি সনদ বাতিল হতে পারে বলে জানা গেছে

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বঙ্গবন্ধু ম্যারাথন উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!