previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শীর্ষ সংবাদ  >  বর্তমান নিবন্ধ

হবিগঞ্জে বেপরোয়া আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড-এর ম্যানেজার ইকবাল শরীফ সাকী

২ কোটি ৭০ লক্ষ টাকার জায়গা অবৈধ পন্থায় মাত্র ২৮ লক্ষ টাকায় বিক্রি প্রতিকার চেয়ে আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডকে ভুক্তভোগীর লিগ্যাল নোটিশ

 ফেব্রুয়ারী ৪, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি : আইডিএলসি ম্যানেজার ইকবার শরীফ সাকীর ফাইল ছবি

 

এম.এ রাজা/ আতাউর রহমান ইমরান :   হবিগঞ্জে নতুন এক আতঙ্কের নাম আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড-এর ম্যানেজার ইকবাল শরীফ সাকী। ঋণ দেয়ার নাম করে মানুষের সম্পত্তি দখলই তার মূল্য উদ্দেশ্য।  ঋণ বিতরণের সময় সুদের হার ১৪ ভাগ দেখালেও বিতরণের কিছুদিন পরেই তা ১৮ থেকে ২৫ ভাগ পর্যন্ত আদায় করা হয়। ১-২ কিস্তি পরিশোধ করতে ব্যর্থ হলেই সিন্ডিকেটের মাধ্যমে মর্গেজ রাখা সম্পত্তি নিলাম করে দেয়া হয়।

ঋণ বিতরণের সময় ঋণগ্রহীতাকে দেয়া হয় না কোন ধরণের লোন কন্ট্রাক্ট পেপার।  যার জন্য পরবর্তীতে ঋণগ্রহীতার সম্পত্তি নিলাম করে দিলেও আইনগত কোন ব্যবস্থা নিতে পারেন না ভুক্তভোগীরা। লোন কন্ট্রাক্ট পেপার আইডিএলসি’র ম্যানেজার ইকবাল শরীফ সাকীর কাছে চাইলে হেড অফিসে আছে বলে টালবাহানা শুরু করে। দিনের পর দিন তার কাছে পেপারসের জন্য ঘুরাঘুরি করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায় না।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের এক দুর্বৃত্তের নাম ইকবাল শরীফ সাকী। সাকীর এইসব অনৈতিক কাজ বাস্তবায়ন করতে শহরের প্রভাবশালীদের প্রতি মাসে কমিশন দেয়াসহ নামে-বেনামে একাধিক লোন দিয়ে রেখেছেন বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তারই অফিসের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। অভিযোগ আছে, বড় ঋণগুলো ফিল্ড অফিসারকে না দিয়ে সাকী নিজেই তদারকি করেন।

 

বিনিময়ে ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে নেন মোটা অংকের উৎকোচ। অনেকের কাছ থেকে বিদেশের ট্যুর অথবা কক্সবাজার ট্যুরের বিমান টিকেটসহ যাবতীয় খরচ উৎকোচ হিসেবে গ্রহণ করেন।  আবার ঋণগ্রহীতার সাথেও উৎকোচ নিয়ে অনেক সময় দেশ-বিদেশে ঘুরে বেড়ানোর ছবি পাওয়া গেছে।  অথচ নিয়ম মাফিক ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে এক কাপ চা খাওয়ার অধিকার নেই সাকীর।  সাকীর এইসব অপকর্মের প্রতিবাদ করতে গেলে তার লালিত গুন্ডাপান্ডা দিয়ে হুমকি-ধামকি এমনকি মারধরের অভিযোগও পাওয়া গেছে।

জানা যায়, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সুরাবই গ্রামের সৈয়দ ছমির আলীর পুত্র সৈয়দ ফোরকান আলী আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড থেকে গত ২০১৬ সালের ৩ মার্চ ২৫ লক্ষ টাকা ঋণ গ্রহণ করেন।  ঋণ গ্রহণের সময় জামানত হিসেবে অলিপুর শিল্প এলাকায় অবস্থিত ১৩.৫০ শতাংশ জায়গা তিনি মর্গেজ রাখেন। ওই সময় আইডিএলসি ফাইন্যান্স মনোনীত কোম্পানির লোক দ্বারা ১৩.৫০ শতাংশ জায়গার ভ্যালুয়েশন করানো হয়। প্রতি শতাংশ জায়গার দাম ২০ লক্ষ টাকা দেখানো হয়। যার মোট মূল্য ২০১৬ সালে ছিল ২ কোটি ৭০ লক্ষ টাকা।  নিয়মিত কিস্তি পরিশোধের এক পর্যায়ে ১৬ লক্ষ ৯৫ হাজার ৭শ’ ৭২ টাকা বকেয়া থাকা অবস্থায় ব্যবসায়ীক কাজে ফোরকান আলী ঢাকায় ব্যস্ত থাকেন। ওই সময় ১-২ কিস্তি জমা দিতে সমস্যা হয়।

ওই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ২০১৮ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর ফোরকান আলীকে কোন ধরণের নোটিশ না পাঠিয়ে গোপনে সিন্ডিকেটের লোক দ্বারা ফোরকান আলীর ২ কোটি ৭০ লক্ষ টাকার জমি মাত্র ২৮ লক্ষ টাকায় বিক্রয় করে দেয় আইডিএলসি ফাইন্যান্স হবিগঞ্জ শাখার ম্যানেজার মোঃ ইকবাল শরীফ সাকী। যার বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ৫ কোটি টাকার উপরে।

অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী ঋণগ্রহীতা সৈয়দ মোঃ ফোরকান আলী। মাত্র ২ বছরের ব্যবধানে ১৬ লক্ষ ৯৫ হাজার ৭শ’ ৭২ টাকা ঋণ পরিশোধের বাকি থাকা প্রায় ৫ কোটি টাকার সম্পত্তি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে নিলাম করে বিক্রয় করে দেয়ায় হবিগঞ্জ জেলা জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে আইডিএলসি’র ম্যানেজার ইকবাল শরীফ সাকীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমরা নিয়ম মাফিক জায়গা নিলাম করেছি। পরে নিলামের কাগজপত্র ও নোটিশ চাইলে তিনি তা দেখাতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বঙ্গবন্ধু ম্যারাথন উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!