previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বাহুবল  >  বর্তমান নিবন্ধ

বাহুবলে বিএনপির নেতৃত্বের পরিবর্তনের হাওয়া

 জানুয়ারী ১৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার:   হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলা বিএনপির নেতৃত্বে পরিবর্তনের হাওয়া মিলছে। দীর্ঘ তিন যুগ ধরে উপজেলা বিএনপির সভাপতি পদ ধরে রাখা আকাচ্ছদ মিয়া বাবুলের বলয় ভাঙতে পারে। এবারের কাউন্সিলে সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন বারবার কারা নির্যাতিত নেতা বিএনপির যুগ্ন আহব্বায়ক তরুণদের আইডল তুষার চৌধুরী।

নানা প্রতিকূলতার মাঝেও দলের শক্তি আরো গতিশীল করতে আগামী ২২ জানুয়ারী কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে উপজেলা বিএনপি। সভাপতি পদে লড়ছেন বর্তমান সভাপতি আকাদ্দছ মিয়া বাবুল বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক বিশিষ্ঠ ঠিকাদার তুষার চৌধুরী। সাধারন সম্পাদক পদে লড়ছেন বর্তমান সাধারন সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিজান ও যুবলদল সভাপতি তরুণদের আইডল সাহসী জিয়ার সৈনিক শামছুল আলম।

 

 

এদিকে বিএনপির কাউন্সিলকে ঘিরে পুরো উপজেলায় চলছে উৎসবের আমেজ। প্রার্থীরা ঘুরছেন ভোটারদের ধারে ধারে। প্রটন্ড কুয়াশাকে উপেক্ষা করে রাতের ঘুমকে হারাম করে ভোটারদের দরজায় টনক নাড়ছেন প্রার্থীরা। ভোটারদের দিচ্ছেন বিভিন্ন উপঠৌকনও।

নির্বাচনকে ঘিরে চলছে চুল ছেড়া বিশ্লেষণ। চা ষ্টল থেকে শুরু করে আনাছে কানাছে বিএনপির কাউন্সিল নিয়ে সরগরম আলোচনা চলছে। আওয়ামীলীগও তাকিয়ে আছে কাউন্সিলে কে হচ্ছে সভাপতি। বাবুল নাকি তুষার!

প্রকাশ্যে কোন ভোটার মুখ না খুললেও সভাপতি পদে তুষার ও সাধারণ সম্পাদক পদে শামছুল আলমকে বিজয়ী করতে অনেক ভোটারই সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে।

তৃনমূলের কর্মীরা চাচ্ছে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক পদে নতুন মুখ। দীর্ঘ তিন যুগ ধরে সভাপতির পদ ধরে রাখার ফলে বাহুবলে নতুন করে কোন নেতা তৈরি হচ্ছেনা। তাদের মাঝে হাতাশা কাজ করছে। তাদের এই হতাশা ক্ষোভ প্রকাশ করবে ভোটের মাধ্যমে।

এ দিকে সভাপতি পদে তুষার চৌধুরী ক্লিক ইমেজের ব্যক্তি। তার রয়েছে সাহস শক্তি। সম্প্রতি সময়েও এক সপ্তাহ কারা বরণ করে এসেছেন। বয়সের ভারে নুজ্ব্য হওয়া আকাদ্দছ মিয়া বাবুলকে সভাপতি পদে আর রাখতে চায়না তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

বিএনপি নেতা রাসেল আহমদ বলেন, আমার বয়স ৩৬ বছর চলের। রাজনীতি যখন থেকে বুঝি তখন থেকে শুনে আসছি বিএনপির সভাপতি বাবুল সাহেব। দীর্ঘ কয়েক যুগ ধরে তিনি পদ না ছাড়ায় এই উপজেলায় বিএনপির কোন নেতা তৈরি হচ্ছে না।

বিএনপি নেতা ফায়েজ আহমদ বলেন, আমরা উপজেলা বিএনপিতে নতুন মুখ টাই। আমরা আর বিএনপিকে এক ঘরে করে রাখতে চাইনা। আমরা সভাপতি সাধারন সম্পাদক নতুন চাই।

ছাত্রদল নেতা আউয়াল মিয়া বলেন, আমরা আজ ছাত্রকরি কাল যুবদর করব, পরশু বিএনপিতে যাব কিন্তু বিএপির নেতারা যদি আমৃত্যু পদ ধরে রাখে তাহলে নতুন নেতা তৈরি হবে কেমনে। তাই আমি চাই উপজেলা বিএনপির নেতৃত্বে সময়ের সাহসী সৈনিকরা আসুক।

যুবদল নেতা জসিম বলেন, রাজপথের ভীর সৈনিক ছিলেন যুবদল সভাপতি শামছুল আলম, তিনি স্ব ইচ্ছায় যুবদলের সভাপতির পদ ছেড়েছেন। তিনি উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক পদে নির্বাচন করবেন। আমি চাই এভাবেই পুরাতনরা স্ব ইচ্ছায় পদ ছেড়ে দিয়ে উদিয়মান নেতারা পদে আসুক। ঘুরে দাড়াক বাহুবলের বিএনপি।

কথা হয় সিনিয়র নেতা আরজু মিয়ার সাথে তিনি বলেন, বাবুল ভাই কয়েক যুগ ধরে সভাপতি এ বছর তিনি স্ব ইচ্ছায় পদ ছেড়ে দেয়াটাই ভাল ছিল। এখন শুনছি তিনি আর নির্বাচন করবেন না। এ বছরই শেষ। এভাবে আরও তিনি বলেছিলেন, কোথায় উনি তো ঠিকই র্নিবাচনে অংশ নেন। আমরা বিএনপি করি জিয়ার আদর্শকে বাস্তবায়ন করতে। কিন্তু আমরা পদের এত লোভি কেন জানি না।

পুরো উপজেলা ঘুরে দেখা যায়, সব ভোটারই বলছেন নতুন মুখ। ভোটারদের কাছে তরুণদের আইডল তুষার চৌধুরী সভাপতি ও সময়ের সাহসী জিয়ার সৈনিক শামছুল আলমকে সাধারণ সম্পাদক হিসাবে প্রিয়। তবে তারা প্রকাশ্যে মুখ খুলছে। ভোটের মাধ্যমে তাদের প্রিয় নেতাদের নির্বাচন করবেন এমনটিই আভাস পাওয়া গেছে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বাহুবলে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালিত

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!