previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

বানিয়াচঙ্গে বিয়ের প্রলোভনে সৌদি ফেরত গৃহকর্মীর সর্বস্ব লুট : আদালতে মামলা দায়ের

 জানুয়ারী ১২, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: তায়িদুল ইসলাম (৩০)।

 

স্টাফ রিপোর্টার : বিয়ের প্রলোভন দিয়ে সৌদি প্রবাসী গৃহকর্মীর সর্বস্ব হাতিয়ে নেয়া, সর্বশেষ সুন্দর সংসারের স্বপ্ন দেখিয়ে ধর্ষণ এবং পরে গর্ভপাত। তারপরও সংসার বাঁধার স্বপ্ন পূরণ হল না বানিয়াচং উপজেলার জনৈক হোসনা খাতুনের। অল্প বয়সে স্বামী পরিত্যক্তা হয়ে এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে জীবিকার তাগিতে সৌদি পাড়ি দেন হোসনা খাতুন (২৭)।

প্রবাসে নানা অত্যাচার-যন্ত্রণা সহ্য করেও থেমে থাকেনি তার সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার স্বপ্ন। মাসের শেষে ছেলে-মেয়েদের ভরণ-পোষণ ও লেখাপড়ার খরচ পাঠাতেন প্রতিবেশী তায়িদুল ইসলামের বিকাশের ব্যবসায়ী দোকানে। এরই জের ধরে তায়িদুল ও হোসনার মধ্যে চলে নানা আলাপচারিতা। তায়িদুল ইসলাম (৩০) বানিয়াচং উপজেলার শাহাপুর গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের পুত্র ও স্থানীয় বাজারের বিকাশ ব্যবসায়ী। এক সময় তারা দুজনই জড়িয়ে পড়েন প্রেমের সম্পর্কে। চতুর তায়িদুল আস্তে আস্তে নানা প্রলোভনে হাতিয়ে নেন টাকা পয়সা।

হোসনাও তাকে সরল বিশ্বাসে বিকাশে টাকা পাঠাতেন তায়িদুলের কাছে। দীর্ঘ ১ বছর ৯ মাস ১০ দিন সৌদিতে অবস্থানের পর হোসনা ফিরে আসেন পৈতৃক ভিটায়। প্রবাসের সঞ্চয় দিয়ে চলে তায়িদুলকে নিয়ে ঘুরাফেরা। হোটেলে-রিসোর্টে রাত কাটান তারা। কিছুদিন পর হোসনার শারীরিক অবস্থার পরিবর্তন হলে নড়ে-চড়ে বসেন তায়িদুল। বিয়ের জন্য চাপ দিলে নানা অযুহাতে হোসনাকে এড়িয়ে যান তিনি।

পরে কৌশলে গত ১০ সেপ্টেম্বর হোসনাকে হবিগঞ্জ শহরের মাতৃমঙ্গলে নিয়ে এসে গর্ভপাত ঘটান তায়িদুল। পরে আর বিষয়টি গোপন রাখার চেষ্টা করলেও এলাকাবাসীর চাপে হোসনাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। সর্বশেষ হোসনা বাধ্য হয়েই দারস্থ হন আদালতের। গত ২৬ নভেম্বর হোসনা বাদী হয়ে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালে তায়িদুল ইসলামকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুারো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ প্রদান করেন। দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে দেয়া বক্তব্যে হোসনা বলেন, ‘আমি সুন্দর জীবনের আশায় আমার সর্বস্ব দিয়েছি। তায়িদুল আমার সাথে প্রতারণা করেছে, এখন আমার ভবিষ্যত অনিশ্চিত।

আদালতে মামলা দায়ের করেছি আশা করছি আমি সুবিচার পাব। অভিযুক্ত তায়িদুলের সাথে ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি আপনার সাথে কাল দেখা করব, এখন কিছু করবেন না’।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি নানা টালবাহানা করে বিষয়টি এড়িয়ে যান। মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই উপ-পরিদর্শক শাহে নওয়াজ জানান, তদন্ত চলছে, ভিকটিমের ডাক্তারী পরীক্ষা হয়েছে। আশা করছি খুব তাড়াতাড়ি ফলাফল আদালতে প্রেরণ করা হবে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বানিয়াচংয়ে ১০৫ গৃহহীন পরিবারের মধ্যে গৃহ প্রদান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!