previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বাহুবল  >  বর্তমান নিবন্ধ

বাহুবলে সাবেক ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যানের দ্বন্দ্ব চরমে

 জানুয়ারী ৯, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

বাহুবল প্রতিনিধি: বাহুবলে একটি মাদরাসা স্থাপনকে কেন্দ্র করে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির চৌধুরীর মধ্যে দ্বন্দ্বর চরম আকার ধারণ করেছে। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে মাদরাসা স্থাপনের কাজ আপাততো বন্ধ রাখতে অনুরোধ করেছেন গ্রামবাসী।

৮ জানুয়ারি শুক্রবার রাতে এ ব্যাপারে বিষয়টির সমাধান চেয়ে এবং অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সার্কেলের সিনিয়র  সহকারী পুলিশ সুপার (বাহুবল – নবীগঞ্জ) পারভেজ আলম চৌধুরীর কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন সাবেক বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির চৌধুরী।

অভিযোগ সূত্রে প্রকাশ, সম্প্রতি বাহুবল উপজেলার লোহাখলা গ্রামে ‘লোহাখলা ইসলামিয়া মহিলা মাদরাসা’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এলাকাবাসীর সহায়তায় প্রতিষ্ঠানটির নির্মাণ কাজ শুরুর পর থেকেই রাস্তায় চলাচলে বাঁধা-নিষেধ প্রদান করে প্রদান করে আসছেন বাহুবল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান।

 

 

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, তার এ বাঁধা-নিষেধ অপসারণে গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বহুমুখী তৎপরতা চালিয়েও সফল হতে পারেননি। ফলে নির্মাণাধিন মাদরাসার কাজ বন্ধ হয়ে গেছে। বিষয়টিকে ঘিরে এলাকার লোকজনের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ নিয়ে আইন-শৃঙ্খলা অবনতি হওয়ার আশঙ্কা আছে। এ পরিস্থিতিতে শুক্রবার রাতে মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও বাহুবল উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির চৌধুরী প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে লোহাখলা ইসলামিয়া মহিলা মাদরাসার নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টির নিমিত্তে বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার বরাবরে আবেদন করেন ।

এ ব্যাপারে অভিযোগকারী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির বলেন, ‘মহিলা মাদরাসা স্থাপনের জন্য আমি আমার বাড়ির একটি অংশ দান করে দিয়েছি। কিন্তু বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান খলিল মাদ্রাসা আসা যাওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে গ্রামবাসী অনেক অনুরোধ করলেও তিনি কারও কথা শুনেননি। বর্তমানে তিনি রাস্তা দেবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। যার কারণে মাদরাসা নির্মাণের কাজ বন্ধ রয়েছে।’

বর্তমান বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পরই আব্দুল কাদের চৌধুরী বিভিন্নভাবে আমার পেছনে লেগে আছে। এখন চারটি খুঁটি ঘেরে দাবি করছেন এখানে মহিলা মাদরাসা দেবেন। এরজন্য আমার বাড়ির উপর দিয়ে রাস্তা দিতে হবে। গ্রামবাসী ও আমি বলছি একটি মহিলা মাদরাসা দিতে হলে নিরাপদ জায়গায় দিতে হবে। কিন্তু তিনি কারও কথা শুনতে রাজি নয়।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

জেলা পরিষদের অনুদানে বাহুবলে রাস্তার ইট সলিং

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!