previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

ইউনিয় পরিষদ নির্বাচন-২০২১ইং : সদরের ৪টি ইউনিয়নে সম্ভাব্য প্রার্থীদের প্রি-প্রস্তুতি

অনেকেই আগাম প্রচার-প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে কুশল বিনিময় করছেন অনেক প্রার্থী। দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। সমান ভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও

 জানুয়ারী ৯, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

রায়হান উদ্দিন সুমন :    দলীয় প্রতীকে ইউপি নির্বাচন হবে এই খবরের সাথে সাথেই বানিয়াচং উপজেলার সদরের বিশেষ করে ৪টি ইউনিয়নে শুরু হয়েছে অ-নানুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচারণা। শুরু হয়েছে প্রার্থীদের প্রি-প্রস্তুতি। তফসিল ঘোষণার আগেই বিভিন্ন ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামায়াত ,জাতীয় পার্টিার স্থানীয় নেতাকর্মী ছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নির্বাচনের প্রাক প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন। সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা প্রত্যন্ত অঞ্চলে পোস্টার বিলবোর্ড টাঙ্গিয়ে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করে যাচ্ছেন তারা। শুধু তাই নয়, হাট বাজার ও চা-এর দোকানে আসন্ন ইউনয়ন পরিষদের নির্বাচনকে ঘিরে চলছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়।

 

জাতীয় সংসদ এবং পৌর নির্বাচনের পরপরই নির্বাচনের সম্ভাব্য সময় জানার পর বিশেষ করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী এবং সম্ভাব্য দলীয় প্রার্থীদের মধ্যে শুরু হয়েছে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা। মার্চের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে শুরু হয়ে ধারাবাহিকভাবে চলবে জুন পর্যন্ত। এই সময় যে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে তা আগ থেকেই জানা ছিল সকল প্রার্থীদের। তবে ধারাবাহিকভাবে শুরু হবে এই নির্বাচন। তাই ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এলাকা থেকে শুরু করে হাট-বাজারগুলোতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে চলছে নানা চুলচেরা বিশ্লেষন। নড়েচড়ে উঠেছে চেয়ারম্যান পদে সম্ভাব্য প্রার্থীরা। অনেকেই আগাম প্রচার-প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে কুশল বিনিময় করছেন অনেক প্রার্থী। দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। সমান ভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও।

 

অনেক প্রার্থী নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে ব্যানার ফেস্টুনসহ সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নিজেকে তোলে ধরছেন। এদিকে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে বানিয়াচং সদরের ৪টি ইউনিয়নে সম্ভাব্য দলীয় ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে।

 

 

 

 

বানিয়াচং ১নং উত্তর-পূর্ব ইউনিয়নে এবারো বিএনপির দলীয় প্রতীক ধানের শীষ পেতে মরিয়া বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন। সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান খান এবার ও নির্বাচন করবেন। তিনি দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। গত নির্বাচনে নৌকা পেয়েছিলেন মিজানুর রহমান খান। । অন্যদিকে নতুন মুখ হিসেবে আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় প্রতীক নৌকা পেতে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান মিয়া। নৌকার টিকেট পেতে মরিয়া উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাহিবুর রহমান। তিনি বিগত নির্বাচনেও নৌকা প্রতীক চেয়ে পাননি। স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করবেন বানিয়াচং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম খান। অপর দিকে তরুণদের আইকন বানিয়াচং মেধাবিকাশ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক,বানিয়াচং উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি ইমদাদুল হক মাসুম এবার দলীয় প্রতীক নৌকা চাইবেন। এই লক্ষ্যে তিনি মাঠে ময়দানে কাজ করে যাচ্ছেন। তরুণ হিসেবে এলাকায় আলাদা গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে ইমদাদুল হক মাসুমের। শীঘ্রই আনুষ্ঠানিকভাবে নিজের প্রার্থীতা ঘোষণা করবেন মাসুম। অপর প্রার্থী বানিয়াচং পল্লী বিদ্যুত সমিতির জোনাল অফিসের পরিচালক খায়রুল বাশার সোহেল এবারও স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করবেন বলে জানা গেছে। এলাকার পরিচিত মুখ জাতীয়তাবাদী আইন ছাত্র ফোরাম হবিগঞ্জ জেলা শাখার আহবায়ক তরুণ আইনজীবি অ্যাডভোকেট তারেক রহমান শাওন দলীয় প্রতীক ধানের শীষ পেতে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি উপজেলা বিএনপির আহবায়ক লুৎফুর রহমানের পুত্র।

বানিয়াচং ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ওয়ারিশ উদ্দিন খান দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করবেন। দল তাকে এবারও ধানের শীষ প্রতীক দিবে বলে তিনি আশাবাদী। সাবেক চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা হায়দারুজ্জামান ধন মিয়া নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করার ইচ্ছা পোষণ করেছেন। এই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। বানিয়াচং উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবদুল হালিম সোহেল এবার উক্ত ইউনিয়ন থেকে নৌকা প্রতীক পাওয়ার জন্য সভা সেমিনার করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে তার এলাকা তথা ছান্দবাসীদের নিয়ে প্রার্থীতা ঘোষণা করেছেন তিনি। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের দলীয় টিকেটে নির্বাচন করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন ২নং ইউপি আ’লীগের সেক্রেটারি মোত্তাকিন বিশ্বাস। তিনিও নৌকার মাঝি হতে দৌড়ঝাঁপ আরম্ভ করেছেন।

বানিয়াচং ৩নং দক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মাওলানা হাবিবুর রহমান আবারো নির্বাচন করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় প্রতীক নৌকায় নির্বাচন করা গতবারের প্রতিদ্বন্দ্বী ইউপি আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফান উদ্দিন দল থেকে নির্বাচন করতে চাচ্ছেন। তার আশা এবারো দল থাক মূল্যায়ন করবে। তোলে দিবে নৌকার টিকেট। তিনি গত নির্বাচনে মাত্র কয়েক ভোটের ব্যবধানের পরাজিত হয়েছিলেন। অন্যদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে এলাকার জনগনকে নিয়ে উঠান বৈঠক করে নিজের প্রার্থীতা জানিয়ে দিয়েছেন মামুন আহমেদ চৌধুরী। আ’লীগের দলীয় প্রতীক পেতে কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা যুবলীগের য্গ্মু সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান মিয়া। এই ইউনিয়ন থেকে নৌকা প্রতীক পেতে এলাকার ভোটারদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এ জেড এম উজ্জ্বল। তরুণদের মাঝে আলাদ গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে এই প্রার্থীর। উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সেক্রেটারি এমদাদুল হোসেন শাহীনও এবার দলীয় প্রতীক পেতে কাজ করে যাচ্ছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন প্রার্থী আবুল কাশেম আজিজী।

বানিয়াচং ৪নং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনিয়নে এবারো আওয়ামী লীগের দলীয় টিকেট পেতে নিরবে নিভৃতে কাজ করে যাচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান রেখাছ মিয়া। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে শেখ মোয়াজ্জেম হোসেন এই ইউনিয়ন থেকে নির্বাচন করবেন বলে জানিয়েছেন। এবার শক্ত একটা অবস্থানে রয়েছেন তিনি। তরুণ প্রার্থী হিসেবে মাঠে থাকবেন উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ মারুফ আহমেদ। দলীয় প্রতীক নৌকা পেতে আগ্রহী। এবং এই প্রতীক পেতে সর্বোচ্চ জোর-লবিং করে যাচ্ছেন তিনি। দলীয় টিকেট পেতে ইচ্ছা পোষণ করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম। গতবারের প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী সাবেক ছাত্র নেতা আনোয়ার হোসেন রয়েছে মাঠে। অপর দিকে তার ফুফাতো ভাই উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আশরাফ আলী সোহেল আ’লীগের দলীয় প্রতীক নৌকা পেতে কাজ করে যাচ্ছেন। বিএনপির দলীয় টিকেট পেতে এখন পর্যন্ত নাম শুনা যাচ্ছে গতবারের ধানের শীষ প্রতীক পাওয়া অ্যাডভোকেট আব্দুল কাদিরের। ৪নং ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য ও সাবেক ছাত্র নেতা শফিউল আলম ও ধানের শীষের মনোনয়ন পেতে প্রত্যাশী। এই ইউনিয়ন থেকে স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করার জন্য ব্যানার পোস্টারের মাধ্যমে জানান দিচ্ছেন শাহজাহান মিয়া নামে এক প্রার্থী।

 

প্রসঙ্গত, নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ি ৬ ধাপে অনুষ্ঠিত হবে ইউপি নির্বাচন। ২২ মার্চে প্রথম ধাপে হবে ৭৫২টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। ৩১মার্চ দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হবে ৭১০টি ইউনিয়নের নির্বাচন। ২৩ এপ্রিল তৃতীয় ধাপে হবে ৭১১টি ইউনিয়নের নির্বাচন। চতুর্থ ধাপে ৭ মে হবে ৭২৮টি ইউনিয়েনে নির্বাচন। পঞ্চম ধাপে ২৮মে হবে ৭১৪টি ইউনিয়নে নির্বাচন। আর শেষ অর্থাৎ ৬ষ্ঠ ধাপে ৪জুন অনুষ্ঠিত হবে ৬৬০টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বানিয়াচংয়ে রায়হানুল ইসলাম জুয়েল’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!