previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  লাখাই  >  বর্তমান নিবন্ধ

সাফি মিয়ার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক দোকান দখলের অভিযোগ

লাখাইয়ের বামৈ বাজার যেন মগের মুল্লুক! কে সেই মুল্লুকের সরদার?

 জানুয়ারী ৯, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: অভিযুক্ত সাফি মিয়া ও জোরপূর্বক দোকান দখলের অভিযোগের দোকান।

লাখাই প্রতিনিধি : লাখাই উপজেলার বামৈ বাজারে মোঃ সাফি মিয়া (৬৬) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে জাল বায়নাপত্রের অজুহাত দেখিয়ে ২০১৬ সালের ফেব্রæয়ারি থেকে অদ্যাবধি ৮ শতাংশ ভ‚মি ও দোকানপাট দখলে রাখার অভিযোগ উঠেছে।

মোঃ সাফি মিয়া বামৈ গ্রামের মৃত ছয়েদ হোসেনের পুত্র। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগীদের পক্ষ থেকে বামৈ মারিগাছ গ্রামের মোঃ ছুরে রহমানের পুত্র মোঃ জিলু মিয়া বাদী হয়ে পুলিশ সুপার বরাবরে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে বলা হয়, বামৈ মৌজার সাবেক এস এ খতিয়ান ২১৯৮, সাবেক এস এ দাগ ৬৩২৬ ও ৬৩৩১ উল্লেখিত তপসিলভ‚ক্ত ভ‚মিতে মোঃ জিলু মিয়ার মা-বাবা, ভাই-বোন মৌরশী সত্তে¡ মালিক হয়েও দখলকার থাকা অবস্থায় একই গ্রামের মৃত ছয়েদ হোসেনের পুত্র মোঃ সাফি মিয়ার নিকট ভাড়াটিয়া চুক্তিপত্রের মাধ্যমে ২০১১ সালের ২ ফেব্রæয়ারি ৫ বছর মেয়াদের জন্য ভাড়া দেয়া হয়। এই মর্মে একটি চুক্তিও সম্পাদিত হয়। ভাড়া চুক্তির মেয়াদ শেষে জিলু মিয়ার জমি সমঝিয়ে দেয়নি সাফি মিয়া। পরে জিলু মিয়া এলাকার চেয়ারম্যানসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে সাফি মিয়াকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি জানান, এই জমি তিনি ১৯৯৮ সালেই কিনে  নিয়েছেন। তারপর সাফি মিয়া ১৯৯৮ সালের একটি জাল বায়নাপত্র তৈরি করে এলাকায় প্রচার করে বেড়ায় সে এই জমি খরিদ করেছে। আরও জানা যায়, সাফি মিয়ার বিরুদ্ধে বামৈ বাজারে এ রকম আরো জায়গা সম্পত্তি জোরপূর্বক জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে দখল করে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে সাফি মিয়া দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, তিনি ১৯৯৮ সালেই জায়গার মূল মালিক জিলু মিয়ার পিতা মোঃ ছুরে রহমানের কাছ থেকে কিনে নিয়েছেন। সেই মর্মে একটি বায়নাপত্রও আছে। ২০১১ সালের চুক্তিপত্র বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে সাফি মিয়া জানান, ২০১১ সালের চুক্তিপত্রটি ভুয়া। আদালতে ২০১১ সালের ২ ফেব্রæয়ারি যে দলিল লেখকের মাধ্যমে চুক্তিপত্রটি দেখানো হচ্ছে সেই দলিল লেখক মোঃ আব্দুল হামিদ তালুকদার ২০১১ সালের ২ ফেব্রæয়ারির আগেই মারা গিয়েছেন। এছাড়া সাক্ষী হাজী সাগর আলীও দলিল সম্পাদনের আগেই মারা গেছেন। শুধু তাই নয়, সাফি মিয়া জানান জমির মূল মালিক মোঃ ছুরে রহমানও ২০১১ সালের আগেই মারা গেছেন।

অভিযোগকারী জিলু মিয়াকে ক্রস-ভেরিফিকেশন করলে তিনি জানান, তার পিতা জমির মূল মালিক মোঃ ছুরে রহমান এখনো জীবিত আছেন। ২০১১ সালের চুক্তিপত্রের দলিল লেখক মোঃ আব্দুল হামিদ তালুকদার ও সাক্ষী হাজী সাগর আলী ২০১১ সালের ২ ফেব্রæয়ারির পরেই মারা গেছেন। এই দুইজনের মারা যাওয়ার কোন সনদ আছে কি-না জিজ্ঞেস করলে জিলু মিয়া জানান, অন্য লোকের মৃত্যু সনদ সংগ্রহ রাখার প্রয়োজন মনে করেন না তিনি। ‘আলোচ্য ভ‚মিতে কখন দোকান নির্মাণ হয়েছে? ১৯৯৮ এর পরে নাকি ২০১১ এর পরে?’ দৈনিক আমার হবিগঞ্জ অভিযুক্ত সাফি মিয়াকে এই প্রশ্ন করলে তিনি জানান, দোকান নির্মাণ হয়েছে ১৯৯৮ সালের পরপরই। একই প্রশ্নের উত্তরে অভিযোগকারী জিলু মিয়া জানান, আলোচ্য ভ‚মিতে দোকান নির্মাণ করা হয়েছে ২০১১ সালের পরে। জিলু মিয়ার অভিযোগ, সাফি মিয়ার উল্লেখিত ১৯৯৮ সালের বায়নাপত্র ভুয়া; অন্যদিকে সাফি মিয়া বলছেন, জিলু মিয়ার উল্লেখিত ২০১১ সালের চুক্তিপত্র ভুয়া।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের তদন্ত টিম সরেজমিনে উক্ত দোকানের আশপাশের লোকজন ও দোকান তৈরীর সময়ের শ্রমিকদের সাথে কথা বলে এই মর্মে নিশ্চিত হয় যে, আলোচ্য ভূমিতে দোকান নির্মাণ হয়েছে ২০১১ সালের পরে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

লাখাই উপজেলার সুবিদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন ১৩ বছরেই পরিত্যাক্ত !

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!