previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  চুনারুঘাট  >  বর্তমান নিবন্ধ

চুনারুঘাট পৌর নির্বাচন : রাজাকার পুত্র সামছু’র কবল থেকে এবার কি উদ্ধার করতে পারবে আ’লীগ ?

প্রথম পর্বের তালিকাভূক্ত রয়েছে তৎকালীন বৃহত্তর সিলেটের শতাধিক রাজাকারের নাম। এর মধ্যে অন্যতম চুনারুঘাট পৌরসভার বর্তমান মেয়র  নাজিম উদ্দিন সামছু’র পিতা মুসলিম উদ্দিন রাজাকার।

 জানুয়ারী ৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

খায়রুল ইসলাম সাব্বির || হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত হলেও পৌর নির্বাচনে বারবার আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরাজিত হচ্ছে। এর গুরুত্বপূর্ণ কারণ হিসেবে দলের তৃণমূলে নেতাদের দাবি দলীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দল। আর এই কোন্দলকে পুঁজি করে জনবহুল প্রথম শ্রেণীর এই পৌরসভাটি  বিএনপি ও স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের নিয়ন্ত্রণে বারবার চলে যাচ্ছে। রাষ্ট্র ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ থাকলেও চুনারুঘাট পৌরসভার মেয়রের আসনটি বিএনপির দখলে। যে কারণে এখনও পৌর নাগরিকরা আধুনিক  সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। চুনারুঘাটের উন্নয়নের স্বার্থে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের কাছে তৃণমূলের নেতৃবৃন্দের দাবি সঠিক ও যোগ্য প্রার্থীকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দিতে। তাহলেই নৌকার প্রার্থীর জয়লাভ সম্ভব হবে বলে অনেকই মত প্রকাশ করেন।

চুনারুঘাট পৌরসভা ২০০৫ সালে গঠিত হওয়ার পর থেকেই বিএনপির দখলে রয়েছে। পৌর প্রশাসক ও বিএনপির সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত মোহাম্মদ আলী প্রশাসক থেকে প্রথম নির্বাচনে ২০১১ সালে মেয়র নির্বাচিত হন। ঐ নির্বাচনে বর্তমান চুনারুঘাট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাত্র ১০১ ভোটে পরাজিত হন।  মোহাম্মদ আলী মারা যাওয়ার পর ২০১৪ সালের উপ নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত নাজিম উদ্দিন শামছু ২ হাজার ৯১৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন।  সামান্য ভোটে হেরে যান সাবেক ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম রুবেল। সেই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী ছিলেন জিল্লুর কাদির লস্কর ও আফসর মিয়া চৌধুরী।

 

ছবি : রাজাকার মুসলিম উদ্দিনের পুত্র চুনারুঘাটের বর্তমান পৌরসভার মেয়র  নাজিম উদ্দিন সামছু’র ফাইল ছবি

 

২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর প্রথম দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেই নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী নাজিম উদ্দিন শামছু ধানের শীষ ৪৭৩৫ ভোটে জয় লাভ করেন। সেই নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী সাইফুল আলম রুবেল নৌকা ৪৭২১ ভোট পান।  মাত্র ১৪ ভোটের ব্যবধানে হেরে যান রুবেল। এ নিয়ে রয়েছে নানা অভিমত। দলীয় অভ্যন্তরিক কোন্দলের কারণে  সাইফুল আলম রুবেল হেরে যান বলে আওয়ামীলীগের অধিকাংশের নেতাদের   অভিযোগ ছিল।

২০২১ সালের পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নের জন্য ৫ জনের নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন বিগত নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী সাবেক ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম রুবেল, দুই প্রবাসী নেতা সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সাথী মুক্তাদির কৃষান চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রনেতা ও জেলা যুবলীগের সদস্য বজলুর রশিদ দুলাল, উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি এডভোকেট সহিদুল ইসলাম এবং পৌর যুবলীগের আহবায়ক এডভোকেট নাজমুল ইসলাম বকুল।  ৫ জন প্রার্থীর মধ্যে এখন পর্যন্ত দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার দাবীদার হিসেবে সাইফুল আলম রুবেল এগিয়ে রয়েছেন বলে আওয়ামীলীগের বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে। তবে আওয়ামীলীগের অপর ৪ প্রার্থীও বসে নেই। তারাও দলীয় মনোনয়ন লাভের আশায় ঢাকায় যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। চুনারুঘাট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও যুবলীগ নেতা এডভোকেট নাজমুল ইসলাম বকুলও প্রচারনায় এগিয়ে আছেন বলে পৌর যুবলীগ সূত্রে জানা যায়।

তৃণমূল আওয়ামী লীগ নেতারা মনে করেন, চুনারুঘাট পৌরসভা প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বিএনপির দখলে। ফলে পৌর এলাকায় আশানুরূপ উন্নয়ন নেই বললেই চলে। এবার যদি দলীয় প্রতীক নৌকা সঠিক জায়গায় না আসে তাহলে আবারও চুনারুঘাট পৌরসভার চেয়ার রাজাকার পুত্রের দখলে চলে যেতে পারে।  উন্নয়নের স্বার্থে চুনারুঘাটবাসী নৌকা সঠিক লোকের হাতে তুলে দেওয়ার দাবী জানিয়েছেন।

এদিকে গত (৮ ডিসেম্বর-২০) আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি সাথী মুক্তাদির কৃষান চৌধুরী, বজলুর রশিদ দুলাল, এডভোকেট নাজমুল ইসলাম বকুল, এডভোকেট সহিদুল ইসলাম হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করে বলেন, চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরের স্বেচ্ছাচারিতায় দল ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। এর ফলে সেখানকার একটি যুদ্ধাপরাধী পরিবার বিশেষ সুবিধা পাচ্ছে। তিনি দলীয় মনোনয়ন নিয়ে পৌর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় নগ্নভাবে হস্তক্ষেপ করেছেন।

চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু তাহের  বলেন, “দলীয় কোন্দল নিয়ে আমি কোন মন্তব্য করতে চাই না। এ ব্যাপারে দলের নেতাকর্মী ও হাইকমান্ড সিদ্ধান্ত নিবেন। তবে, যারা আমার বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারীতার অভিযোগ করেছেন, তাদের অনেকের বিরুদ্ধেই ( ন্যাপ করতেন, যোদ্ধা অপরাধী পরিবারের সদস্য , নতুন দলে এসেছেন) ইত্যাদি অভিযোগ হওয়া সত্বেও তাদের নামের সাথে যথাযথভাবেই আওয়ামীলীগ নেতা উল্লেখ করে কেন্দ্রে পাঠিয়েছি।”

উল্লেখ্য, একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় খুন, ধর্ষণ, নির্যাতন, লুণ্ঠনে পাকিস্তানি বাহিনীকে যারা সহযোগিতা করেছিলেন এমন ১০ হাজার ৭৮৯ জন রাজাকারের নামসহ তালিকার প্রথম পর্ব প্রকাশ করা (১৫ ডিসেম্বর) ২০১৯ সালে । প্রথম পর্বের তালিকাভূক্ত রয়েছে তৎকালীন বৃহত্তর সিলেটের শতাধিক রাজাকারের নাম। এর মধ্যে অন্যতম চুনারুঘাট পৌরসভার বর্তমান মেয়র  নাজিম উদ্দিন সামছু’র পিতা মুসলিম উদ্দিন রাজাকার।

সংবাদ সম্মেলনে করে রাজাকারদের তালিকাটি প্রকাশ করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ. ক. ম মোজাম্মেল হক। এটি রাজাকারের তালিকার প্রথম পর্ব বলে জানানো হয়। মোজাম্মেল হক গণমাধ্যমকে জানান, প্রথম পর্যায়ে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী ১০ হাজার ৭৮৯ জন রাজাকারের নামের তালিকা প্রকাশ করেছি। ভবিষ্যতে পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করা হবে। জামায়াতে ইসলামীসহ স্বাধীনতাবিরোধীরা ক্ষমতায় থাকায় সময় অনেক রেকর্ড সরিয়ে ফেলেছে বলেও  জানান মন্ত্রী।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

চুনারুঘাটে প্রশাসনের কাছে ১২০টি ঘর হস্তান্তর করল সেনাবাহিনী

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!