previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  নবীগঞ্জ  >  বর্তমান নিবন্ধ

নবীগঞ্জে চলছে প্রার্থীদের আচরণবিধি লঙ্ঘনের প্রতিযোগিতা : নির্বিকার নির্বাচন অফিস

 জানুয়ারী ৮, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

সলিল বরণ দাশ, নবীগঞ্জ :   নবীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ফ্রি স্টাইলে চলছে আচরণবিধি লঙ্ঘন। কোনো নিয়মনীতির তোয়াক্কা করছেন না প্রার্থীরা। প্রার্থীদের গণসংযোগ থেকে পোস্টারিং কিংবা মাইকিং সব ক্ষেত্রেই আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। এ ব্যাপারে জেলা ও উপজেলা নির্বাচন অফিসের সংশ্লিষ্টরা যেন এক রকম নির্বিকার। গণসংযোগের ৭ দিন পেরিয়ে গেলেও নির্বাচন অফিসকে তেমন কোনো কার্যকর উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। তাদের এমন ভ‚মিকায় আচরণবিধি লঙ্ঘনে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। যদিও এসব দেখার জন্য তিন জন ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে রয়েছেন। তবে প্রার্থীদের দাবি তারা আচরণবিধি মেনেই গণসংযোগ চালাচ্ছেন।

এভাবে চলতে থাকলে সামনে নির্বাচনী পরিবেশ আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠতে পারে। নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে পরিস্থিতি, এমন শঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশ্লেষকরা। সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার দফতর সূত্রে জানা গেছে, পৌরসভা নির্বাচনে এ পর্যন্ত ০১টি লিখিত অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী গোলাম রসুল চৌধুরী রাহেল। এছাড়া অনেকে লিখিত অভিযোগ না করলে মৌখিক অভিযোগ করেছেন সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

 

 

ছবি : নবীগঞ্জে আচরণবিধি ভঙ্গ করে দেয়ালে পোস্টার লাগিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থীরা

 

 

এদিকে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের দায়ে তেমন কোনো কঠোর শাস্তির উদ্যোগ নেয়া হয়নি। জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা দেবশ্রী দাশ পালি বলেন, আচরণবিধি প্রতিপালন ভালোভাবেই হচ্ছে। তবুও কিছু জায়গায় লংঘনের ঘটনা ঘটছে। অভিযোগ পাওয়ার পরই তা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের কাছে পাঠানো হচ্ছে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ সাদিকুল ইসলাম বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। আচরণবিধি কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি দেখভালের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে। আচরণ বিধির ব্যতয় ঘটলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। আচরণবিধির ৭-এর ‘খ’ ধারায় রয়েছে কোনো প্রার্থী পথসভা ও ঘরোয়া সভা করতে চাইলে প্রস্তাবিত সময়ের ২৪ ঘণ্টা আগে তার স্থান এবং সময় সম্পর্কে স্থানীয় পুলিশ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে। যাতে ওই স্থানে চলাচল ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য পুলিশ কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারেন।

কিন্তু বাস্তবে চলছে তার উল্টো। প্রতিদিনই আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ও স্বতন্ত্র তিন মেয়র প্রার্থী গণসংযোগকালে একাধিক পথসভা করছেন। এসব পথসভা করায় আশপাশের এলাকায় সৃষ্টি হচ্ছে তীব্র যানজট। কিন্তু এসব দেখতে নির্বাচন অফিসে কোনো কর্মকর্তাকে মাঠে দেখা যাচ্ছে না। আচরণবিধির ৮-এ উল্লেখ আছে প্রার্থীদের পোস্টার সাদাকালো হতে হবে এবং এর আয়তন ৬০ বাই ৪০ সেন্টিমিটারের অধিক হতে পারবে না। কিন্তু অনেক প্রার্থীই এ বিধি মানছেন না।

নির্ধারিত আয়তনের পাশাপাশি অনেকে বড় আকারের ব্যানার ফেস্টুনও টানিয়েছেন। নবীগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, অনেক মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী তাদের পোষ্টার বিভিন্ন বাড়ী ও দেয়ালে টানিয়ে ফেলেছেন। ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় টানানো পোস্টারে রাস্তা উপর ছেয়ে ফেলছেন। আচরণবিধির ২০-এ বলা হয়েছে, কোনো প্রার্থী বা তার পক্ষে কোনো রাজনৈতিক দল, অন্য কোনো ব্যক্তি, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান মসজিদ, মন্দির, গির্জা বা অন্য কোনো ধর্মীয় উপাসনালয়ে কোনো প্রকার নির্বাচনী প্রচার চালাতে পারবেন না।

এ বিধিও মানছেন না প্রার্থীরা। আচরণবিধিতে দুপুর ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মাইক ব্যবহার করা যাবে বলে উল্লেখ আছে। শুধু তাই নয়, রাত ৮টার পর কোনো প্রার্থী গণসংযোগও চালাতে পারবেন না। কিন্তু পৌরসভার অনেক স্থানে দেখা যাচ্ছে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মাইক বাজানো হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে প্রচারও চালাচ্ছেন প্রার্থীরা। এছাড়া প্রচারে মোটরসাইকেল ব্যবহার নিষিদ্ধ হলেও তাও মানছেন না অনেকে।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী গোলাম রসুল চৌধুরী রাহেল বলেন, আমরা অত্যন্ত সুষ্ঠু পরিবেশে গণসংযোগ করছি। জনগণ স্বতঃস্ফ‚র্তভাবে অংশগ্রহণ করেছে। কোনোরকম আচরণবিধি লঙ্ঘনের অবকাশ নেই। নেতাকর্মী ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটিকে বলে দিয়েছি, তারা যেন নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলেন। তবে কালো টাকার ছড়াছড়ি হচ্ছে এ ব্যাপারে আমরা অভিযোগ দিয়েছি।

বিএনপির মেয়র প্রার্থী ছাবির আহমেদ চৌধুরী বলেন, আমরা আচরণবিধি মেনেই গণসংযোগ চালাচ্ছি। সব পর্যায়ের নেতাকর্মীদের এমন নির্দেশনা দেয়া আছে। তিনি আরো জানান, স্বাস্থ্য বিধি ও আচরণবিধি মেনেই তারা প্রচার চালাচ্ছেন। স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মাহবুবুল আলম সুমন বলেন, কোথাও আমার পোস্টার দেয়ালে লাগানো নেই। যদি কেউ লাগিয়ে থাকে আমার অজান্তে লাগিয়েছে।

নির্বাচনী আইনে জানা গেছে, আচরণবিধি লঙ্ঘন প্রমাণিত হলে কঠোর শাস্তির বিধানও রয়েছে। কোনো প্রার্থী তা তাহার পক্ষে অন্য কোনো ব্যক্তি নির্বাচন-প‚র্ব সময়ে বিধিমালার কোনো বিধান লঙ্ঘন করলে অনধিক ৬ মাসের কারাদন্ড অথবা অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন।

 

নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা প্রতিপালন দেখভালে ০৫ জন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে। নির্বাচন বিশেষজ্ঞ সুজন জেলা কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি এ.এস.এম মহসিন চৌধুরী বলেন, পৌরসভার প্রার্থীরা প্রতিনিয়ত আচরণবিধি লঙ্ঘন করছেন। কিন্তু তা নিয়ন্ত্রণে এখন পর্যন্ত বড় কোনো তৎপরতা চোখে পড়েনি। তিনি আরো বলেন, এখনই যদি প্রার্থীদের আচরণবিধি মেনে চলতে বাধ্য করা না যায় তাহলে তা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে। যার ফলে নির্বাচনী পরিবেশ অশান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এব্যপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন বলেন নির্বাচনের সার্বিক বিষয় দেখছে জেলা ও উপজেলা নির্বাচন অফিস। শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের ব্যপারে যেকোনো ধরনের সহযোগিতা করতে আমি প্রস্তুত।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

চেক ডিজঅনার মামলায় সাবেক এমপির ভাইয়ের সাজা : বাদীর পরিবার সমাজচ্যুত

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!