previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শীর্ষ সংবাদ  >  বর্তমান নিবন্ধ

হবিগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রোকেয়া খানমের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে – আলেয়া জাহির

 জানুয়ারী ৫, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: হবিগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রোকেয়া খানম

 

 

স্টাফ রিপোর্টার : অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে হবিগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রোকেয়া খানমের বিরুদ্ধে। নিয়মিত বিদ্যালয়ে না আসলেও হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর থাকে তার। শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার সময় ফি বাবদ রয়েছে তার অবৈধ আয়ের আরেক উৎস। তার এ অনিয়মের বিষয়ে সহকারী শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ অভিভাবকরা মুখ খুললে তাদের সঙ্গে করেন চরম দুর্ব্যবহার।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন আসবাবপত্র ক্রয়ের নামে ভুয়া বিল ভাউচার তৈরি, নানা অযুহাতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত চাঁদা আদায়, বিভিন্ন আসবাবপত্র আত্মসাত, পুরাতন বই বিক্রি, স্কুলে ইন্টারনেট কানেকশন সংযোগ ব্যবহার না করে বিল, লাইব্রেরি, ক্যামেরা ক্রয়, জার্সি ক্রয়, সাউন্ডবক্স ক্রয়, প্রিন্টার ক্রয়, ড্রাম সেট ক্রয়, কাবড্রেস ক্রয়, অস্থায়ী শ্রেণীকক্ষ নির্মাণ, সিএফএস ফান্ড ইত্যাদির মাধ্যমে তিনি হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা। প্রধান শিক্ষিকা রোকেয়া খানমের দুর্নীতির বিষয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের অবগত করা হলেও টনক নড়ছে না তাদের। পরিশেষে প্রশ্ন উঠেছে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের রহস্যময় ভূমিকা নিয়ে।

এ ব্যাপারে অভিভাবকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে বলে জানা গেছে। জানা যায়, প্রধান শিক্ষিকা রোকেয়া খানম হবিগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠে তার বিরুদ্ধে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, মহামারী করোনাকালীন সময়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে তিনি নানা অযুহাতে টাকা আদায় করেছেন। সরকারী নির্দেশনার বাইরে অষ্টম ও নবম শ্রেণীর প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে রেজিষ্ট্রেশন বাবদ ১০৫ টাকার স্থলে আদায় করেছেন ৩০০ টাকা। পুরো বিদ্যালয় থেকে টিফিন ফি বাবদ আদায় করেছেন ৭৫ হাজার টাকা। অভিযোগ আছে, বিদ্যালয়ের রেজাল্ট আটকিয়ে শিক্ষার্থীদের কাছে চাঁদা দাবী করেন রোকেয়া খানম। চাঁদা না দিলে রেজাল্ট স্থগিত করে রাখেন তিনি। এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলেয়া জাহিরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, প্রধান শিক্ষিকা রোকেয়া খানমের বিরুদ্ধে এখনো কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে মিটিংয়ে উপস্থাপন করে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। জেলা শিক্ষা অফিসার রুহুউল্লা জানান, পুরাতন বই নেয়ার কোনো নিয়ম নেই। ফলাফল স্থগিত রাখা নিয়মের বহির্ভূত। টিফিনের টাকা যদি কেউ নিয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই ফেরত দিতে হবে। রেজিস্ট্রেশন ফি অষ্টম শ্রেণীর জন্য ১০৫ টাকা, নবম শ্রেণীর জন্য ২২৫ টাকার উপরে কেউ নিতে পারবে না। নিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষিকা রোকেয়া খানমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, ‘টিফিনের টাকার বিষয়ে আমরা পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নিবো। পুরাতন বই নেয়ার নিয়ম না থাকলেও, অনেক ছাত্রী নতুন বই পায় না। সময় মতো তাদেরকে পুরাতন বই দিয়ে সহযোগিতা করার জন্যই পুরাতন বই সংগ্রহ করছি। এর চেয়ে বেশী কিছু বলতে পারব না’।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

আবু জাহির এমপি পুত্র ইফাতসহ সকল শিল্প উদ্যোক্তাদের বিসিকে’র নোটিশ

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!