previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  লাখাই  >  বর্তমান নিবন্ধ

ভূমি অধিগ্রহণের টাকা না দেয়ায় নির্মাণ হয়নি হবিগঞ্জ-লাখাই সড়কে নবনির্মিত ৩ সেতু ও ১ কালভার্টের এপ্রোচ

প্রকল্পের মেয়াদ শেষের তিন বছরেও সম্পন্ন হয়নি সংযোগ সড়কের । ভূমি অধিগ্রহণ ও জনদূর্ভোগ চরমে

 জানুয়ারী ৩, ২০২১  /  কোন মন্তব্য নাই

আতাউর রহমান ইমরান :   ১৪৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য হবিগঞ্জ-লাখাই সড়ক প্রকল্পে নির্মিত তিনটি সেতুর এপ্রোচ বা সংযোগ সড়ক তৈরি না করায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন এ রাস্তায় চলাচলকারী যাত্রীরা। রাস্তা এবং চারটি সেতু নির্মাণ কাজের মেয়াদ গত বছরের ফেব্রæয়ারিতে শেষ হয়ে গেলেও এখনো সমাপ্ত হয়নি পুরো কাজ। ২০১৮ সালে সাড়ে ২৬ কিলোমিটার দীর্ঘ রাস্তাটির নির্মাণ কাজ শুরুর পর রহস্যজনক কারণে রাস্তাটি ভাঙ্গা অবস্থায় ফেলে রেখেছিল ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মোজাহার এন্টারপ্রাইজ। এরপর জনদুর্ভোগ চরমে উঠলে স্থানীয় বাসিন্দাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখালেখি, মানববন্ধনসহ নানাভাবে আন্দোলন-সংগ্রামের ফলে পুনরায় কাজ শুরু করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। রাস্তাটি চলাচল  যোগ্য করতে পারলেও নির্ধারিত সময় অতিবাহিত হওয়ার পরেও সম্পূর্ণরূপে রাস্তার কাজ সম্পন্ন করেনি ওই প্রতিষ্ঠানটি। ভাদিকারার কাছে নির্মিত কালভার্টের সড়ক সংযোগের কাজও করেনি ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।

 

ছবি : ভূমি অধিগ্রহণের টাকা না দেয়ায় নির্মাণ হয়নি হবিগঞ্জ-লাখাই সড়কে নবনির্মিত ৩ সেতু ও ১ কালভার্টের কাজ

 

প্রকল্পে ৩৪ কোটি টাকা বরাদ্দে চারটি সেতু নির্মাণের দায়িত্ব পায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স জামিল ইকবাল। কাজ শেষ করার নির্ধারিত সময় অতিবাহিত হওয়ার পরে তারা বেকিটেকা, লোকড়া ও রিচি গ্রামের কাছে তিনটি সেতু নির্মাণ করতে পেরেছেন। বুল্লা বাজারে অবস্থিত আরেকটি সেতুর নির্মাণ কাজ এখনো চলমান রয়েছে। সেতু তিনটি নির্মাণ করতে পারলেও তারা এখনো সেতুগুলোর সড়ক সংযোগ বা এপ্রোচ নির্মাণ করেনি তারা। জানা যায়, সেতুগুলোর সংযোগ সড়ক প্রশস্ত করে নির্মাণ করার জন্য সেতুগুলোর দুই পাশের সড়কের পাশের জমি অধিগ্রহণ করার প্রয়োজন পড়ে।

 

২০১৭ সালে জমি অধিগ্রহণের জন্য জেলা ভ‚মি অধিগ্রহণ শাখায় প্রস্তাব প্রেরণ করে জেলা সড়ক ও জনপথ অফিস। জমি অধিগ্রহণের জন্য জমির মালিকদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার জন্য ২ কোটি ৫৩ লক্ষ টাকাও থোক হিসেবে দুই বছর আগে ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় জমা করে তারা। কিন্তু ভ‚মি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদেরকে এখনো টাকা প্রদান করেননি জেলা ভ‚মি অধিগ্রহণ শাখা। ভ‚মি অধিগ্রহণের পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ভ‚মি সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নিকট হস্তান্তর করা হয়নি বলেই সেতগুলোর সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা সম্ভব হচ্ছে না। এক ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকের ছেলে আল আমিন দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, ক্ষতিপূরণের টাকা না পেলে তাদের পক্ষে অধিগ্রহণকৃত বসতভিটা ছেড়ে যাওয়া সম্ভব হবে না।

 

সেতুর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মেসার্স জামিল ইকবাল-এর প্রকল্প ব্যবস্থাপক মোঃ হাসান আলীর কাছে মোবাইল ফোনে নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার পরেও সেতুগুলির সড়ক সংযোগের কাজ সমাপ্ত না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রথম দিকে জমির মাপজোকসহ নানা কারণে কাজ শুরু করতেই বিলম্ব হয়েছে। একটি সেতু এখনো নির্মাণ করা হয়নি কেন? জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেতুটির কাজ চলমান এবং কাজের মেয়াদ বাড়াতে ইতোমধ্যেই আবেদন করা হয়েছে।

 

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সজীব আহমেদ জানান, সেতুগুলোর এপ্রোচ কিংবা সড়ক সংযোগ চওড়া করার জন্য ভ‚মি অধিগ্রহণের প্রস্তাব ডিসি অফিসে রাখা আছে। এখনো ভূমি বুঝে না পাওয়ার কারণে কাজে দেরি হচ্ছে। জনভোগান্তি যাতে কম হয় সেজন্য তিনি ঠিকাদারদেরকে ভাঙ্গা গর্তগুলি ভরাট করে রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন। ভুমি অধিগ্রহণের বিষয়ে জানতে জেলা ভ‚মি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা শামসুদ্দিন মোঃ রেজা জানান, ভ‚মি অধিগ্রহণের কাজটি দ্রুত সম্পন্ন হয়ে যাবে। খুব শীঘ্রই অনুমোদনের কাজটি শেষ হবে। এ রাস্তায় চলাচলকারী যানবাহনের মালিকরা সেতুগুলো ও কালভার্টের সড়ক সংযোগ বা এপ্রোচের কাজসহ রাস্তাটির পুরো নির্মাণ কাজ দ্রুত সমাপ্ত করার দাবি জানিয়েছেন।

  • প্রকাশিত :2 সপ্তাহ আগে জানুয়ারী 3, 2021
  • পোস্টের লেখক:
  • সর্বশেষ আপডেট জানুয়ারী 3, 2021 @ 12:20 অপরাহ্ন
  • ক্যাটাগরি লাখাই
  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

লাখাইয়ে মৎস্য নিরোধ ও সংরক্ষণ আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!