previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  হবিগঞ্জ সদর  >  বর্তমান নিবন্ধ

হবিগঞ্জ শহরে ফুটপাত দখল করে দোকান : ভোগান্তিতে পথচারী

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান জানান, ফুটপাটে অবৈধ দখলবাজদের উচ্ছেদে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

 ডিসেম্বর ২, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার :   হবিগঞ্জ শহরের ব্যস্ততম এলাকা থানার মোড়, আদালতপাড়া ও সদর হাসপাতাল এলাকা। শহরে প্রবেশ এবং বাইরের একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট মুক্তিযোদ্ধা চত্ত¡র। ভোর বেলা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত হাজারো মানুষের সমাগম থাকে এখানে। শহরের এই রাস্তাটির বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ এই কারণে যে, এখানে রয়েছে ২০ লাখ মানুষের চিকিৎসার সর্বশেষ আশ্রয়স্থল হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ, হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ, সার্কিট হাউজ এবং হবিগঞ্জ সদর থানা। বিপরীত পাশে রয়েছে পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসকের বাসভবন এবং সরকারি বিভিন্ন দপ্তর। তবে ব্যস্ততম এলাকাটির রাস্তার দুই পাশের ফুটপাত দখল করে বসানো হয়েছে দোকানপাট। বছরের পর বছর এ রকম চললেও এগুলো দেখার যেন কেউ নেই।

 

ছবি : শহরে ফুটপাত দখল করে চলছে ব্যবসা বানিজ্য ! ফলে পথচারীরা পড়েছেন ভোগান্তিতে

 

অবৈধভাবে ফুটপাত দখলে থাকায় দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন সাধারণ পথচারীরা। ফুটপাত দখল করে কেউ দিয়েছেন ফলের দোকান আবার কেউ বিক্রি করছেন রকমারি পণ্য। সরেজমিনে ঘুরে হবিগঞ্জ সদর থানা ও সদর আধুনিক হাসপাতাল এলাকার প্রবেশদ্বারের দু-পাশে এমনই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে। দোকানপাটে ফুটপাত দখলে থাকায় পথচারীদের জন্য চলাচল কঠিন হয়ে পড়েছে। হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালের প্রবেশদ্বারের দক্ষিণ পাশে ফুটপাতে বসে ছোট ছোট ভাসমান দোকান। এ দোকানগুলোতে বিক্রি হয় চা, বিস্কিট, ডাব ও কোমল পানীয়।

তবে এর আড়ালে আবার বিক্রি হয়ে থাকে ভিন্ন কিছু। অভিযোগ আছে, ফুটপাতে থাকা এসব দোকানগুলোতে প্রতিনিয়তই বিক্রি হয়ে থাকে মাদক দ্রব্য। এক শ্রেণীর মাদকসেবীদের প্রায়ই ভীড় থাকে এখানে। ড্যান্ডি, গাঁজা, ইয়াবার ছড়াছড়ি বেশীই থাকে। কিছুদিন আগে হবিগঞ্জ সদর থানার সাড়াশী অভিযানে ডাব বিক্রেতা সাহাব উদ্দিনকে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা হয়। পরে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসানের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনাকালে ফুটপাতে থাকা এসব দোকানগুলো উচ্ছেদ করা হয়। ফুটপাতে দখলের দ্বায়ে অভিযুক্ত একজনকে ভ্রাম্যমান আদালতে সাজা দিলেও সম্প্রতি আবার যেই সেই।

ফুটপাট দখলে দুর্ভোগের বিষয়ে কথা হয় এক ফার্মেসির বিক্রয়কর্মীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘এ এলাকা অনেক জনবহুল। লোকজনের ভিড় তো থাকবেই। হাসপাতালের পাশেই আমাদের ফার্মেসি থাকায় রোগীর স্বজনরা সহজেই ওষুধ কিনতে পারেন। আমরা তো কোনো দুর্ভোগ সৃষ্টি করছি না।

তবে এক শ্রেণীর ভাসমান বিক্রেতারা চা-রুটি ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য কেনার নামে মাদক বিক্রিসহ নানা প্রকার অপকর্ম করে থাকে’। জনদুর্ভোগ প্রসঙ্গে হাসপাতালে মেয়ের চিকিৎসার জন্য আসা শহরের মোহনপুর এলাকার বাসিন্দা আসমা আক্তার বলেন, ‘এই রাস্তায় রিকশা চলাচল কম। ফুটপাত ধরে যে হাঁটব, সে উপায়ও নেই। রাস্তা ধরে হাঁটব, সেখানেও সুযোগ নেই। পরে এই ভোগান্তি মেনে নিয়েই হাসপাতালে এসেছি।’ দুর্ভোগ প্রসঙ্গে মেডিকেল কলেজে আসা শিক্ষার্থী শুভ মিয়া বলেন, ‘এই এলাকায় সব সময় যানবাহনের ভিড় থাকে।

ফুটপাত দিয়ে হাঁটাচলা করা যায় না। এ সড়ক দিয়ে চলাচলে খুবই কষ্ট হয়।’ তিনি আরো বলেন, ‘এসব দোকানের কারণে রোগী ও রোগীর স্বজনদের সমস্যা হয়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত’।

আদালতে আসা এডভোকেট আশরাফুল আলম জানান, আদালতের প্রবেশদ্বারের দুদিকে অসংখ্য ভ্রাম্যমান দোকান। নিত্য প্রয়োজনীয় অনেক জিনিষ বিক্রি করেন তারা। তবে এ ব্যবসার আড়ালে তারা এরা মাদক থেকে শুরু করে নানান অপকর্মই করে থাকে।

 

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান জানান, ফুটপাটে অবৈধ দখলবাজদের উচ্ছেদে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

দখলবাজদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ মিজানুর রহমান মিজান বলেন, ‘ফুটপাত দখলমুক্ত করার বিষয়টি আমাদের চলমান প্রক্রিয়া। আমরা প্রায় প্রতিদিনই শহরের কোনো না কোনো জায়গায় অভিযান চালাই; কিন্তু অভিযান শেষ হতে না হতেই পরিস্থিতি আবার আগের মতো হয়ে যায়। শুধু উচ্ছেদ অভিযান দিয়ে হবে না, আমাদের সবাইকে এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে।’

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

নারী উদ্যোক্তাদের নিয়ে কাজ করছে ‘উই’ Women and e-commerce Forum (WE)

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!