previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কেয়ারটেকার আশিকের বিরুদ্ধে সনদ জালিয়াতি ও ক্ষমতা অপব্যবহারের অভিযোগ

সম্পুর্ণ নিয়ম বহির্ভূতভাবে এমনকি স্থানীয় সংসদ সদস্যের পছন্দের প্রার্থীকে অগ্রাহ্য করে জেলার ডিডিকে কব্জায় এনে তার স্ত্রীকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মসজিদ ভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন তিনি

 নভেম্বর ১৯, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার :   বানিয়াচং উপজেলার ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মডেল কেয়ারটেকার মো.আশিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে সনদ জালিয়াতি করে চাকরি নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়াও দায়িত্ব অবহেলা ও ক্ষমতা অপব্যবহার,ইসলামিক ফাউন্ডেশন কার্যক্রম তথা সরকারি কাজের অনিয়ম করাসহ অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এর প্রতিকার চেয়ে গত ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসের ২৭ তারিখ হবিগঞ্জ জেলার ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক শাহ মো: নজরুল ইসলামের কাছে সুবিচার চেয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছিলেন বানিয়াচং উপজেলায় কর্মরত ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ৬২ জন শিক্ষক ও শিক্ষিকা। ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ প্রকাশ হচ্ছে ১ম পর্ব।

 

অভিযোগের কপি থেকে জানা যায়,মডেল কেয়ারটেকার আশিকুল ইসলাম ফাউন্ডেশনের সুনাম নষ্ট করে সামাজিক বিশৃঙ্খলা সৃষ্ট,তৎকালীন সুপারভাইজার তৌহিদ মিয়াকে তার দায়িত্ব থেকে অপসারণ করার জন্য পরপর কয়েকটি অভিযোগ ডিডির বরাবরে দাখিল করেন আশিকুল ইসলাম। যা ছিল মুলত মিথ্যা। এ অভিযোগটি সাধারন শিক্ষকদের মধ্যে চাউর হলে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্ঠি হয়। এরই প্রেক্ষিতে মডেল কেয়ারটেকার আশিকের নানা অনিয়ম উল্লেখ করে উপজেলায় কর্মরত সাধারণ শিক্ষকরা তার বরখাস্ত চেয়ে ডিডির বরাবরে পাল্টা আরেকটি অভিযোগ দাখিল করেন তারা। দু:খজনক হলেও সত্য যে,সাবেক ফিল্ডসুপারভাইজার তৌহিদ মিয়াকে প্রথমে আজমিরীগঞ্জে পরে কিশোরগঞ্জে বদলি করা হয়।

 

ছবি : বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মডেল কেয়ারটেকার আশিকুল ইসলামের ফাইল ছবি

 

কিন্তু নানা দুর্নীতি ও অনিয়ম করেও মডেল কেয়ারটেকার আশিকুল ইসলাম রয়েছে বহাল তবিয়তে। সুত্র জানায়,ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালকে হাত করে কোনো ধরণের নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে কাজ করে যাচ্ছে আশিকুল। অন্যদিকে বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মডেল কেয়ারটেকার (প্রহরী) আশিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে নিজের স্ত্রীকে সম্পুর্ণ নিয়ম বহির্ভুতভাবে চাকরি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগ রয়েছে কর্মস্থল ফাঁকি দেয়াসহ ইফা’র যাকাতের টাকা আত্নসাত ও ভূয়া নামসর্বস্ব নিরাপদ মাল্টিপারপাস নামে সমিতি খুলে লাখ লাখ টাকা আতœসাতসহ অসংখ্য অভিযোগের। দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে এমনি আরো অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্য। তবে আশিকুল ইসলামের স্ত্রীকে চাকরি প্রদানের বিষয়টি জানেন না বলে দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানা।

 

অনুসন্ধানে জানা যায়,বানিয়াচং ৪নং দক্ষিণ পশ্চিম ইউনিয়নের যাত্রাপাশা মহল্লার মৃত আবুল হোসেন মিয়ার পুত্র আশিকুল ইসলাম প্রায় ১০ থেকে ১২ বছর আগে বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের একজন সামান্য পিয়ন হিসেবে যোগদান করেন। যোগদান করার পর থেকেই তিনি সপ্তাহে দুই অথবা তিনদিন অফিসে আসা-যাওয়া করতেন। তার এই আসা-যাওয়া অফিসের কেউ ই মেনে নিতে পারেননি। তবে তার মাসিক বেতন ঠিকই উত্তোলন করে নিচ্ছেন মাসে পর মাস।

তথ্য আছে যাকাত ফান্ডে পুরো টাকা জমা না করে অর্ধেক টাকা তিনি জমা করেছেন। ২০১৫ সাল থেকে ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত কোনো ধরণের দায়িত্ব পালন করেননি আশিকুল ইসলাম। তার আগেও একবার মডেল কেয়ারটেকারের স্ত্রী শিরিন সিদ্দিকা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের শিক্ষক ছিলেন। এসময় মডেল কেয়ারটেকারের স্ত্রী শিরিন সিদ্দিকাকে কোনো ধরণের পড়ানোর অস্তিত্ব না পেয়ে তাকে শিক্ষক পদ থেকে বরখাস্ত করেন তৎকালীন ডিডি মহসিন আহমেদ। তারপর করোনাকালীন সময়ে নিয়মবহির্ভুতভাবে নিজের স্ত্রীকে আবার শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পাইয়ে দিয়েছেন আশিকুল ইসলাম।

আশিকুল ইসলাম ইসলামিক ফাইন্ডেশনের প্রহরীর পাশাপাশি তিনি যাত্রাপাশা সমুর্তাজিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসায় তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এছাড়াও আশিকুল ইসলাম স্থানীয় একটি হাইস্কুলে কিছুদিন শিক্ষকতা করেছেন। তবে তার এই শিক্ষকতা বেশি দিন টিকেনি। কারণ হিসেবে সে ওই হাইস্কুলে শিক্ষকদের মধ্যে সামান্য বিষয়াদি নিয়ে দলাদলি লাগিয়ে রাখতেন আশিক। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে পরবর্তীতে তাকে ওই হাইস্কুল থেকে বিতাড়িত করে দেন কর্তৃপক্ষ।

অন্য একটি সুত্র জানায়,শিক্ষকতার জন্য প্রয়োজনীয় সার্টিফিকেট জমা দিতে না পারায় তাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। এমনকি তার নিবন্ধন ও ছিলনা। অপরদিকে তার কয়েকজন সহযোগী মিলে গঠন করে নিরাপদ মাল্টিপারপাস নামে ভূয়া সমিতি। এই সমিতির অফিস স্থাপন করা হয় বানিয়াচং নতুনবাজারে রুবেল ম্যনসনের দোতলায়। অফিস থেকে ক্ষুদ্র খৃন নামে গ্রামের সহজ সরল মানুষের কাছ থেকে কিস্তিতে টাকা আদায় করত। বছর শেষে মোটা অংকের টাকা লাভ দেয়া হবে মর্মে এসব টাকা জমা নিত নিরাপদ কর্তৃপক্ষ। পরবর্তীতে গ্রাহকদের লভ্যাংশ না দিয়ে জমাকৃত টাকা নিয়ে চম্পট মারে তারা। এতে এলাকার সহজ সরল মানুষেরা পড়েন বিপাকে।

দিনের পর দিন গ্রাহকরা টাকা ফেরত চাইলেও তাদের কোনো রকমের পাত্তাই দেয়া হয়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই সমিতির একজন (নারী) গ্রাহক জানান,মোটা অংকের লাখ দেখিয়ে আমার কাছ থেকে দুই কিস্তিতে ২০হাজার টাকা নেয় আশিকুল ইসলাম ও সমিতির আরেক সদস্য। কিন্তু টাকা জমা করার পরেও এখন লাভ তো দুরের কথা আসল টাকাই দিচ্ছেনা তারা। শুধু দিব দিব বলে কালক্ষেপন করে যাচ্ছে।

এরকম আরো কয়েকজন গ্রাহক এমনটা ই জানিয়েছেন। তাদের এসব কথাবার্তার রেকর্ড দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর কাছে সংরক্ষিত আছে। এই নিরাপদ সমিতির নামে অনিবন্ধিত সমবায় সমিতি গঠন করে মোটা অংকের টাকা লোভ দেখিয়ে উপজেলার সহজ-সরল মানুষের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে আশিকুল ইসলাম গংরা। একপর্যায়ে ওই অফিসের কার্যক্রম গুটিয়ে ফেলে তারা।

 

সুচতুর আশিকুল খুব চালাক প্রকৃতির লোক হওয়ায় সে থাকে ধরাছোঁয়ার বাহিরে। এলাকায় একজন তেলবাজ হিসেবে পরিচিত এই আশিকুল। অতীতে সে ছাত্র মজলিসের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল। কিন্তু এখন সে আওয়ামী লীগের সকল নেতাদের সাথে রয়েছে তার উঠাবসা। নিজেকে মানবাধিকারকর্মী দাবি করে বিভিন্ন জায়গায় তার কর্তৃত্ব জাহিল করছেন। এই পরিচয় দিয়ে ধাঁপিয়ে বেড়াচ্ছেন কথিত এই মানবাধিকারকর্মী আশিকুল ইসলাম। তথ্য আছে, বিগত ইউনিয়ন নির্বাচনে নৌকা মার্কায় সমর্থনে শুধুমাত্র লোক দেখানোর নাম করে গলায় নৌকার ব্যাজ পড়ে প্রচারণা চালিয়েছে। কার্যত ভোট দিয়েছে অন্য প্রার্থীকে।

 

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষের প্রার্থীর মিডিয়াকর্মী হিসেবে কাজ করেছেও বলে জানা গেছে। অনুসন্ধানে আরো জানা যায়,আশিকুল ইসলাম বানিয়াচং নতুনবাজারে একটি দোকানের দোতলা ভাড়া নিয়ে গড়ে তোলেন ইকরা গণ-গন্থাগার নামে একটি পাঠাগার। সেই পাঠাগারের নাম করে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে বই এবং উন্নয়নের জন্য অনেক অনুদান নিয়ে আসেন। কার্যত এসব অনুদানের ছিটফোঁটাও তিনি এই পাঠাগারে খরচ করেননি। নামকাওয়াস্তে চেয়ার টেবিল ফেলে রেখে একধরণের ধান্দা করে যাচ্ছে আশিকুল ইসলাম।

 

ইকরা গণ-গ্রন্থাগারে এক জনপ্রতিনিধি কয়েক টন চাল অনুদান হিসেবে দেন। সেই চাল বিক্রি করে তাদের চলাচলের জন্য মোটর সাইকেল কিনে ফেলেন তারা। পুরাতন আসবাবপত্র রং করে নতুন হিসেবে চালিয়ে দিতেন এই প্রহরী আশিকুল। এই ইকরা গণ-গ্রন্থাগারটি মাসের ৩০দিন ই বন্ধ থাকে বলে জানা গেছে। পার্শ্ববর্তী ইকরা কম্পিউটার সেন্টারকে গণ-গ্রন্থাগার দেখিয়ে সমাজসেবা অফিস থেকে কয়েকটি কম্পিউটার ও নিয়ে আসেন তিনি। কার্যত এসব কম্পিউটার সেখানে নেই। গণ-গ্রন্থাগার খুলেও থেমে নেই আশিকের ধান্দা। নতুন ধান্দা হিসেবে সাগর দিঘীর দক্ষিণ পাড়ে গড়ে তোলে মদিনা ক্রিয়েটিভ নামে একটি স্কুল। এই স্কুলে মাত্র ১৫ জন শিক্ষার্থী ও ৫ জন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান শুরু করেন তিনি।

 

তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে এই স্কুলের পাঠদানের কোনো অনুমতি দেয়নি উপজেলা প্রশাসন ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস। এই স্কুল দেখিয়ে হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের এক সদস্যর কাছ থেকে কয়েকবার প্রায় দুই লাখ টাকা অনুদান হিসেবে নিয়ে আসেন আশিক। এর প্রতিদান স্বরুপ ওই জেলা পরিষদের সদস্যকে প্রধান অতিথি হিসেবে এনে সম্মাননা প্রদান করেন তিনি। কিন্তু এই অনুদানের টাকা কোনো উন্নয়ন কাজে খরচ না করে পুরো টাকাই পকেটস্থ করেন তিনি।

অভিযোগ রয়েছে বিগত দিনে এলাকার স্বনামধ্য মুসল্লিদের নিয়ে নানা ভাবে কটুক্তি করাসহ তাফসির মাহফিল নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করে সে। পরবর্তীতে এসবের কারণে মুসল্লিদের কাছে প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়ে পার পেয়ে যান আশিক। এছাড়া ও সে বানিয়াচং প্রেসক্লাবের কার্যক্রম নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অযাচিত মন্তব্য করেন। পরবর্তীতে এক সভায় প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের কাছে ক্ষমা চান তিনি। কার্যত ধুরন্দর আশিক কারো উন্নতি সহ্য করতে পারেন না। একে অপরের সাথে ঠুনকো বিষয় নিয়ে জামেলা লাগাতে তিনি খুবই পারদর্শী বলে এলাকাবাসী জানান।

বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ফিল্ড সুপারভাইজার তৌহিদ মিয়াকে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে শুধুমাত্র তার স্বার্থ হাসিলের জন্য এই উপজেলার দায়িত্ব থেকে সরানো মূল নায়ক আশিক। কারণ হিসেবে অনেকেই বলছেন তৌহিদ মিয়া থাকলে বিভিন্ন অনিয়ম সে করতে পারত না। তাই তাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে বলে অনেকেই জানান। তৌহিদ মিয়াকে সরিয়ে প্রহরী আশিকুল ইসলাম এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছে।

আরেকটি তথ্য নিশ্চিত করেছে,সম্পুর্ণ নিয়ম বহির্ভূতভাবে এমনকি স্থানীয় সংসদ সদস্যের পছন্দের প্রার্থীকে অগ্রাহ্য করে জেলার ডিডিকে কব্জায় এনে তার স্ত্রীকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মসজিদ ভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন তিনি। এমনকি ভিন্ন উপজেলা থেকে শিক্ষক এনে নিজের ইউনিয়নের প্রার্থীদের উপেক্ষা করেও চাকরি দিয়েছে সে। যেখানে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের শিক্ষক নিয়োগে তার স্বাক্ষর লাগে সেখানে এই স্বাক্ষর ছাড়াই আশিক এই কাজটি করেছেন বলে তথ্য রয়েছে। এছাড়াও তার বাড়ির পাশে একটি পুকুর ভূয়া কাগজ বানিয়ে নিজের বলে দাবি করে আসছেন বলে এলাকায় চাউর রয়েছে। এই বিষয়টি নিয়ে পুকুরের তিনপাড়ের মানুষদের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

 

এই বিষয়ে কথা হয় বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এমসিটি তথা প্রহরী মো:আশিকুল ইসলামের সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,আমার বিরুদ্ধে আনিত সব অভিযোগ মিথ্যা। এক পর্যায়ে সাংবাদিককে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে ফোন কেটে দেন তিনি।

 

কথা হয় বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ফিল্ড সুপারভাইজার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) সোলায়মান মিয়ার সাথে। তিনি জানান,তার স্ত্রীকে চাকরি দেয়ার বিষয়টি আমি জানি না। ডিডি স্যারের অনুমতি নিয়ে সে এটা করেছে। নিয়মিত অফিস করার জন্য আমি তো তাকে বলি। আমি এখানে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছি। আমাদের অফিস যেহেতু স্থানান্তর হবে তাই একটু এলোমেলো হচ্ছে। কার্যক্রম ঠিকঠাক মতোই চলছে।

 

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক শাহ নজরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার ব্যবহৃত নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়।

 

কথা হয় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সিলেট বিভাগের পরিচালক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ এর সাথে। তিনি এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন.শিক্ষক নিয়োগ ডিডি একা দিতে পারেনা। দিয়ে থাকলে সেটা অবৈধ। সেটা দেয়ার জন্য আমাদের আলাাদ বোর্ড আছে। তারপরও তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকলে সেগুলো আমরা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেব।

 

সার্বিক বিষয় নিয়ে কথা হয় বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রানার সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,আমি এই নিয়োগের বিষয়ে অবগত নই।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বানিয়াচংয়ে প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বীজ বিতরণ

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!