previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  মাধবপুর  >  বর্তমান নিবন্ধ

ওসি ইকবালের সহযোগিতায় অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন অলিদ মিয়া-ভুক্তভোগী এলাকাবাসী

মাধবপুরে অলিদ মিয়ার বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী

 নভেম্বর ১৪, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: অলিদ মিয়া ও ভুক্তভোগী এলাকাবাসী

 

স্টাফ রিপোর্টার : মাধবপুর উপজেলার দক্ষিণ বেজুড়া গ্রামের অলিদ মিয়া নামে এক ব্যক্তি সরকারী জায়গা দখল করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে বলে জানা গেছে। শুধু জায়গা দখলই নয়, অপহরণ, ধর্ষণের চেষ্টা, অসহায় মানুষদের নির্যাতন ইত্যাদির অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় দক্ষিণ বেজুড়া গ্রামের ভুক্তভোগীরা বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার দক্ষিণ বেজুড়া গ্রামের মৃত আনছর আলীর পুত্র অলিদ মিয়া (৩৫) দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্তকর্তাদের নাম ব্যবহার করে নিজেকে বিভিন্ন পরিচয়ে এলাকার সাধারণ মানুষকে হয়রানির পাশাপাশি সরকারী জলাশয়, খাস জমি দখল ও এক্সকেভেটর দিয়ে মাটি উত্তোলন করে স্থানীয় ইট ভাটাতে বিক্রি করে আসছেন। তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে তাদের মামলা-হামলা দিয়ে নানা রকমভাবে হয়রানি করেন অলিদ।

অভিযোগ আছে, স্থানীয় জনৈক স্কুলছাত্রীর পরিবার তার অপকর্মের প্রতিবাদ করলে ওই ছাত্রীকে কৌশলে ধর্ষণের চেষ্টাও করেন তিনি। এক পর্যায়ে ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে ছাত্রীকে গুরুতর আহত করেন তিনি। পরে ওই ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে হবিগঞ্জ আদালতে মামলাও দায়ের করেন। জমি সংক্রান্ত বিরোধে জের ধরে সুবিধা করতে না পেরে দিনমজুর আব্দুল খালেকের পুত্র এমরান মিয়াকে অপহরণ করেন অলিদ। পরে অবস্থার বেগতিক দেখে কৌশলে এমরানকে পিতার কাছে ফিরিয়ে দেন তিনি। ভুক্তভোগীরা আরও অভিযোগ করে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, অলিদের বিরুদ্ধে ভয় কেউ মুখ খোলে না, মাদক ও সন্ত্রাসী গ্রæপের একটা শক্তিশালী সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করেন তিনি।

এ সিন্ডিকেট কোন সুযোগ পেলেই এ সিন্ডিকেটের মাধ্যমে যেকোন ধরণের অনৈতিক কর্মকান্ড ঘটিয়ে থাকে। তাদের বিরুদ্ধে ভয়ে মুখ খোলে না, বর্ডার এলাকা থেকে মাদক ও অস্ত্রের ব্যবসাও করে এরা। উল্লেখ, মাধবপুর উপজেলার বুল্লা মৌজার জেএল নং-৩২, খতিয়ান নং-০১ ও দাগ নং-৫৭৯০ এর অধীনে ১৭.৪৪ একর সরকারী জায়গা বসবাসের জন্য লীজ গ্রহণ করে দক্ষিণ বেজুড়া ভূমিহীন সমবায় সমিতি। লীজকৃত জায়গায় স্থানীয় অসহায় ভূমিহীনরা বসবাস শুরু করেন। তবে স¤প্রতি অসহায় ভূমিহীনদের জায়গায় কূ-নজর পড়ে অলিদ মিয়া’র। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী দক্ষিণ বেজুড়া ভূমিহীন সমবায় সমিতির সভাপতি আব্দুল মালেক দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘অলিদ মিয়া একজন প্রতারক। সে অনেক অসহায় ভূমিহীনদের জায়গা দখল করেছে।

শুধু জায়গা দখলই শেষ নয়, ধর্ষণ, মাদক ব্যবসা ইত্যাদির সাথেও সে জড়িত। তার ব্যাপারে সুষ্ঠু প্রতিকার পেতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রসাশক বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেছি, আশা করছি এর সুষ্ঠু বিচার পাব’। মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসনুভা নাশতারান জানান, অভিযোগ থাকলে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ ব্যাপারে মাধবপুর থানার ওসি মোঃ ইকবালের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘‘অলিদ মিয়া একজন ভাল মানুষ। স্থানীয় কিছু লোকের সাথে জায়গা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে তার বিরোধ চলে আসছে। বর্তমানে ওই জায়গায় আদালতের নির্দেশে ১৪৪ ধারা বজায় রেখে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য বলা হয়েছে। আমরা আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট স্থানে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায়ের কাজ করছি। কে জায়গার মালিক, কে মালিক না এসব সংক্রান্ত বিষয়াদি পুলিশের নয়, আদালত ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দেখবেন’’। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত অলিদ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আব্দুল মালেক একজন প্রতারক ও মামলাবাজ।

সে ভুমিহীনদের নাম করে জায়গা লীজ নিয়ে সেখান থেকে এক্সকেভেটর দিয়ে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন করে। বিষয়টি এলাকাবাসীর নজরে আসলে লীজ বাতিলের জন্য ২০১৩ সালে জেলা প্রশাসক বরাবরে ১৪১ জন গ্রামবাসী স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ দেয়া হয়। বিষয়টি প্রমাণিত হলে তার লীজ বাতিল করা হয়। এরপর থেকে জায়গাটি আমার নেতৃত্বে গ্রামবাসীর দখলে আছে।

মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসনুভা নাশতারান জানান, অভিযোগ থাকলে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে জেলা পুলিশের বিশেষ অভিযান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!