previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  আজমিরীগঞ্জ  >  বর্তমান নিবন্ধ

আজমিরীগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা পেল স্বচ্ছল ব্যক্তিরা !

উপজেলার পৌর এলাকায় প্রাাণঘাতী করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র পরিবারে ২ হাজার ৫’শ টাকা প্যাকেজ প্রণোদনা বিতরণে স্বজনপ্রীতি ও নয়ছয় করার অভিযোগ উঠেছে ৯ নং ওয়ার্ড কমিশনার প্রদীপ রায়ের বিরুদ্ধে।

 অক্টোবর ২৮, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

দিলোয়ার হোসেন,আজমিরীগঞ্জ :   হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলার পৌর এলাকায় প্রাাণঘাতী করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র পরিবারে ২ হাজার ৫’শ টাকা প্যাকেজ প্রণোদনা বিতরণে স্বজনপ্রীতি ও নয়ছয় করার অভিযোগ উঠেছে ৯ নং ওয়ার্ড কমিশনার প্রদীপ রায়ের বিরুদ্ধে। কার্যত যারা পাওয়ার কথা তাদেরকে বাদ দিয়ে দেয়া হয়েছে স্বচ্ছল ব্যক্তিদের।

 

জানা যায়,প্রাণঘাতী করোনার কারণে সারাদেশের ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ লাখ দরিদ্র পরিবারকে এককালীন আড়াই হাজার টাকা করে দেয়ার জন্য ১ হাজার ২৫৭ কোটি টাকা ছাড় দিয়েছিল অর্থমন্ত্রণালয়। এতে নগদ সহায়তা প্রদানের জন্য অর্থমন্ত্রণালয় থেকে প্রদত্ত তালিকা মোতাবেক জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর যাচাইপূর্বক হিসাব খোলা এবং মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রেভাইডার প্রতিষ্ঠানগুলোকে নগদ সহায়তা যাতে যথাযথভাবে সুবিধাভোগীর হিসাবে পৌঁছায় সে ব্যবস্থা নিতে ব্যাংক গুলোকে বলা হয়।

 

এ ছাড়া বলা হয়, নির্মাণ, গণপরিবহণে, রেস্টুরেন্ট শ্রমিক, ফেরিওয়ালা, রেলওয়ে কুলি, মুজুর, ঘাট শ্রমিক, নরসুন্দর, রিক্সা- ভ্যান, গাড়ি চালকসহ নিম্নআয়ের মানুষ যারা দৈনন্দিন কাজ করে খায়, তাদের জন্য নগদ সহায়তা দেয়ার এ কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। কিন্তু আজমিরীগঞ্জ পৌরসভাধীন ৯নং ওয়ার্ডে দেখা যায়, ওইসব নীতি-নিয়ম উপেক্ষা করে সম্পূর্ণ মনগড়া ভাবে স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে এ প্যাকেজ প্রণোদনা বিতরণ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, ৬ সদস্য বিশিষ্ট অর্থাৎ কাউন্সিলর, সরকারি প্রাঃবিঃ সহকারি শিক্ষক, মৎস্য বা সমবায় কর্মকর্তা, আনসার সদস্য ও সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের একজন মুরুব্বির সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠনের মাধ্যমে ওই তালিকা তৈরির কথা থাকলেও ওয়ার্ড কমিশনার প্রদীপ রায় সবাইকে পাশ কাটিয়ে সম্পূর্ণ মনগড়া ভাবে তালিকা তৈরি করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

 

 

ছবি : প্রণোদনার তালিকায় সমাজের স্বচ্ছলসহ আত্নীয়দের নাম দিয়ে তালিকা করে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন কমিশনার প্রদীপ কুমার রায়

 

 

এ ছাড়া ৯ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা বা বাসিন্দা নন এমন লোকেদের কেও তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। চলতি বছরের ৬ মে কমিশনার প্রদীপ রায় কর্তৃক সরবরাহকৃত তালিকায় দেখা যায়, সুবিধাভোগীর তালিকায় ৪১ জন পুরুষ ও ১৩ জন মহিলা সহ মোট ৫৪ জন। এরমধ্যে, ক্ষদ্র ব্যবসায়ী ১৭, কাঠমিস্ত্রি ৩, ব্যবসায়ী ৩, গৃহিণী ১৩, দিনমজুর ৫, শ্রমজীবী ৪, কৃষক ৮ ও পুরোহিত ১ জন রয়েছেন। জনপ্রতি সরকারের আড়াই হাজার টাকা করে মোট ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা প্রণোদনা প্যাকেজ বিতরণ করা হয়েছে। তালিকানুসারে, ৯ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা দীপক রায়ের পুত্র ধীমান রায়, (মুদীদোকানদার ও কাউন্সিলর প্রদীপ রায়ের ভাতিজা), দীনেশ রায়ের পুত্র ধীরেন্দ্র রায় ( সুনামগঞ্জে ফ্লাইং ব্যবসায়ী ও কাউন্সিলরের ভাই) নারায়ণ রায়ের স্ত্রী রতœা রায় ( কাউন্সিলরের কাকী) পতাকী রায়ের পুত্র সুশংকর রায় ( বাজারের ব্যবসায়ী ও কাউন্সিলরের বৌয়ের বড় বোন জামাই) বিনয় রায়ের পুত্র বিধান রায় ( মাষ্টার টেইলার ও সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তার পিতা) বিনয় রায়ের পুত্র বিপ্লব রায় ( মুদী দোকান, হোল সেলস্) তোফাজ্জল হোসেনের স্ত্রী মোছাঃ সহিদা বেগম ( সরকারি কর্মচারীর স্ত্রী) হরেন্দ্র পালের পুত্র চন্দন পাল ( ব্যবসায়ী ও সরকারি স্কুলের শিক্ষিকার স্বামী) বিশ্ব রায়ের স্ত্রী সতী রানী রায় ( পুলিশ কনস্টেবলের মাতা) প্রসেন সূত্রধরের স্ত্রী শান্তি রানী সূত্রধর ( পৌরসভা কর্মচারীর স্ত্রী) দীনেশ দেবের পুত্র দিলীপ দেব (সে ২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা) তারা শীলের স্ত্রী মায়া রানী শীল ( সে ৮ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা) কিরণ মোদকের পুত্র তপন মোদক (সে ১ নং সদর ইউনিয়নের বাসিন্দা ও মাষ্টার টেইলার ) জিতু নন্দীর পুত্র সুমন নন্দী ( ডিড রাইটার জলসুখা সাব-রেজিস্ট্রার অফিস) দুলাল দাসের স্ত্রী শিপ্রা দাস ( প্রবাসীর স্ত্রী) পিযুষ রায়ের পুত্র পিনাক রায় ( ব্যবসায়ী ও কোম্পানিতে চাকুরীরত) পিযুষ রায়ের পুত্র কৌশিক রায় ( ডিলারশীপ ও কোম্পানিতে চাকুরিরত) তোতা মিয়ার পুত্র লতু মিয়া ( বীজ ও কীটনাশক ডিলারসীপ) প্রাণকান্ড রায়ের পুত্র প্রবীর রায় ( ডিস্ট্রিবিউটর, কমিশন এজেন্ট ও ৯নং ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি) স্বরবিন্দু রায়ের পুত্র সুজিত রায় ( ডিলারশীপ ও কমিশন এজেন্ট) মনু রায়ের পুত্র মিঠু রায় ( কোম্পানিতে চাকুরিরত) জহরলাল কুন্ডের পুত্র জগন্নাথ কুন্ড ( ফার্মেসি ব্যবসায়ী) এ ছাড়া আম্বর আলীর পুত্র মনিরুল ইসলাম ও শিমূল রায়ের পুত্র বাপন রায় ব্যবসায়ী।

 

তাদের পেশার স্থলে কৃষক লিখা হয়েছে। এ ছাড়া তালিকাভুক্ত অনেকের পেশা নিয়ে বিতর্কিত পর্যায়ে রয়েছে বলে জানা যায়। এভাবেই স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্যাকেজের আড়াই হাজার টাকা বিতরণ করেছেন মর্মে ৯ নং ওয়ার্ডের কমিশনার প্রদীপ রায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে।

 

এ ব্যাপারে কমিশনার প্রদীপ কুমার রায়ের সাথে কথা হলে তিনি জানান-তালিকা আমি করেছি ঠিক ই। এর চেয়ে বেশি কিছু জানিনা। সব জানেন পৌরসভার চেয়ারম্যান সাহেব।

 

বিষয়টি নিয়ে আজমিরীগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক এর সাথে কথা বললে তিনি জানান ,সবকিছু করে কমিশনাররা ই ।  যাচাই-বাচাই করার সময় থাকেনা আমাদের । আর যে সময় তালিকা করেছে সেই সময় ছিল করোনার মহামারি ।  সবকিছু তারা ই করছে । আমি শুধু সাইন করেছি ।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

আজমিরীগঞ্জে লাইসেন্সবিহীন স’মিলে অভিযান : জরিমানা আদায়

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!