previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  রাজনীতি  >  বর্তমান নিবন্ধ

প্রসাদ ষড়যন্ত্রের আঘাতে বারবার ভূলন্ঠিত যুব সমাজের আদর্শের বাতিঘর হবিগঞ্জ জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম

“মামার কুটচালে ভাগিনা কুপোকাত !

 অক্টোবর ১৫, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: হবিগঞ্জ জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম ও তার রাজনৈতিক পদবি।

 

বিশেষ রাজনৈতিক প্রতিবেদক : রাজনীতিতে প্রাসাদ ষড়যন্ত্র সেই অতীতকাল থেকেই চলে আসছে। যেখানে প্রাসাদ সেখানেই ষড়যন্ত্র; সেই ষড়যন্ত্রের জালেই ঘুরপাক খাচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা যুবলীগের সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম। যে আতাউর রহমান আজ সংসদ সদস্য না হোক, অন্ততঃ পৌরসভার মেয়র কিংবা উপজেলা চেয়ারম্যান হওয়াটা ছিলো খুবই সাধারণ বিষয়।

কিন্তু ২০১৫ সালের হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নির্বাচনে আতাউর রহমান সেলিমকে প্রকাশ্য দিবালোকে পরাজিত করানো হয়; সেই পরাজিত করানোর খলনায়ক হিসেবে পুরো হবিগঞ্জবাসী সেলিমের ‘মামা’ নামে খ্যাত সেই নেতাকেই দায়ী বলে জেনে আসছে। ২০১৫ সালে হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে কারাগারে থেকে লড়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জি কে গউছ। কারাগারে থেকেই জি কে গউছ নির্বাচনে অংশ নেন। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী আতাউর রহমান সেলিম ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজানকে পরাজিত করে জি কে গউছ নির্বাচিত হন। উল্লেখিত অন্য দুই প্রার্থীও অত্যন্ত শক্তিশালী প্রার্থী ছিলেন। তাদেরও ছিল বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক পরিচিতি। বলা হয়ে থাকে ‘মামা’ নামে খ্যাত সেই নেতা ইচ্ছে করেই তার ‘ভাগিনা’কে পৌর মেয়র নির্বাচিত হতে দেননি।

রাজনৈতিক মহল মনে করে ‘মামা’ ধরেই নিয়েছে ‘ভাগিনা’ পৌর মেয়র হলে পরবর্তীতে তারই পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়াবে। তাই নির্বাচন থেকে ‘মামা’ ইচ্ছে করলেই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজানকে বসিয়ে দিতে পারতেন; কিন্তু তিনি তা করেননি। অনেকেই মনে করে, ২০১৫ এর পৌর নির্বাচনে জি কে গউছের কাছ থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণ আর্থিক সুবিধা নিয়েছিলেন ‘মামা’। একদিকে টাকাও ইনকাম হলো; অন্যদিকে ‘ভাগিনা’কেও পথ থেকে সরিয়ে দেওয়া হলো-এই নীতিতেই হয় প্রাসাদ ষড়যন্ত্র। হেরে যান যুব সমাজের আদর্শের বাতিঘর হবিগঞ্জ জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম।

জাতীয় নির্বাচনে পৌর মেয়র জি কে গউছের অংশগ্রহণের কারণে ২০১৯ সালে হবিগঞ্জ পৌর মেয়র পদে পুনঃনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সবাই আশা করেছিল হবিগঞ্জ জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিমই পাবেন নৌকা প্রতীক। কিন্তু ‘মামা’ আবারো ‘ভাগিনা’কে কাচকলা দেখালেন অন্য মোড়কে। ২০১৫ এর আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজানকে দেওয়া হয় নৌকা প্রতীক, অনেকের ধারণা এই নৌকা প্রতীক পাওয়ার পেছনেও ‘মামা’ মেয়র প্রার্থী মিজান থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত আতাউর রহমান নিজ ইজ্জত রক্ষার্থেই স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করা থেকে বিরত থাকলেন; প্রদর্শন করলেন আওয়ামী লীগের প্রতি আনুগত্য।

আগামী কয়েকমাসের মধ্যেই আবারো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে হবিগঞ্জ পৌর মেয়র নির্বাচন। এবার ‘মামা’ খেলতে যাচ্ছেন অন্য খেলা। ‘ভাগিনা’ আতাউর রহমানকে উসকে দিয়েছেন হবিগঞ্জের সাহসীমুখ হিসেবে সুপরিচিত দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক ‘সুশান্ত দাস গুপ্ত’র বিরুদ্ধে। একেবারেই তুচ্ছ কারণে আতাউর রহমান সেলিম হবিগঞ্জের স্থানে স্থানে ‘সুশান্ত দাস গুপ্ত’র বিরুদ্ধে মিছিল মিটিং করছেন ‘মামা’র পরামর্শে। এই কার্যক্রমে মূলত ‘মামা’ ইচ্ছে করেই ‘ভাগিনা’র রাজনৈতিক ইমেজ নষ্ট করাচ্ছেন। ‘সুশান্ত’র নামে মিছিল মিটিং কোনভাবেই হবিগঞ্জের সচেতনমহল ভালোভাবে নিচ্ছে না। তাছাড়া সরকারী গোয়েন্দারাও এই বিষয়ে যথাস্থানে নিয়মিত রিপোর্ট করে যাচ্ছে। এতে আগামী নির্বাচনে আতাউর রহমান সেলিমের নৌকা প্রতীক পাওয়া দুরহ হয়ে যাবে। ‘ভাগিনা’কে মাঠে নৌকা প্রতীক পাওয়ার অযোগ্য হিসেবে দেখিয়ে এবার পরিকল্পনা করছেন পৌর নির্বাচনে ‘মামী’কে নৌকার টিকেটে নির্বাচন করানোর।

এবার শুধু ‘ভাগিনা’ নয়, ষড়যন্ত্রের শিকার হতে যাচ্ছেন বর্তমান মেয়র মিজানুর রহমান মিজানও। কৌশলে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামকে বর্তমান পৌর মেয়র মিজানুর রহমানের সাথে ঝগড়া লাগিয়ে মিজানের নৌকা প্রতীক না পাওয়ার জন্য নেপথ্যে কাজ করছেন ‘মামা’। ফলে অতি সহজেই আগামী পৌর নির্বাচনে ‘মামী’কে নৌকা প্রতীক পাইয়ে দেওয়াটা স্বাভাবিক।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’এর অনুসন্ধানে জানা যায়, আতাউর রহমান সেলিম ১৯ জুন ১৯৬৯ সালে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রিচি গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। বাবার ৬ পুত্র সন্তানের মাঝে তিনি দ্বিতীয়। যৌবনে পদার্পণের শুরুতেই তিনি আওয়ামী রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। দলের দুর্দিনে তিনি ছিলেন অতন্দ্র প্রহরীর মত। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কর্মী হওয়ায় সহ্য করতে হয়েছে জামাত-শিবিরের নির্যাতন, অনেকবার যেতে হয়েছে জেলে। রাজনৈতিক জীবনে ছোট-বড় মোট ২২টি রাজনীতির মামলার শিকার হয়েছেন আতাউর রহমান সেলিম। তিনি ১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত ৯টি রাজনৈতিক মামলায় ৪ বার হাজতবাস করেছেন।

২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত ১২টি রাজনৈতিক মামলা ও ১টি দ্রুত বিচার আইনে মামলার ৩ বৎসরের সাজা হয়েছে তার। ১/১১ তে আরও ১টি মামলায় ৩ বৎসরের সাজা হয় এবং পরবর্তীতে উচ্চ আদালত থেকে ওই মামলায় খালাস পান তিনি। তবে জেল-জুলুম নির্যাতন সহ্য করেও এক মুহুর্তেও জন্য পিছপা হননি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে।

জানা যায়, আতাউর রহমান সেলিম ১৯৮৮ সাল থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত ছিলেন হবিগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি। অত্যন্ত সুনামের সাথে দীর্ঘদিন পৌর ছাত্রলীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি। সততার সাথে সঠিক নেতৃত্ব দেয়ার কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের নির্দেশে ১৯৯১ থেকে ১৯৯৩ পর্যন্ত ছিলেন হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহবায়ক। জেলা ছাত্রলীগে যোগদান করেই বঙ্গবন্ধুর কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে জামাত-শিবিরের বিরুদ্ধে গড়ে তুলেন দূর্বার আন্দোলন। এক সময় আতাউর রহমান সেলিমের যোগ্য নেতৃত্বে পিছু হঠতে বাধ্য হয় জামাত-শিবির। ১৯৯৩ সালে আতাউর রহমান সেলিমের যোগ্য নেতৃত্ব কেন্দ্রীয় নেতাদের নজরে আসলে কেন্দ্রীয় নির্দেশে তাকে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগে আসে আমূল পরিবর্তন। তার নেতৃত্বে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের প্রতিটি কর্মী হয়ে উঠে অসহায় আর নিপীড়িত মানুষের বন্ধু। ১৯৯৮ সালে তিনি নির্বাচিত হন হবিগঞ্জ জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। এরপর একবার জেলা যুবলীগের আহবায়ক ও পরপর দুইবার জেলা যুবলীগের সভাপতি হিসেবে অদ্যাবধি অসাধারণভাবে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন।

আতাউর রহমান সেলিম দলের জন্য নিজের জীবনের অনেক মূল্যবান সময় বিলিয়ে দিয়েছেন কিন্তু দল তাকে কিছুই দেয়নি। বেঈমানি ছাড়া দল থেকে কিছুই পাননি তিনি। জেলায় শীর্ষ নেতাদের মধ্যে নিজের খুব শক্তিশালী ‘মামা’ থাকা সত্তে¡ও তিনি কেন সবচেয়ে বেশী রাজনীতির মামলার শিকার হয়েছেন এ নিয়ে সচেতন মহলে সবার প্রশ্ন! সবাই বুঝে গেছে যে ‘ভাগিনা’কে রাজনীতির মাঠ থেকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে; কলকাঠি নাড়ছে ‘মামা’।

হবিগঞ্জবাসী চায় যুব সমাজের আদর্শের বাতিঘর হবিগঞ্জ জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম মূল্যায়িত হোক। ‘মামা’র প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের শিকার হওয়া থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখলেই কেবল আতাউর রহমান সেলিম তার কাংখিত লক্ষ্যে পৌছাতে পারবেন বলে হবিগঞ্জবাসী মনে করে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

শায়েস্তাগঞ্জে ১৮’টি মন্ডপে চলছে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!