previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে বিশেষ সাক্ষাতকার দিলেন এডঃ আব্দুল মজিদ খান এমপি

 অক্টোবর ১৪, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: এডঃ আব্দুল মজিদ খান এমপি

 

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় সংসদে ‘হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়’ আইন পাশ হওয়ার পর থেকেই স্থান নির্ধারণ নিয়ে দেখা দিয়েছে আইনী জটিলতা।

এছাড়া আরও বেশ কিছু বিষয় নিয়ে হবিগঞ্জ জেলাজুড়ে চলছে বিতর্ক। বিষয়টি নিয়ে চরম উত্তেজনার মধ্যেই দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সাথে এক বিশেষ সাক্ষাতকার দিয়েছেন হবিগঞ্জ-২ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান। হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থান নিয়ে বিতর্ক যখন তুঙ্গে তখন মনোরম শিক্ষার পরিবেশ, শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা, সরকারি অর্থ সাশ্রয় ও পর্যাপ্ত জায়গা থাকার কারণে একমাত্র বানিয়াচং উপজেলার নাগুড়া এলাকাই ‘হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়’র উপযুক্ত স্থান বলে মনে করছেন এই সাংসদ।

হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বিল-২০২০ গত মাসের ১০ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বিলটি প্রস্তাব করলে কণ্ঠভোটে তা পাস হয়। এর আগে বিলটি বাছাই কমিটিতে পাঠানো ও সংশোধনী প্রস্তাব কণ্ঠভোটে নিষ্পত্তি হয়। হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আইনটি গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর চ‚ড়ান্ত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। পরে বিলটি গত ২৩ জুন সংসদে উত্থাপিত হলে পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। স্থায়ী কমিটি ৭ সেপ্টেম্বর বিলটির প্রতিবেদন জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করে।

এডঃ আব্দুল মজিদ খান এমপি’র বিশেষ সাক্ষাতকারটি নিয়েছেন দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্ত। তাকে সহায়তা করেছেন প্রধান প্রতিবেদক তারেক হাবিব।

প্রতিবেদক : হবিগঞ্জ জেলায় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে, যা হবিগঞ্জ জেলাবাসীর জন্য অত্যন্ত আনন্দের বিষয়। এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাতার পেছনের গল্পটুকু আমরা আপনার কাছ থেকে শুনতে চাই।

এড. মজিদ খান এমপি : ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর হবিগঞ্জ জেলার একটি জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হবিগঞ্জ জেলাবাসীর বিভিন্ন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ৫টি দাবি আদায়ের জন্য প্রতিশ্রæতি দিয়েছিলেন। এগুলো হলো- হবিগঞ্জে একটি মেডিকেল কলেজ স্থাপন, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, শায়েস্তাগঞ্জ থানাকে উপজেলায় রূপান্তর, বাল্লা স্থলবন্দর আধুনিকায়ন ও হবিগঞ্জ-সুনামগঞ্জ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ-শাল্লা-দিরাই) আঞ্চলিক মহাসড়ক নির্মাণ। প্রয়াত সংসদ সদস্য বাবু সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত বানিয়াচং উপজেলার পুকড়া ইউনিয়নে অবস্থিত নাগুড়া ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের এরিয়ার নিজস্ব জমি ও খাস জমিকে কাজে লাগিয়ে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার প্রস্তাব রেখেছিলেন। সেই অনুযায়ীই হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আইনটির কাজ এগুচ্ছিলো। শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক সংসদে পাঠানো বিলে প্রস্তাবে ছিলো ‘হবিগঞ্জ জেলা’য় হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হবে। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে সংসদীয় স্থায়ী কমিটি প্রস্তাবটি চ‚ড়ান্তভাবে সংসদে পাশের নিমিত্তে পাঠানোর পূর্বে ‘হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায়’ উল্লেখ করে উপস্থাপন করে। এভাবেই ‘হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়’ আইনটি পাশ হয়।

প্রতিবেদক : আমরা জানি যে, হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আইনটি সূচনালগ্ন থেকেই ‘হবিগঞ্জ জেলা’য় হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হবে- এই মর্মে অগ্রসর হচ্ছিলো। সেই মোতাবেক মন্ত্রী পরিষদ সভায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সিদ্ধান্তও গ্রহণ করা হয়েছিলো। এমতাবস্থায় আইনটি ‘শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটি’র সভায় কোন পরিস্থিতিতে ‘হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায়’ এই শব্দগুলো যুক্ত হয়ে গেলো? বিষয়টি আপনি কিভাবে দেখছেন?

এড. মজিদ খান এমপি : ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর হবিগঞ্জের এক সভামঞ্চে সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের প্রস্তাবের প্রতি সম্মতি জানিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একাত্মতা প্রকাশ করেন এবং হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়নে প্রতিশ্রæতি দেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিদায়কালে হেলিপ্যাডে তখনকার জেলা প্রশাসককে ‘নাগুড়া কৃষি ফার্ম ও গবেষণাগার’ স্থানটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য বাছাই করার পরামর্শ দিয়ে যান। তখন থেকেই জনগণ জেনে আসছে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হবে নাগুড়া কৃষি ফার্মে। ক্যাবিনেট মিটিংয়েও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বৃহত্তর পরিসরে ‘হবিগঞ্জ জেলা’য় হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হবে-এভাবেই সম্মতি দেন। ‘শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটি’ সাধারণত ক্যাবিনেট মিটিং এর সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত করে সংসদে প্রেরণ করে। কিন্তু কি কারণে ক্যাবিনেট মিটিং এর সিদ্ধান্তকে পাশ কাটিয়ে ‘শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটি’ ‘সদরে স্থাপিত হবে’ শব্দগুলো যুক্ত করে তা আমার কাছে স্পষ্ট নয়। আমি মনে করি, ‘শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটি’র এভাবে ক্যাবিনেট মিটিং এর সিদ্ধান্তকে পরিবর্তন করাটা সংসদীয় রীতি নীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

প্রতিবেদক : মোঃ আবু জাহির এমপি তার সাথে সাক্ষাতপ্রার্থী সকলকে শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনির দেয়া একটি এসএমএস দেখিয়ে বলছেন যে, শিক্ষামন্ত্রী আইনটি পাশ করার পূর্বে তাকে একটি এসএমএস করে জিজ্ঞেস করেন যে, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হবিগঞ্জ জেলার কোথায় স্থাপন করা হবে? এসএমএসের উত্তরে আবু জাহির এমপি শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনিকে জানান যে, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়টি হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় হবে। সত্যি কি এভাবেই কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়টি ‘হবিগঞ্জ জেলায় স্থাপিত হবে’ শব্দগুলি ‘হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায় স্থাপিত হবে’ বলে পরিবর্তিত হয়ে যায়?

এড. মজিদ খান এমপি : আবু জাহির এমপি সাহেব তার সাথে সাক্ষাতপ্রার্থীদের শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনির একটি এসএমএস দেখিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে আমিও শুনেছি। বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে একটি আইন বেশ কয়েকটি ধাপ পাড় হয়ে পাশ হয়ে চুড়ান্ত পর্যায়ে মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে যায়। ঠিক কোন ধাপে শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি হবিগঞ্জের আবু জাহির এমপি সাহেবকে এসএমএস করে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হবিগঞ্জের কোথায় স্থাপিত হবে জিজ্ঞেস করেছেন এই বিষয়টি আমি বুঝতে পারছি না।

প্রতিবেদক : অনেকেই বলছেন যে, মহান জাতীয় সংসদে যেদিন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বিল উত্থাপন হয় সেদিন আপনি সংসদে উপস্থিত ছিলেন না। উপস্থিত থাকলে কি আপনার এই বিলে আপত্তি বা সংশোধনী দেওয়ার সুযোগ ছিলো?

এড. মজিদ খান এমপি : করোনাকালীন অবস্থার প্রেক্ষিতে সংসদে উপস্থিত থাকার জন্য সংসদ সচিবালয়ের চিঠি দিয়ে সকল সংসদ সদস্যকে উপস্থিত থাকার তারিখ নির্ধারিত করে দেওয়া হয়। ঠিক একইভাবে গত সংসদ অধিবেশনে আমার উপস্থিত থাকার তারিখ নির্ধারিত ছিলো ৯ সেপ্টেম্বর; সুতরাং ১০ সেপ্টেম্বর যেদিন বিলটি উপস্থাপন করা হয় সেদিন আমার সংসদে উপস্থিত থাকার সুযোগ ছিলো না। তাছাড়া যদি ধরে নেই যে, ঐদিন আমি উপস্থিত ছিলাম তাতেও সরকারী দলের এমপি হিসেবে সরকারী বিলের বিরোধিতা করার কোন বিধান নেই। কাজেই আমার উপস্থিত থাকা না থাকায় এই বিল পাশের পরিবর্তন হওয়া বা না হওয়ার সুযোগ নেই।

প্রতিবেদক : প্রস্তাবিত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়টি কি কারণে হবিগঞ্জের নাগুড়ায় হওয়া উচিত বলে মনে করেন?

এড. মজিদ খান এমপি : হবিগঞ্জে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবী উত্থাপিত হয়েছে একটি ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। হবিগঞ্জ জেলা শহরের অতি সন্নিকটে “নাগুড়া কৃষি ফার্ম ও গবেষণাগার”টি প্রতিষ্ঠিত হয় বৃটিশ আমলে। আসাম সরকার ১৯৩৪ইং সনে প্রায় ৮৬.৬০ একর জায়গা নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে উঠে। ঐতিহাসিক এ প্রতিষ্ঠানটিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য “নাগুড়া কৃষি ফার্ম”কে কেন্দ্র করে মূলতঃ হবিগঞ্জে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের চিন্তা ভাবনা। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর থেকে জনসাধারণ ধারণা পোষন করেন “কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়” স্থাপিত হবে নাগুড়া কৃষি ফার্মে। নাগুড়া ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের কাছে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করলে অনেক সুবিধা হতো। সেই জায়গায় বর্তমানে নতুন ভবন নির্মাণ না করেও ক্লাস চালু করা যেত। এছাড়া কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রচুর জায়গার প্রয়োজন। পুকুর-জলাশয়সহ বিভিন্ন গবেষণার জন্য সেখানে জায়গা লাগবে। যে জায়গা শুধুমাত্র সেখানেই আছে। ওই জায়গাতে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন হলে অন্তত একশ’ একর জায়গা সরকারের সাশ্রয় হবে। বাকি একশ’ একর জায়গা অধিগ্রহণ করে নিলেই বিশাল জায়গা হবে। ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের এরিয়ায় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন সহজতর হত এবং কম সময়ের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় চালু করা যেত গবেষণাগারের অবকাঠামোগত সুবিধা কাজে লাগিয়ে। বিকল্প স্থানে হলে ভ‚মি অধিগ্রহণ ও প্রায় ২ থেকে ৩শ’ একর ভ‚মি সহজলভ্য হবে না। এখন শুধুমাত্র একজন ভাইস চ্যান্সেলর নিয়োগ দিয়েই নাগুড়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ শুরু করা সম্ভব যা অন্য কোথাও সম্ভব না।

প্রতিবেদক : হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আইন বর্তমানে যে পর্যায়ে আছে, এই পর্যায় থেকে আইনটি কোন সংশোধন করার সুযোগ আছে কিনা?

এড. মজিদ খান এমপি : দেশের জনগণের জন্য আইন, আইনের জন্য দেশ নয়। যেহেতু হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়টি ‘নাগুড়া কৃষি ফার্ম ও গবেষণাগার’ এ স্থাপিত হলে সরকারী অর্থের সাশ্রয়সহ অতি দ্রæত শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হবে। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চাইলে অবশ্যই যে অনুপ্রেরণায় এই কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের সূচনা হয়েছিলো, সেই লক্ষ্যে আইনটি সংশোধন করে বৃহত্তর পরিসরে ‘হবিগঞ্জ জেলা’য় হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হবে-এইভাবে পুনরায় সংসদে উপস্থাপন করে পরিবর্তন করা সম্ভব।

প্রতিবেদক : দৈনিক আমার হবিগঞ্জের মাধ্যমে আপনি কী বার্তা দিতে চান?

এড. মজিদ খান এমপি : হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন সম্পর্কিত আইন যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রী পরিষদ কর্তৃক অনুমোদিত ছিলো-তা পরিবর্তন করে ‘হবিগঞ্জ জেলায়’ শব্দগুলির পরিবর্তে ‘হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায়’ শব্দগুলি সংযোজন করে আইন পাশ করায় জেলার বাকী ৮টি উপজেলা তথা ৭০টি ইউনিয়নের জনসাধারণ ‘হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়’ এর অংশীদারের দাবীদার হতে বঞ্চিত হওয়ার আশংকা দেখা দেয়ায় তারা ব্যতিত ও ক্ষুব্দ। হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়টি ‘হবিগঞ্জ জেলায়’ স্থাপন করে পুরো জেলাবাসীকে গর্বিত হওয়ার সুযোগ দেওয়ার দাবী জানাই।

প্রতিবেদক : দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকাকে সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে কৃতজ্ঞতা জানাই।

এড. মজিদ খান এমপি : আমার পক্ষ থেকে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকাকেও ধন্যবাদ জানাই।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে ক্রয় দুর্নীতি অভিযুক্তদের জামিন বাতিল ও ক্রয় কমিটির সদস্যদের মামলায় সম্পৃক্ত করার দাবিতে মানব বন্ধন

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!